টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বন্ধুর আড়ালে বিপজ্জনক কেউ? চিনুন ও এড়িয়ে চলুন!

মানুষের জীবনে বন্ধুর প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। কিন্তু এই বন্ধুই অনেক সময় হয়ে উঠতে পারে আপনার জন্য বিপজ্জনক। আবার অনেকেই আছেন, যারা পবিত্র বন্ধুত্বের আশ্রয় নিয়ে আড়ালে জীবন বিষিয়ে তোলার কাজই বেশি করেন। তাই প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পর বন্ধু নির্বাচনে বেশ সচেতন থাকা জরুরি।

জেনে নিন বন্ধুত্বের তালিকায় থাকা কোন ধরনের মানুষগুলো আপনার জীবনে বিপদ ডেকে আনতে পারেন-

১. আবেগের ছড়াছড়িতে জটিল জীবন

বিশেষজ্ঞদের মতে- যেসব ব্যক্তি ক্রমাগত আবেগময় কথাবার্তা বলে অন্যদের অস্থির করে তোলেন, তারা একের পর এক সহজ বিষয়কে জটিল করে তুলতে থাকেন। এদের মধ্যে ভুল পরামর্শ দেয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়।

তাই সচেতন হোন এবং নিজেই বুঝুন যে কার বা কাদের কথায় বা পরামর্শে ক্রমেই জীবন অধঃপাতে যাচ্ছে। তারপর তাদের সঙ্গ ত্যাগ করুন।

২. প্রতিশ্রুতি ভঙ্গকারী
প্রকৃত বন্ধু তিনিই, যাকে বিশ্বাস করা যায়। বিশ্বাস রক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে- কথা আর কাজের সামঞ্জস্যতা। যিনি আপনার কথা তুড়ি মেরে উড়িয়ে দেন এবং একইসাথে অনবরত দিতে থাকেন মিখ্যা প্রতিশ্রুতি- অর্থাৎ কথা দিয়ে তা রাখেন না, তিনি মোটেই বিশ্বাসযোগ্য নন। বিপজ্জনক বন্ধুরা সব সময় প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করবে এবং এতে আপনার আত্মসম্মানের ক্ষতি হবে। তাই এদের ত্যাগ করুণ।

৩. গুজব সৃষ্টিকারী ও পরনিন্দাকারী
এমন অনেক বন্ধুই আমাদের বন্ধুতালিকায় থাকেন, যারা যারা অন্যকে নিয়ে নানারকম মিথ্যা কথা ছড়াতে এবং গুজব রটাতে ও পরনিন্দা করতে পছন্দ করেন। এদের নিয়মিত কাজ হলো একজনের বিরুদ্ধে অন্যজনের কান ভারী করা। যেই বন্ধু অন্যের বিরুদ্ধে আপনার কান ভারী করেন, জেনে রাখুন- তিনি আপনার নামেও অন্যের কাছে নিন্দা করবে এবং এটাই স্বাভাবিক। ফলে আপনার মর্যাদা যেন প্রশ্নবিদ্ধ না হয় এবং ভবিষ্যতে মানুষের সামনে আপনি উঁচু মাথা নিয়ে দাঁড়াতে পারেন, সেজন্য এ ধরনের বন্ধুদের সঙ্গ ছাড়ুন।

এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে বন্ধুত্বের মুখোশধারী মানুষগুলোকে চিনে নিলে খুব সহজেই বিপদজ্জনক মানুষকে এড়িয়ে চলা সম্ভব।

মতামত