টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

প্রেমিকার বাসায় প্রেমিকের আত্মহত্যা, পরিবারের দাবি হত্যাকাণ্ড

map-chittagongচট্টগ্রাম, ০ ৬ আগস্ট (সিটিজি টাইমস) : চট্টগ্রাম নগরীর দক্ষিণ খুলশী এলাকায় প্রেমিকার বাসায় কলেজ ছাত্র প্রেমিক হাসান মাহমুদের আত্মহত্যার ঘটনায় রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রেমিকা সাবরিনা মজুমদার একে আত্মহত্যা দাবি করলেও হাসানের পরিবার বলছে এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড।

গত রোববার চট্টগ্রাম নগরীর খুলশী থানার দক্ষিণ খুলশী পাহাডিকা আবসিক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

হাসানের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দক্ষিণ খুলশীর কেরানির বিল্ডিংয়ে নগরীর সিএসবিএইচ কলেজের এইচএসসি ফলপ্রার্থী হাসান প্রায় দুই বছর যাবত মেসে ভাড়া থাকতো। এরই মধ্যে গত তিন মাস আগে স্থানীয় বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পোর্ট সিটি ইউনির্ভাসিটির টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের তৃতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী সাবরিয়না মজুমদার ঐ বিল্ডিংয়ের তৃতীয় তলার একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নেয়। ফ্ল্যাটটিতে গত তিন মাস যাবত সাবরিনা তার এক বান্ধবীসহ বসবাস করে আসছিল।

বিল্ডিং এর মালিক শহিদুল ইসলাম একই ভবনেই পরিবার নিয়ে থাকেন। সাবরিনার গ্রামের বাড়ি কক্সবাজার বাহারছড়া বলে জানা গেছে। পার্শবর্তী ইউনির্ভাসিটির ক্যাম্পাসে যাতায়ত সুবিধার কথা ভেবে ব্যাচেলর এ দুই ছাত্রীর কাছে বাড়ি ভাড়া দেয়ার কথা জানান বাড়ি মালিক।

এদিকে একই বিল্ডিং’র নিচ তলায় ভাড়া থাকতেন নিহত হাসান। একই ভবনে থাকার সুবাধে হাসানের সাথে সাবরিনার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ঘনিষ্ট সম্পর্কের সুবাধে প্রায়ই সাবরিনার ফ্ল্যাটে যাতায়ত করতো হাসান।

নিহত হাসানের মা প্রতিবেদককে জানায়, গত রোববার ঘটনার দিন রাত এগারটায় মুঠো ফোনে বলেছিল সে আর দেশে থাকবেনা, তিন মাসের মধ্যে তাকে বিদেশ পাঠানোর জন্য। মারা যাবার আগে এই কথোপকথনই ছিলো মায়ের কাছ থেকে অপ্রত্যাশিত বিদায় বার্তা।

ঘটনার দিন রাত একটায় সাবরিনা হাসানের বাবাকে মুঠো ফোনে জানায়, হাসান তার বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। পরে পুলিশ গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেলে নিয়ে যায়। এই ঘটনায় হাসানের বাবা আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগ এনে সাবরিনার বিরুদ্ধে খুলশী থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলার সূত্র ধরে প্রেমিকা সাবরিনাকে আটক করে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ।

হাসানের বন্ধু মো. মামুন জানায়, সাবরিনার সাথে প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি জানতে পেরে সাবরিনার সাবেক প্রেমিক ও খালাতো ভাই তৌহিদুল ইসলাম এক মাস আগে হাসানকে হুমকি দেয় সাবরিনার সাথে মেলামেশা না করার জন্য।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ফররুখ আহমেদ মিনহাজ জানান, আমাদের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রাথমিকভাবে আমরা ধারণা করছি এটি আত্মহত্যা। তবে বিভিন্ন বিষয় সামনে রেখে আমি বিষয়টি তদন্ত করছি। লাশের সুরত হাল রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত জানা যাবে। মামলার বিবাদী সাবরিনাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছি।

সাবরিনার কথার বরাত দিয়ে এই তদন্ত কর্মকর্তা আরো জানান, তাদের প্রেমের সম্পর্ক গভীর হওয়ায় মাঝে মধ্যে তাদের ঝগড়া হতো। ঐ দিন তাদের মাঝে ঝগড়াও হয়েছিল।

তিনি আরো জানান, ঘটনার দিন সাবরিনার হাত-পা বেঁধে তার সামনেই হাসান আত্মহত্যা করেছে বলে দাবি করেছে সাবরিনা।

মতামত