টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিয়ানমার কারাগারে সাজা শেষে ১৬ বাংলাদেশিকে ফেরত

আমান উল্লাহ আমান
টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ১৭ সেপ্টেম্বর (সিটিজি টাইমস):  বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ভোগ শেষে ১৬ বাংলাদেশি নাগরিককে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) কাছে হস্তান্তর করেছে মিয়ানমারের অভিবাসন বিভাগ। বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ টায় মংডু শহরে অনুষ্ঠিত বিজিবি ও মিয়ানমার অভিবাসন বিভাগের ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে পতাকা বৈঠক শেষে তাদের বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়।

টেকনাফের বিজিবি ৪২ ব্যাটালিয়নের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর মোঃ আবদুল হান্নান খান জানান, ১৬ জনের মধ্যে বিভিন্ন মেয়াদের সাজাভোগ প্রাপ্ত মালয়েশিয়াগামী ও মাছ শিকারত জেলে রয়েছে।

ফেরত আনা বাংলাদেশিরা হলেন, কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানার উনছিপ্রাং গ্রামের আবদুর রহমানের ছেলে আলী আহমেদ, সৈয়দুল হকের ছেলে নুর কবির, সারমোল্লার ছেলে বাশাত করিম, লম্বাবিলের জানে আলমের ছেলে আমির হোসেন, শাহপরীরদ্বীপ পশ্চিম পাড়ার রশিদ ইসলামের ছেলে সৈয়দ উল্লাহ, এরশাদ উল্লাহ, জালিয়া পাড়ার সৈয়দ হোসেনে ছেলে মোঃ আবদুল্লাহ, জামাল উদ্দিনের ছেলে নুরুল ইসলাম, রশিদ উল্লাহর ছেলে সৈয়দ উল্লাহ, গোদারবিল গ্রামের সৈয়দ আলমের ছেলে মোঃ আয়াজ, রুহুল্লাডেবার আলতাফ হোসেনের ছেলে জাগির হোসেন, সাবরাং নয়াপাড়া গ্রামের লাল মোহাম্মদের ছেলে জাগির হোসেন, দক্ষিন পাড়া গ্রামের মমতাজ মিয়ার ছেলে হাসিম উল্লাহ মিয়া, উখিয়া থানার সোনা পাড়া গ্রামের মোঃ নুরুল আলম, পূর্ব মরিচ্যার মৃত গোলাম নবীর ছেলে এনায়েত উল্লাহ ও চকরিয়া থানার আকিয়ামনি গ্রামের দেলোয়ার হোসেনে ছেলে মায়ার খান প্রকাশ মিরহান।

ফেরত আসা হাশিম উল্লাহ জানান, তারা ২ জন একটি নৌকা নিয়ে বাংলাদেশী সীমানায় মাছ শিকার করছিলেন। এসময় তৎকালীন নাসাকা বাহিনী অবৈধভাবে বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে তাদের ধরে নিয়ে যায়। পরে তাদের ৫ বছরের সাজা প্রদান করা হয়।

এরশাদ উল্লাহ জানান, ট্রলার করে বঙ্গোপসাগরে ৯ জন মাঝি-মাল্লা নিয়ে মাছ শিকার কালে মিয়ানমারের নৌ-বাহিনী তাদের আটক করে। পরে তাদের সাড়ে ৩ বছর করে সাজা প্রদান করে মিয়ানমারের আদালত। সাজাভোগ শেষে ৮ জন ফিরে আসলেও একজন এখনও আসতে পারেনি বলে জানান তিনি।

মিয়ানমারের কারাগারে বন্দি আরো বাংলাদেশি রয়েছেন জানিয়ে বিজিবি কর্মকর্তা বলেন, ‘তাঁদেরকে পর্যায়ক্রমে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া চলছে।’ তম্মধ্যে কুরবান ঈদের আগে ফিরিয়া আনার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় টেকনাফ ৪২ ব্যাটালিয়নের উপপরিচালক মোঃ আজহারুল আলমের নেতৃত্বে ১৭ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল মিয়ানমারের মংডুতে পৌঁছেন। সেখানে মিয়ানমারের মংডুর ১নং পয়েন্ট অব এন্ট্রি এন্ড এক্সিট এলাকায় মংডুস্থ অভিবাসন বিভাগের অফিসার ইউ মিউ মাইং অং এর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের প্রতিনিধিদলের মধ্যে দেড় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে মিয়ানমারের অভিবাসন বিভাগ ১৬ জন বাংলাদেশি নাগরিককে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করে।

পরে দুপুর ১২ টায় প্রতিনিধি দল ১৬ জন সাজা ভোগকারী বাংলাদেশীদের নিয়ে টেকনাফ পৌঁছলে টেকনাফ সদর বিওপিতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। এসময় জেলা প্রশাসকের পক্ষে সহকারী কমিশনার (ভ’মি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা মোস্তফা, টেকনাফ থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ কবির হোসেনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ফেরত আসা বাংলাদেশি নাগরিকদের পরিবারের কাছে হস্তান্তরের জন্য বিজিবি টেকনাফ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর মোঃ আবদুল হান্নান খান।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত