টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে ব্যবসায়ীকে গুলি করে কুপিয়ে হত্যা

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই  প্রতিনিধি 

Mirsarai-Muder-Photoচট্টগ্রাম,৬ সেপ্টেম্বর  (সিটিজি টাইমস) :মিরসরাইয়ে সন্ত্রাসীরা গুলি করে ও কুপিয়ে মেজবাহ উদ্দিন ভূঁঞা (৩২) নামে এক ব্যবসায়ীকে হত্যা করেছে। গত শনিবার (৫সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলার মিঠানালা ইউনিয়নের মধ্যম মলিয়াইশ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

 রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) ভোরে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) মর্গে পাঠায়। নিহত মেজবাহ উদ্দিন মধ্যম মলিয়াইশ গ্রামের আজিজ উল্যা ভূঁঞা বাড়ির মৃত জামাল উল্লাহ ভূঁঞার ছোট ছেলে। পুলিশের এএসপি (সার্কেল) সীতাকুন্ড সালাউদ্দিন শিকদার ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন।

নিহতের ভাই মো.নুর নবী জানান, উপজেলার সাধুর বাজারের টেক্সি ষ্ট্যান্ডে মেজবা উদ্দিনের মুদি ও বিকাশের দোকান রয়েছে। প্রতিদিনের মতো শনিবার রাতে দোকান থেকে রাত ১১টায় বাড়িতে আসতে রওনা দেয়। কিন্তু তার ব্যবহৃত মোবাইলে কল না যাওয়ায় ও রাত ২টা পর্যন্ত বাড়িতে না আসায় আমরা তাকে খুঁজতে বের হয়। এরপর গ্রামের সড়কে বাড়ি থেকে একটু দূরে সড়কের উপর মেজবার লাশ পড়ে থাকতে দেখি। তার বুকে গুলির চি‎হ্ন ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। তার সাথে থাকা প্রতিষ্ঠানের টাকা ও মোবাইলও সন্ত্রাসীরা নিয়ে গেছে। তারা ৬ ভাই ১ বোনের মধ্যে মেজবা উদ্দিন সবার ছোট। তার ফাবিয়া সাবাহ মেহেরুন নামে দুই বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। নিহতে স্ত্রী ফাতেমা কানিজ সিমা অভিযোগ করেন, গত কিছুদিন আগে গ্রামের সড়ক প্রশস্ত করার নিয়ে ওহিদ নামে একজনের সাথে তার স্বামীর বিরোধ সৃষ্টি হয়। এরপর থেকে যে কোন সময় তার উপর হামলার আশংকা করত তার স্বামী। ওহিদের সাথে তার ভাসুর মো.নবীর কেবল নেটওয়ার্কের ব্যবসা নিয়েও বিরোধ চলে আসছে। এছাড়া আর কারো সাথে তাদের শত্রুতা নেই বলে দাবি করেন। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, নিহতের লাশ দাফনের পর পারিবারিক ভাবে আলোচনা করে মামলার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ‎

এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, সাধুর বাজার থেকে এক কিলোমিটার দূরে মধ্যম মলিয়াইশ গ্রামের কাঁচা সড়কের উপর রক্তের দাগ লেগে আছে। বাড়ির জন্য নেয়া মেজবা উদ্দিনের আতপ চাল সড়কের উপর ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। ওই জায়গাটি পুলিশ চি‎িহ্নত করে ঘেরা দিয়ে রেখেছেন। মেজবার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, তার মেয়ে আড়াই বছরের ছোট্ট মেহেরুন সবার দিকে তাকিয়ে আছে। সে বুঝতে পারছেনা তাদের বাড়িতে এতো মানুষের ভিড় কেন। ছেলে হারানোর ব্যাথা কিছুতেই ভুলতে পারছেনা মেজবার মা। শুধু বিলাপ করছে আমার সন্তানকে কেন মারলো তারা। প্রয়োজনে টাকা-পয়সা নিয়ে যেত। তারপরও আমার ছেলেকে তারা ছেড়ে দিতো। স্বামী হারানোর শোকে অনেকটা বাকরূদ্ধ স্ত্রী ফাতেমা কানিজ সিমা। সে ঘরের এক কোনে বসে রয়েছে। কারো সাথে কোন কথা বলছেনা।

মেজবার আত্মীয় (মেজবার স্ত্রীর বড় ভাই) শওকত আকবর সোহাগ বলেন, এভাবে অকালে সন্ত্রাসীদের হাতে খুন হবে বিশ্বাস হচ্ছেনা। এখন আমার বোন ও আড়াই বছরের ভাগনির কি হবে বুঝতে পারছিনা।

মিঠানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের ভূঁইয়া বলেন, মেজবা পরোপকারী। অন্যের বিপদে ঝাঁপিয়ে পড়ে। কিন্তু এমন একটি ছেলেকে সন্ত্রাসীরা কেন খুন করলো বুঝতে পারছিনা। তিনি প্রশাসনের কাছে হত্যাকারীদের চিহিৃত করে শাস্তির জোর দাবী জানান।

মিরসরাই থানা পুলিশের উপ-পরির্দশক মো. শফিকুর রহমান ঘটনাস্থলে জানান, হত্যাকান্ডে ধরণ দেখে ধারণা করা হচ্ছে এটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। তারা হত্যাকান্ডে রহস্য উদঘাটনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ এমকে ভূঁইয়া বলেন, হত্যাকান্ডের ঘটনার থানায় এখনও কোন মামলা দায়ের হয়নি। তবে পুলিশ এঘটনার রহস্য উদঘাটন ও জড়িতদের সনাক্ত করে গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত