টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বন্দর ধ্বংস করতে ‘মাফিয়া চক্র’ সক্রিয়: মহিউদ্দিন

albdচট্টগ্রাম, ৩১ আগস্ট (সিটিজি টাইমস) ::  চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, চট্টগ্রাম নিয়ে আন্তর্জাতিক মাফিয়াচক্রের ষড়যন্ত্রে এখন যুক্ত হয়েছে গভীর সমুদ্রবন্দর ও এশিয়ান হাইওয়ে। আশা করি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি হিসেবে এ দু’টি প্রকল্প প্রস্তাবিত এলাকায় বাস্তবায়িত হবে।

সোমবার নগরীর চশমাহিলে নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সব কথা বলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম, নগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হক এটলী, নগর আওয়ামী লীগের শ্রম সম্পাদক আব্দুল আহাদ ও উপ-দফতর সম্পাদক ও কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী, নগর যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা প্রমুখ।

তিনি বলেন, প্রকৃতির আশীর্বাদ চট্টগ্রাম বন্দরকে ঘিরে আন্তর্জাতিক মাফিয়া সিন্ডিকেটের ষড়যন্ত্রের কথা নতুন কোনো বিষয় নয়। শুধুমাত্র নতুন বিষয় হচ্ছে মহেশখালীর সোনাদিয়া থেকে রংপুরের পায়রাবন্দ এবং এশিয়ান হাইওয়ে চট্টগ্রাম থেকে সিলেটে নিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়ার বিষয়। আর তা যদি হয় চট্টগ্রামের সঙ্গে এ হবে এক জঘন্য প্রতারণা। চট্টগ্রামবিদ্বেষী মহলের অনাকাঙ্ক্ষিত অনীহা, বঞ্চনা ও উপেক্ষার সুস্পষ্ট বহিঃপ্রকাশ। চট্টগ্রামবাসীকে এর তীব্র প্রতিবাদে জেগে উঠতে হবে।

তিনি বলেন, মহেশখালীর সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ ছিল প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী অঙ্গীকার। আর এ প্রতিশ্রুতি অবিলম্বে বাস্তবায়নের দাবি চট্টগ্রামবাসীর। এরই মধ্যে বড় অঙ্কের টাকা খরচ করে সম্ভাব্যতা জরিপ চালিয়ে এর অনুকূলে সবুজ সংকেতও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু হঠাৎ করে গভীর সমুদ্রবন্দর সোনাদিয়ার পরিবর্তে পায়রাবন্দে সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। যে চট্টগ্রাম বন্দর অর্থনীতির ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ যোগান দেয় সেটাকে দুর্বল করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী গভীর সমুদ্রবন্দর মহেশখালীর সোনাদিয়ায় স্থাপন এবং চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে এশিয়ান হাইওয়ের লিংক রোড নির্মাণের দাবি জানাই।

তিনি আরও বলেন, নৌপথে চট্টগ্রাম বন্দর হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার প্রবেশদ্বার। এ কারণে প্রস্তাবিত এশিয়ান হাইওয়ে চট্টগ্রামের উপর দিয়ে চীন পর্যন্ত যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। ফলে চট্টগ্রাম বন্দরকে ট্রানজিট বন্দরে রূপান্তর করে ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় সাতটি রাজ্য এবং মিয়ানমার, থাইল্যান্ড ও চীনের কুনমিং পর্যন্ত সড়কপথে পণ্য পরিবহন করা সহজ হতো।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত