টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ভ্যাট দেবে কর্তৃপক্ষ, শিক্ষার্থীরা নয়

চট্টগ্রাম, ১০ সেপ্টেম্বর  (সিটিজি টাইমস) :   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের টিউশন ফি’র ওপর যে ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে এটা পরিশোধ করবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এটা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হবে না।

বৃহস্পতিবার রাতে দশম জাতীয় সংসদের সপ্তম অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে টিউশন ফির ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যেই বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ঘোষণা দেয় এই ভ্যাট বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে পরিশোধ করতে হবে। কোনোক্রমেই শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে তা নেয়া হবে না। পরে বিকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতও একই কথা বলেন। মন্ত্রী জানান, এ কারণে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষা্র্থীদের টিউশন ফি বাড়াতে পারবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও একই কথা বললেন।

প্রধানমন্ত্রী তার সমাপনী ভাষণে যারা সংসদে বিরোধ দল নেই বলে সমালোচনা করেন তাদের সমালোচনা করে বলেন, তারা সংসদকে গঠনমূলক দেখতে চায় না।

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর মাত্র আট কার্যদিবসের দশম জাতীয় সংসদের সপ্তম অধিবেশন সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। গত ১ সেপ্টেম্বর এই অধিবেশন শুরু হয়।

অধিবেশনের সমাপনী দিনে মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইআরআই’র জরিপে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রতি জনসমর্থন বাড়ায় সংসদে ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনা শেষে প্রস্তাবটি গৃহীত হয়।

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শেষে অধিবেশন সমাপ্তিসংক্রান্ত রাষ্ট্রপতির ঘোষণা পাঠ করে জাতীয় সংসদের স্বল্পকালীন এ অধিবেশনটির সমাপ্তি ঘোষণা করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

দশম সংসদের দ্বিতীয় বছরের তৃতীয় এ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩৬টি প্রশ্নের উত্তর দেন। অবশ্য এই অধিবেশনে মাত্র দুই কার্যদিবস প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তরের জন্য নির্ধারিত ছিল। প্রশ্ন জমা হয়েছিল ৪১টি। বাকি ৫টি উত্তর টেবিলে উত্থাপিত হিসেবে বিবেচিত হয়।

এছাড়া বিভিন্ন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত দুই হাজার ২২৩টি প্রশ্নের মধ্যে ৮৮৭টি প্রশ্নের জবাব দেন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীরা। বাকিগুলো পঠিত হিসেবে গণ্য হয়।

চলতি অধিবেশনে মোট ১২টি বিল উত্থাপিত হয়। এরমধ্যে ৬টি বিল পাস হয়েছে। এছাড়া এ অধিবেশনে কার্যপ্রণালী বিধির ৭১ বিধিতে ৩৬৫টি নোটিশ পাওয়া যায়। এর মধ্যে ১২টি নোটিশ গৃহীত হয়েছে, ৭১ (ক) বিধিতে আলোচিত ৯০টি নোটিশের ওপর দুই মিনিটের আলোচনা করেছেন নোটিশ প্রদানকারী এমপিরা।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত