টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৪

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই  প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ১৮ আগস্ট (সিটিজি টাইমস) :মিরসরাইয়ে বিরোধপূর্ণ জায়াগা আদালতের নির্দেশে সরেজমিনে তদন্তের সময় প্রতিপক্ষের হামলায় চার জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৮ আগষ্ট) দুপুরে উপজেলার ওচমানপুর ইউনিয়নের বাঁশখালী গ্রামে এই হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় আহতরা হলো আবুল কালাম আজাদ (৫০), জাহাঙ্গীর মো. নুর উদ্দিন (৪০), নাজমুছাপা (৪৬), কামরুচ্ছাবাহ (৩৮)। আহতরা উপজেলা প্রাথমিক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মস্তাননগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এই ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

আহত কামরুচ্ছাবাহ জানান, ওসমানপুর ইউনিয়নের বাঁশখালী গ্রামে ৩০ বছর পূর্বে তার পিতা ডাঃ হাবিবুর রহমান বসত ঘর নির্মান করেন। ওই ঘরেই পরিবার পরিজন নিয়ে তারা বসবাস করছেন। কিন্তু গত বছরের ১৪ এপ্রিল প্রতিবেশি আবু ছালেক, নয়ন, সাইফুল, মোশারফ, রিয়াদ, মিঠুন, মিল্টন ঘর ভাংচুর করে। এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকী দেয় তারা। পরবর্তীতে তারা একই বছরের ১৫ জুন পুনরায় আমাদের ঘর ভাংচুর করে এবং আমার মায়ের উপর হামলা চালায় প্রতিপক্ষরা। এসব ঘটনায় গত বছরের ২৩ জুন জোরারগঞ্জ থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়। এরপর তিনটি বৈঠক হয় সমাধানের জন্য। কিন্তু কোন সমাধান না হওয়ায় এবং সন্ত্রাসী হামলা বেড়ে যাওয়ায় আমি গত বছরের ১ জুলাই পুনরায় জোরারগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ৬ জুলাই আমার ছোট ভাই জাহাঙ্গীরকে মারধর করে। এর পর ওই সন্ত্রাসী দল আমার ভাই জাহাঙ্গীর আলম ভুট্টো, মিলন ও রুমনকে মিথ্যে অভিযোগ সাজিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এছাড়াও গত ১১ মে আমার বৃদ্ধা মা আলমেরা বেগম, ভাইয়ের স্ত্রী শিরিনা আক্তারকে মারধর করে। এই ঘটনায় জোরারগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করলেও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি। প্রতিপক্ষরা আমাদের ৩০ বছরের বসত ঘরকে তাদের গুদাম ঘর বলে দাবী করছে। গত ৭ আগষ্ট তারা দলবল বেঁধে আমাদের ঘর দখল করতে যায়। ওই সময় জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে তারা পালিয়ে যায়। সর্বশেষ মঙ্গলবার সকালে আদালতের নির্দেশে উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মহিউদ্দিন জায়গাটি তদন্ত করতে যায়। জায়গার বিরোধ নিয়ে তদন্তের সময় সার্ভেয়ার উভয়পক্ষকে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকার জন্য বলেন। জায়গা পরিমাপের এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষের লোকজন সন্ত্রাসী ভাড়া করে আমাদের এলোপাতাড়ি কোপাতেও মারতে থাকে। এক পর্যায়ে সার্ভেয়ার মহিউদ্দিন বাড়ির পাশে অবস্থিত মসজিদের ভেতরে আমাদের পাঠিয়ে রক্ষা করেন। এই ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান তিনি।

এবিষয়ে জোরারগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বিপুল দেবনাথ বলেন, হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। মামলা পরবর্তীতে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে ।

উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মহিউদ্দিন হামলার ঘটনা সত্যতা স্বীকার করেন।

মতামত