টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জনপ্রতিনিধি না হয়েও নিরবে সমাজ সেবা করছেন মিরসরাইয়ের জসীম

 এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি 

Mirsarai-Josim-Photoচট্টগ্রাম, ০৭ অক্টোবর (সিটিজি টাইমস): জনপ্রতিনিধি না হয়েও সমাজের উন্নয়ন ও অবহেলিত মানুষের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন সুলতান গিয়াস উদ্দিন জসীম। সমাজের দরিদ্র, অসহায় মানুষ ছুটে যান তার কাছে। তার কাছে গিয়ে কেউ কোনদিন খালি হাতে ফিরেনি। মিরসরাই উপজেলার সর্বজন পরিচিত এ মানুষটি ১৯৬১ সালে করেরহাট ইউনিয়নের পশ্চিম জোয়ার গ্রামের এক মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম তোফাজ্জল হোসেন ভূঁইয়া সরকারী চাকুরীজীবি ছিলেন। স্কুল জীবন থেকে রাজনীতির সাথে জড়িত এ মানুষটি প্রতিনিয়ত সমাজের অসহায়, অস্বচ্ছল, দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সমাজ সেবার পাশাপাশি তিনি রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছেন। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক বর্ষিয়ান নেতা সিএনসি জাফরের হাত ধরে তিনি আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে জড়িত হন। ১৯৯৬ সাল থেকে অধ্যবদি পর্যন্ত তিনি করেরহাট ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। রাজনীতির পাশাপাশি তিনি শিক্ষা, সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে রয়েছেন। পশ্চিম জোয়ার রশিদিয়া সরকারি প্রাথমিক সভাপতি, পশ্চিম জোয়ার নূরানী মাদ্রাসার সাবেক সভাপতি সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। পড়াশোনায় উচ্চ শিক্ষিত না হলেও শিক্ষার জন্য তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। নিজের ব্যক্তিগত অর্থায়নে প্রায় ৮ লাখ টাকা খরচ করে পশ্চিম জোয়ার রশিদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাইড ওয়াল বাউন্ডারী (সীমানা প্রাচীর) নির্মাণ করেছেন। কয়লা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অনুদান দিয়েছেন ৩০ হাজার টাকা। ইউনিয়নের বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক, মসজিদ, মন্দির, মক্তবের জন্য জন্য নিয়মিত অনুদান দিয়ে আসছেন। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য পশ্চিম জোয়ার জামে মসজিদ, পশ্চিম জোয়ার ঈদগাঁ, পশ্চিম জোয়ার নূরানী মাদ্রাসা ও এতিমখানা, দক্ষিণ অলিনগর নূরানী মাদ্রাসা, ফরেষ্ট অফিস জামে মসজিদ, ঘেড়ামারা জামে মসজিদ। এছাড়া তিনি ২ লাখ ৭৬ হাজার টাকা খরচ করে দক্ষিণ অলিনগরে কালভার্ট নির্মান করেছেন। পশ্চিম অলিনগর বক্সারঢালা সড়ক এক কিলোমিটারে সংস্কার, দক্ষিণ অলিনগর গাছ বিল্লাহ সড়ক সংস্কার সহ অসংখ্য রাস্তা ঘাট সংস্কার ও পুল কালভার্ট নির্মাম করেছেন। এছাড়া গরীবের মেয়ের বিয়ে, দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের সহযোগীতা, দরিদ্র মানুষের চিকিৎসার জন্য নিয়মিত সাহায্যে করে যাচ্ছেন। এছাড়া মিরসরাইয়ের সাংসদ গৃহায়ন ও গনপূর্তমন্ত্রীর অস্থাভাজন হওয়ায় করেরহাট ইউনিয়নে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেছেন। ইতমধ্যে সিঙ্গাপুর মালশিয়া সহ কয়েকটি দেশ ভ্রমন করেছেন।

করেরহাট এলকার শহীদ মিয়া, মোহাম্মদ ফারুক বলেন, জসীম ভাই সমাজের জন্য যা করে যাচ্ছেন তা কোন জনপ্রতিনিধিও করছেনা। কেউ কোনদিন তার কাছে গিয়ে খালি হাতে ফিরেনি। আরো বৃহৎ পরিসরে সমাজ সেবা করতে আগামীতে ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চান।

এ ব্যাপরে সুলতান গিয়াস উদ্দিন বলেন, আমার ক্ষুদ্র সম্পদ থেকে সমাজ ও অসহায় মানুষের জন্য কাজ করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। আমি যতদিন বেঁচে থাকবো অসহায় মানুষের জন্য কাজ করে যাবো। আগামীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়াম্যান প্রার্থীতার বিষয়ে তিনি বলেন, নির্বাচন করতে আমি খুব একটা আগ্রহী নয়। তারপরও জনগন যদি চায় তাহলে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারি। ব্যক্তিগত জীবনে তার স্ত্রী ও ৩ মেয়ে রয়েছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত