টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

দুদকের মামলায় ইজাহার শ্যোন অ্যারেস্ট

hefচট্টগ্রাম, ১২ আগস্ট (সিটিজি টাইমস) :  জ্ঞাত আয় বর্হিভূত সম্পত্তি অর্জনের দায়ে দুদকের মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এসময় মামলার অভিযোগ পত্র ইজহারকে পড়ে শুনান আদালত। এদিন মামলার দুই সাক্ষীকে জেরা করেছেন আসামি পক্ষের আইনজীবি।

বুুধবার চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মীর রুহুল আমীন এ আদেশ দেন। এরআগে ১০ আগস্ট বিস্ফোরক মামলায় জেলহাজতে থাকা মুফতি ইজহারকে দুদকের এ মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানোর আবেদন করেন দুদকের বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট মেজবাহ উদ্দিন।

বিশেষ জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আদালত শ্যোন অ্যারেস্টের আবেদন মঞ্জুর করেছেন। চার্জ শুনানির সময় ইজাহার উপস্থিত ছিলেন না। সেজন্য তাকে অভিযোগ পড়ে শোনানো হয়েছে। দু’জনের সাক্ষ্যগ্রহণ হয়েছে।

জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদের অভিযোগ থাকায় বিবরণী জমা দিতে মুফতি ইজাহারকে ২০১৩ সালের ৪ জুলাই নোটিস ইস্যু করা হয়। কিন্তু তিনি নোটিস গ্রহণ না করায় ৭ জুলাই দুদকের কর্মকর্তারা লালখান বাজারে ইজাহারের প্রতিষ্ঠিত জামেয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদ্রাসায় সেটি টাঙিয়ে দেন। দুদকের নোটিসের জবাব না দেয়ায় একই বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর নগরীর খুলশী থানায় দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪ এর ২৬ (২) ধারায় মামলা করেন দুদক চট্টগ্রামের উপ-সহকারী পরিচালক সিরাজুল হক।

২০১৩ সালের ৭ অক্টোবর সকাল ১১টার দিকে নগরীর লালখান বাজারে মুফতি ইজাহারুল ইসলাম পরিচালিত জামেয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদ্রাসার ছাত্রাবাসের একটি কক্ষে বোমা বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে পাঁচজন ছাত্র আহত হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিন ছাত্র মারা যায়।

এ ঘটনায় দায়ের হওয়া তিনটি মামলাও বর্তমানে বিচারের পর্যায়ে আছে।

বিস্ফোরণের পর থেকে গত দু’বছর পলাতক মুফতি ইজাহারকে চলতি বছরের ৭ আগস্ট লালখান বাজারে তার মাদ্রাসা থেকে আটক করা হয়।

হরকাতুল জিহাদের কথিত প্রতিষ্ঠাতা, জঙ্গী সম্পৃক্ততার অভিযোগে আলোচিত-সমালোচিত মুফতি ইজ‍াহারুল ইসলাম ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের সভাপতি। নেজামে ইসলাম পার্টির একাংশের সভাপতি হিসেবেও তিনি দায়িত্বে আছেন।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত