টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জঙ্গি অর্থায়নে গ্রেপ্তার এনামুল ফের রিমান্ডে

চট্টগ্রাম, ১৪ সেপ্টেম্বর (সিটিজি টাইমস):  শহীদ হামজা ব্রিগেড নামে চট্টগ্রামকেন্দ্রিক একটি জঙ্গি সংগঠনকে অর্থ জোগান দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার পোশাক ব্যবসায়ী এনামুল হকের ফের দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

রিমান্ড শেষে সোমবার দুপুরে তাকে চট্টগ্রামের বাঁশখালী আদালতে হাজির করে ফের পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে র‌্যাব। শুনানি শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ৬ সেপ্টেম্বর এনামুলকে আদালতে হাজির করে র‌্যাব-৭ রিমান্ড চাইলে আদালত পাঁচ দিন মঞ্জুর করে।

ব্যবসায়ী এনামুলকে ৫ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানী ঢাকার তুরাগ থানার তালতলা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। রাতেই তাকে চট্টগ্রাম নেওয়া হয়। পরের দিন সকালে এনামুলকে নগরের পতেঙ্গা এলাকায় র‌্যাব-৭-এর কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সামনে হাজির করা হয়।

এ সময় র‌্যাবের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের জানানো হয়, ২০১৪ সালের ১১ আগস্ট এনামুল ঢাকার উত্তরার ইসলামী ব্যাংকের একটি শাখা থেকে চট্টগ্রামের ওআর নিজাম রোড ইসলামী ব্যাংকের একটি শাখায় ১৬ লাখ টাকা জমা দেন।

সানজিদা এন্টারপ্রাইজ নামে একটি হিসাব নম্বরে ওই টাকাগুলো জমা দেওয়া হয়। ওই হিসাব নম্বরটি র্যাইবের হাতে গ্রেপ্তার শহীদ হামজা ব্রিগেডের সদস্য মনিরুজ্জামান ওরফে ডনের হিসাব নম্বর। এ তথ্য নিশ্চিত হওয়ার পর র্যাশব গতকাল রাতে এনামুলকে গ্রেপ্তার করে।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের অধিনায়ক লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, এনামুলকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানতে পেরেছেন, মনিরুজ্জামানের হিসাব নম্বরে টাকা জমা দেওয়ার চার-পাঁচ দিন আগে তিন ব্যক্তি পোশাক সরবরাহের জন্য এনামুলকে নগদ ১৬ লাখ টাকা দেন।

পরে তারা অর্ডারটি বাতিল করে দিয়ে টাকাগুলো সানজিদা এন্টারপ্রাইজের হিসাব নম্বরে জমা দেওয়ার জন্য বলেন।

এনামুল হক যশোর কোতোয়ালি থানার জয়ন্তা এলাকার মতিয়ার রহমানের ছেলে। তাকে চট্টগ্রামের বাঁশখালী থানার সন্ত্রাসবিরোধী আইনের একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

এর আগে গত ১৮ আগস্ট রাতে ধানমন্ডি থেকে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাসহ তিন আইনজীবীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। অন্য দুজন আইনজীবী হলেন- হাসানুজ্জামান চৌধুরী লিটন ও মাহফুজ চৌধুরী বাপন।

জঙ্গি সংগঠনে এক কোটি ৮ লাখ টাকা দেওয়ার অভিযোগে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এই তিন আইনজীবীকে পরে রিমান্ডেও নেওয়া হয়েছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত