টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ইসলামে নামে যারা জঙ্গিবাদে লিপ্ত তারা ইসলাম ও মানবতার দুশমন

জমিয়াতুল ফালাহ্ শাহাদাতে কারবালা মাহফিলের ৩য় দিনে (শনিবার) হাজারো মানুষের ঢল

f1চট্টগ্রাম, ১৭  অক্টোবর (সিটিজি টাইমস):  আহলে বায়তে রাসূল (দ.) স্মরণে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল পরিচালনা পর্ষদের উদ্যোগে ১০ দিনব্যাপী ৩০তম আন্তর্জাতিক শাহাদাতে কারবালা মাহফিল দ্বীনদার জনতার অংশগ্রহণে ও আলোচকদের হৃদয়গ্রাহী আলোচনায় বেশ প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে। আজ ১৭ অক্টোবর শনিবার জমিয়াতুল ফালাহ জাতীয় মসজিদে বাদে মাগরিব থেকে শুরু হওয়া শাহাদাতে কারবালা মাহফিলের ৩য় দিনে দেশি-বিদেশি আলোচকরা বলেছেন, সারা বিশ্বে আজ ইসলামের নামে বোমা মেরে শিরñেদ করে নিরীহ মুসলমানদের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে এক শ্রেণির সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী। যারা দেশে দেশে সন্ত্রাসবাদ ছড়িয়ে দিচ্ছে তারাই মূলত ইয়াজিদি সহিংস ইসলামের প্রতিনিধিত্ব করছে। সুন্নি নামধারী জঙ্গিগোষ্ঠী তথাকথিত আইএস ভুয়া ইসলামী খেলাফত প্রতিষ্ঠায় সন্ত্রাস ও হত্যার পথ বেছে নিয়েছে। এরা ইসলাম, মুসলমান ও মানবতার দুশমন। বক্তারা বলেন, দেশি-বিদেশি জঙ্গি ও বাতিলদের হাতেই মর্মান্তিকভাবে শাহাদাত বরণ করেন বরেণ্য সুন্নি ব্যক্তিত্ব আল্লামা শায়খ নূরুল ইসলাম ফারুকী (রহ.)। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে চিহিœত খুনি বাতিলদের বিরুদ্ধে আজ সুন্নি উলামা ছাত্র-জনতাকে সোচ্চার প্রতিবাদী ভূমিকা রাখতে হবে। ইসলামের নামে জঙ্গিবাদে লিপ্তদের প্রতিরোধ-প্রতিহত করে ইয়াজিদি ধারার সহিংস ইসলামের বিপরীতে মানবতাবাদী ধারার ইনসাফভিত্তিক ইসলামের দর্শনকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার আহক্ষান জানান বক্তারা। চট্টগ্রাম ফটিকছড়ি ঈছাপুর দরবার শরিফের সাজ্জাদানশীন পীরে তরিকত শাহসূফি মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ আতাউর রহমান ঈছাপুরী (ম.জি.আ.) এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ৩য় দিনের মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান ও শাহাদাতে কারবালা মাহফিলের উপদেষ্টা আলহাজ্ব সুফি মুহাম্মদ মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, শাহাদাতে কারবালা মাহফিলের মধ্য দিয়ে এখানকার মুসলমানরা ৩০ বছর ধরে প্রকৃত ইসলামের বাণী শুনে আসছেন। আজ ইসলামের নামে নানা গোষ্ঠী মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে সরলপ্রাণ মুসলমানদের বিভ্রান্তিতে ফেলছে ও পথভ্রষ্ট করছে। অথচ এদেশে সূফি সাধকরাই ইসলাম প্রচারে অসাধারণ অবদান রেখেছে। যারা বোমা মেরে নিরীহ মানুষ হত্যা করে ইসলাম প্রতিষ্ঠার দুঃস্বপ্ন দেখছে তাদের ব্যাপারে সবাইকে সচেতন ও সতর্ক হতে হবে। সূফিবাদী ধারার ইমাাম হোসাইনি আদর্শের মানবিক ইসলাম প্রতিষ্ঠায় সবাইকে ভূমিকা রাখতে হবে বলে সূফি মিজান তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

শাহাদাতে কারবালা মাহফিল পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান, জমিয়াতুল ফালাহর খতিব ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের গভর্নর অধ্যক্ষ আল্লামা মুহাম্মদ জালালুদ্দিন আলকাদেরী স্বাগত বক্তব্যে বলেন, আহলে বায়তে রাসূলের ভালোবাসাই ঈমান। যার অন্তরে আহলে বাায়তে রাসূল (দ.) ও হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) প্রতি ভালোবাসা থাকবে সেই প্রকৃত মুসলমান। নামাজসহ ইসলামের প্রতিটি বিধি বিধানে আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) গুণ-কীর্তি ধক্ষনিত হয়েছে। তাই নিন্দুকরা যতোই আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) বিরুদ্ধে কুৎসা রটাবে তারা নিশ্চিতভাবে ইসলামের গ-ির মধ্যে থাকবে না। আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) শান মর্যাদা সমুন্নত করতে এ শাহাদাতে কারবালা মহফিল অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে ৩০ বছর ধরে। যারা এতে শামিল ও শরিক রয়েছেন তারা অবশ্যই ভাগ্যবান।

মাহফিলে অতিথি ছিলেন চাঁদপুর কচুয়া শাহজুলিয়া দরবারের সাজ্জাদানশীন পীরে তরিকত মাওলানা মুহাম্মদ রুহুল্লাহ শাহজুলি (ম.জি.আ), সাবেক নৌ বাহিনীর প্রধান ভাইস এডমিরাল সরোয়ার জাহান নিজাম, চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব একে এম ফজলুল্লাহ, পিএইচপি ফ্যামিলির ডাইরেক্টর আলহাজ্ব মুহাম্মদ আনোয়ারুল হক চৌধুরী, ফয়েজলেক দারুল হুদা দরবার শরীফের পীরে তরিকত মাওলানা মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন, পীরে তরিকত মাওলানা ইলিয়াছ রজভী, ফিনলে গ্রুপের আলহাজ্ব মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম চৌধুরী, সীমা গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ শফি, ওয়েস্টার্ন মেরিন শীপইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার সাখাওয়াত হোসাইন। সাহাবীগণ সত্যের মাপকাঠি বিষয়ে আলোচনা করেন মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা মুহাম্মদ কফিল উদ্দিন সরকার সালেহি। আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) প্রতি ভালোবাসা ঈমানের দাবি বিষয়ে আলোচনা করেন চন্দনাইশ জামিরজুরি রহমানিয়া আজিজিয়া ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আল্লামা মুফতি আহমদ হোসাইন আল কাদেরী, মাওলানা মুহাম্মদ মঈন উদ্দিন আল কাদেরী, মাওলানা মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম জেহাদী।

কোরান মজিদ থেকে তেলাওয়াত করেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্বারী শাইখ আহমাদ বিন ইউসুফ আল আজহারী (মিশর)। হামদ ও নাতে রাসূল (স.) পরিবেশন করেন পাকিস্তানের আন্তর্জাতিক নাত খাঁ হাসান বিন খুরশিদ ও মুহাম্মদ মারুফ শাহ। মাহফিল সঞ্চালনায় ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মাওলানা মুহাম্মদ জাফর উল্লাহ। আলোচক মাওলানা কফিল উদ্দিন সরকার সালেহী বলেন, আজ আমরা দ্বীন ইসলাম পেয়েছি আহলে বায়তে রাসূলের ত্যাগ ও কল্যাণে। তাঁদের প্রতি ভালোবাসা ছাড়া ঈমানদারিতার দাবি মূল্যহীন। সাহাবায়ে কেরাম ও নবী পরিবারের পূত পবিত্র সদস্যগণ সত্যের মাপকাঠি। তাঁদের পথে মতে চললে দুনিয়া-আখেরাতে আমরা কল্যাণ ও নাজাত পেতে পারি।
আলোচক অধ্যক্ষ আল্লামা আহমদ হোসাইন আল কাদেরী বলেন, আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) প্রতি ভালোবাসা অন্তরে ধারণ করতে পারলে তার জন্য দুনিয়া-আখেরাতে কোনো ভয়, দুশ্চিন্তা ও পেরেশানি নাই। শাহাদাতে কারবালা মাহফিলে যোগদানের মাধ্যমে আমরা ঈমান আক্বিদাকে শাণিত ও মজবুত করতে পারি।

শাহাদাতে কারবালা মাহফিল পরিচালনা পর্ষদের কর্মকর্তা ও সদস্যদের মধ্যে মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন সেক্রেটারি জেনারেল আলহাজ্ব সৈয়দ মুহাম্মদ আবদুল লতিফ, আলহাজ্ব মুহাম্মদ আনোয়ারুল হক, আলহাজ্ব খোরশেদুর রহমান, আলহাজ্ব আবদুল হাই মাসুম, ব্যাংকার হাফেজ মুহাম্মদ ছালামত উল্লাহ, আলহাজ্ব জাফর আহমদ সওদাগর, আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবুল মনসুর সিকদার, আলহাজ্ব দিলশাদ আহমেদ, অধ্যাপক কামাল উদ্দিন আহমদ, লেয়াকত আলী, আহমদ, আলহাজ্ব মাহবুবুল আলম, অধ্যাপক ওহীদুল আলম, এস এম সিরাজুদৌল্লা, মওলানা হাফেজ আহমদুল হক, মাওলানা জিয়াউল হক, হাজী আবুল কালাম, মুহাম্মদ রেজাউল করিম রেজু, এস. এম. শফি, মাওলানা আ. ন. ম আহমদ রেজা, ড. মাওলানা সরওয়ার আলম, মাওলানা শায়েস্তা খান, মুহাম্মদ সিরাজুল মোস্তফা, হাজী মনির আহমদ, হাজী কবির চৌধুরী, কাজী মুহাম্মদ ইউনুস, আ. ব. ম খোরশিদ আলম খান, আলহাজ্ব এ এম মঈন উদ্দীন চৌধুরী হালিম, আবদুল করিম সেলিম, কায়েস চৌধুরী, মাহফুজুর রহমান, সৈয়দ শরফুদ্দীন, তৌহিদুল কাদের, মাওলানা নুরন্নবী আল কাদেরী প্রমুখ। সালাত-সালাম শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন অধ্যক্ষ আল্লামা মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন আল কাদরী (ম.জি.আ)। হাজারো দ্বীনদার জনতা মাহফিলে অংশগ্রহণ করেন।

আগামীকাল ৬ মহররম মঙ্গলবার থেকে ১০ মহর্রম শনিবার পর্যন্ত ৫ দিন বড় প্রজেক্টরে মহিলাদের তকরির শোনার মসজিদ কমপ্লেক্সের নিচ তলায় আলাদা ব্যবস্থা থাকবে। ১০দিনব্যাপী এ মাহফিল চলবে ২৪ অক্টোবর শনিবার পর্যন্ত । প্রতিদিনের মাহফিলে সবাইকে অংশগ্রহণের জন্য জমিয়াতুল ফালাহ্ জাতীয় মসজিদের খতিব, শাহাদাতে কারবালা মাহফিল পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরস এর সদস্য অধ্যক্ষ আল্লামা মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন আলকাদেরী (মজিআ) অনুরোধ জানিয়েছেন।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মতামত