টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষকদের পূর্ণদিবস কর্মবিরতি চলছে

eduচট্টগ্রাম, ১৭ সেপ্টেম্বর (সিটিজি টাইমস):  পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দাবি ও অবমাননার বিষয়টি বিবেচনায় না নিয়ে অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামো মন্ত্রিসভায় অনুমোদন করার প্রতিবাদ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেলসহ ৪ দফা দাবিতে দেশের ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে শিক্ষকদের পূর্ণদিবস কর্মবিরতি। তবে পূর্ব নির্ধারিত পরীক্ষাগুলো রুটিন অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এ কর্মবিরতি চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। এসময় শিক্ষকরা স্ব স্ব ক্যাম্পাসে সকাল ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচিও পালন করবেন। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনে ডাকে এ কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সূত্রে জানা গেছে সকাল ৮টা থেকেই চলছে দেশের ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কর্মবিরতি। এ কর্মবিরতির মধ্যে দুপুর ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত স্ব স্ব ক্যাম্পাসে তারা অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন। তবে পূর্ব নির্ধারিত পরীক্ষাগুলো রুটিন অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এদিকে, বেতন বৈষম্য দূরীকরণে মন্ত্রিসভা কমিটি পুনর্গঠনের পরও তাতে আপত্তি জানিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা। বুধবার জাতীয় বেতন স্কেল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অনিষ্পন্ন বিষয়গুলো পর্যালোচনায় বেতন বৈষম্য দূর করা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি পুনর্গঠন করেছে সরকার।

শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল বলেন, আমরা আমাদের পূর্ব ঘোষিত দাবি প্রেক্ষিতে আন্দোলন করছি। আমাদের দাবি ছিল অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামো পুন:নির্ধারণ এবং একটি স্বতন্ত্র বেতন স্কেল নির্ধারণসহ ৪ দফা দাবি। কিন্তু সরকার সে দাবি মেনে না নিয়ে অর্থমন্ত্রীকে আহ্বায়ক করে বেতন বৈষম্য দূর করা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি পুনর্গঠন করেছে। তাতে আমাদের আপত্তি রয়েছে। যেহেতু অর্থমন্ত্রীর কাছে আগে আমরা সুবিচার পায়নি, আগামীতেও তা পাব না। তবে এ কমিটিতে সরকারের বেশকিছু সিনিয়র মন্ত্রী রয়েছে যারা শিক্ষাবান্ধব, এটা আমাদের আশার দিক। তাছাড়া, এ কমিটিতে বেশকিছু সরকারের আমলা রয়েছেন যারা অতীতে শিক্ষকদের নিয়ে বিষাদাগার করেছেন। তাই বেতন বৈষম্য কমিটিতেও আপত্তি রয়েছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত