টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

দুর্নীতির বেড়াজালে বন্দি সীতাকুণ্ডের আনসার ভিডিপির কার্যালয়

মো. ইমরান হোসেন
সীতাকুন্ড প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ১৬ আগস্ট (সিটিজি টাইমস) :  জনবল সংকটকে পূঁজি করে আনসার নিয়োগে ভূয়া ও জাল কাগজ তৈরীর অভিযোগ উঠেছে আনসার ভিডিপির কিছু দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। নিয়ম বহিভূতভাবে তাদের পরিচালিত এ কর্মকান্ডে ক্রমশই দূর্নীতির বেড়াজালে বন্দি হয়ে পড়েছে চট্টগ্রামের আত্ততাধীন সীতাকু-ের আনসার বিডিপির কার্যালয়। বাংলাদেশ সরকারের প্রতিরক্ষা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের অধীনে পরিচালিত এ বাহিনীর চাকুরী সহজলভ্য হওয়ায় এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অবৈধ অর্থ উপার্জনে মেতে উঠেছে প্রতিষ্ঠানের বেশকিছু উধ্বতন কর্মকর্তারা। এছাড়াও অর্থের বিনিময়ে এ চক্রটি রাষ্ট্রের গোপন তথ্য ফাঁস করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, সীতাকু- উপজেলার আনসার ভিডিপি অফিসার খুরশিদ আলম,পিসি দেলোয়ার ও পিসি আকবরের সাথে যোগশাযোশ করে জাল কাগজে অবৈধভাবে ৫০০ আনসার সদস্য নিয়োগ দেয়। পাশাপাশি এক জেলার আনসার সদস্য অন্য জেলায় বদলির মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ও উঠেছে এসব অসাধু গুটিকয়েক কর্তকর্তার বিরুদ্ধে। এককালিন ও মাসিক মাসোহারার শর্তে নিযোগকৃতদের চাকুরীর ব্যবস্থা করেন চট্টগ্রাম ও সীতাকু-ের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে। এছাড়াও অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ পাওয়া এসব আনসার সদস্যের অধিকাংশের গোপন সম্পর্ক রয়েছে জঙ্গিদের সাথে। তাদের মাধ্যমে গোপনীয় তথ্য ফাঁস হওয়ায় প্রশাসনের নজর থেকে সহজেই নিষ্কৃতি পেয়ে যাচ্ছে অপরাধীরা। পোশাকের আড়ালে তাদের এ গুপ্তচর বৃত্তিতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঝ’কিপূর্ণ হওয়ার পাশাপাশি আস্তার সংকট তৈরী হচ্ছে প্রশাসন ও রাজনৈতিক মহলে। আনসার বাহিনীর তথ্য ফাঁসের সাথে জড়িতদের বিষয়ে অবগত হয়ে অনুসন্ধানে নেমেছে গোয়েন্দা সংস্থা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, দুর্যোগ সংকটে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা পালনকারী এ সেচ্ছাসেবী বাহিনীর ১১ জন ভূয়া আনসার সদস্য চলতি বছরের আগস্টে সীতাকু-ে কবির স্টিল নামক একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত অবস্থায় ধরা পড়েন । বিষযটি জানাজানির পর রাতের আধাঁরে কর্মস্থল থেকে পালিয়ে যায় ভূয়া সার্টিফিকেটধারী আনসার সদস্যরা। এছাড়াও পিডিপি বাড়বকু- কার্যালয়ে ভূয়া সনদে ১০ জন আনসার সদস্য নিয়োগের বিষয়টি জানাজানি হলেও কতৃপক্ষের নিরব ভূমিকায় এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছেন তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আনসার ভিডিপির কয়েকজন সদস্য বলেন, সীতাকুণ্ড উপজেলাজুড়ে গড়ে উঠা সরকারী,বেসরকারী প্রতিষ্ঠান ও শিপব্রেকিং ইয়ার্ডে নিরাপত্তা রক্ষার্থে জনবল সংকটের কারনে এসকল প্রতিষ্ঠান নিজ অর্থায়নে আনসার ভিডিপির সদস্যদের নিয়োগের মাধ্যমে গ্রহন করছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা। কিন্তু উপজেলার লোকবল সংকটের এ পূঁজিকে অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করে পিসি আকবর,পিসি দেলোয়ারের নেতৃত্বে অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্য মেতে উঠেন সীতাকু- উপজেলার আনসার অফিসার খুরশিদ আলম।

এ বিষয়ে সীতাকুণ্ড উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা খোরশেদ আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,“অবৈধ নিয়োগের সাথে আমার কোন সম্পৃক্ততা নেই। সম্প্রতি কবির স্টিলে সনাক্ত অবৈধ আনসার সদস্যদের পালিয়ে যায়নি তারা সঠিক না হওয়ায় তাদের প্রত্যহার করা হয়েছে। বাড়বকু- পিডিপি কার্যালয়ে অবৈধভাবে কর্মরত আনসারের বিষয়টি তিনি অবগত নয় জানিয়ে বিষয়টি দেখবেন বলে জানান।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত