টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে ক্ষমতাসীন দলের অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার বাড়ছে

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই  প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ১৮ সেপ্টেম্বর (সিটিজি টাইমস): : চট্টগ্রামের মিরসরাই এবং জোরারগঞ্জ থানা এলাকা ক্রমেই সন্ত্রাসের জনপদে পরিণত হচ্ছে। একের পর এক খুন, ছিনতাই, ডাকাতি আর হানাহানির ঘটনায় জনমনে আতঙ্ক উৎকণ্ঠার জন্ম দিয়েছে। দুই থানার ১৬ ইউনিয়ন ও দুইটি পৌরসভা এলাকায় চলতি বছর অন্তত ১৫টি ঘটনায় প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের ঘটনা ঘটলেও এ পর্যন্ত অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনা তুলনামূলক কম।

থানা পুলিশ এবং স্থানীয় সূত্রে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, গত ৮ জানুয়ারি মিরসরাই সদরে স্থানীয় কলেজ ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাধলে সেখানে প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন করা হয়। একই বছর মিঠাছরা বাজার এলাকায় ছাত্রলীগ-যুবলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অস্ত্র ব্যবহার ছিল চোখে পড়ার মতো।

২২ জানুয়ারি নিজামপুর কলেজ এবং কমলদহ বাজারে ছাত্রলীগ-শিবির সংঘর্ষ চলার সময়ে একাধিক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। ২৮ জানুয়ারি নিজামপুর কলেজ এলাকায় একটি পিস্তলের গুলিতে গুলিবিদ্ধ হয় এক স্কুলছাত্র। ২ ফেব্রুয়ারী হাতইতকান্দি ইউনিয়নের জগদীশপুর গ্রামে ফাঁকা গুলি ছুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে আগুনে পুড়িয়ে মারা হয় যুবলীগ নেতা মহিউদ্দিনকে।

১২ ফেব্রুয়ারি উপজেলার ডাকঘর এলাকায় সিপি বাংলাদেশ হ্যাচারি ব্যবসাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ-যুবলীগের দুইপক্ষের সংঘর্ষে প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার চোখে পড়ে। সে ঘটনায় এক সিএনজি অটোরিকশা চালক গুলিবিদ্ধ হয়। ১৮ মার্চ উপজেলার বারইয়ারহাট বাজারে যুবলীগ-ছাত্রলীগের একটি গ্রুপ প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে যুবলীগ নেতা সেতু মিলনের ওপর চড়াও হয়। সে সময় মিলন গুরুতর আহত হন।

একই দিন দিবাগত রাতে পুলিশের হাতে গুলিবিদ্ধ হয় বারইয়ারহাট কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী মো. আশরাফুল। ৩০ মে উপজেলার সদর ইউনিয়নের ঘড়িয়াইশ গ্রামের (মহামায়া এলাকা) পাহাড়ে সন্ত্রাসীদের কোপে নিহত হন প্রবাসী ফখরুল ইসলাম। বাড়ি থেকে অপহরণের পর করেরহাটের গহীন পাহাড়ে নিয়ে মেলে স্কুলছাত্র ফারহান সাকিবের লাশ। সে ঘটনায়ও চলে অস্ত্রের ব্যবহার।

একই মাসে উপজেলার জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের বিএসআরএম গেট এলাকায় ব্যবসায়ী আধিপত্যকে কেন্দ্র একাধিকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সেখানে অহরহ প্রকাশ্যে অস্ত্রের ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। গত ৩০ আগস্ট মিঠাছরা বাজারে এলোপাথাড়ি গুলি করে পেট্রোল পাম্প ব্যবসায়ীর ১৪ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয় ব্যবসায়ী এমরান উদ্দিন, ম্যানেজার জাহাঙ্গীর আলম, গাড়ির চালক বরুণ চক্রবর্তী। আহত এমরান উদ্দিনের দেয়া তথ্য মতে সেখানে বেশ কয়েকটি আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে ছিনতাইকারীরা।

সবশেষ গত ৬ সেপ্টেম্বর উপজেলার মিঠানালা ইউনিয়নের মলিয়াইশ গ্রামে ছিনতাইকালে গুলি করে এবং কুপিয়ে খুন করা হয় ব্যবসায়ী মেজবাহ উদ্দিনকে। এছাড়া বিভিন্ন সময় ব্যাংক গ্রাহকদের অস্ত্র ঠেকিয়ে ছিনতাই করা হয়। বিভিন্ন ঘটনায় প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে ক্ষমতাসীন দলের তথা যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

৩০ আগস্টের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ ব্যবসায়ী এমরান উদ্দিন বলেন, “মিঠাছরা এলাকায় প্রায় সময় অস্ত্রের ব্যবহার হয়। সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে ঘোরে। আমাকে গুলি করা হয় আধুনিক অস্ত্র দিয়ে। এখনো অস্ত্রগুলো উদ্ধার না হওয়ায় আমি নিজেও শঙ্কায় রয়েছি।”

এদিকে অস্ত্র উদ্ধার প্রসঙ্গে মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ থানার জ্যেষ্ঠ উপ-পরিদর্শক (এসআই) বিপুল চন্দ্র জানান, “চলতি বছর বেশ কিছু অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে। জেনারেল হাসপাতাল ভাঙচুর ঘটনায় একটি এলজি, দেশীয় ছুরি, রাম দা উদ্ধার করা হয়েছে। করেরহাটের অলিনগর থেকে তারেক নামের এক সন্ত্রাসীকে একটি এলজি ও তিন রাউন্ড কার্তুজসহ গ্রেফতার করা হয়।”

পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, “গত চার মাস আগে দুইটি দেশীয় তৈরি এলজি ও ডাকাতির সরঞ্জামসহ ডাকাতদলের কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়। সর্বশেষ গত ৮ সেপ্টেম্বর দুর্র্ধষ ডাকাত আমিনকে একটি এলজি ও তিন রাউন্ড কার্তুজসহ গ্রেফতার করা হয়।”

একই প্রসঙ্গে মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ এমএকে ভূঁইয়া জানান, “চলতি বছর আমরা বেশ কিছু অস্ত্র উদ্ধারে সক্ষম হয়েছি। তার মধ্যে কাটাছড়ার যুবলীগ নেতা রিমু এবং কমলদহ এলাকার যুবলীগ নেতা ছোট রণিকে বিদেশি পিস্তল গ্রেফতার করা হয়।”

মিরসরাইয়ের বর্তমান আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি, আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার এবং পুলিশের উদ্ধার অভিযান প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের উপ-সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি, সীতাকুন্ড সার্কেল) সালাউদ্দিন সিকদার জানান, “চলতি বছর অস্ত্র উদ্ধারে বেশ কিছু অভিযান পরিচালিত হয়েছে। মিরসরাই এবং জোরারগঞ্জ থানায় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক দেশিবিদেশি অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে। এখনো অভিযান চলছে। আশা করছি সম্প্রতি সংঘটিত ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্রও উদ্ধার করা হবে।”

মতামত