টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সাথে মেয়ে থাকলে সীতাকুণ্ড ইকোপার্কে প্রবেশে টিকিটমূল্য ৬ গুন বেশি

মোঃ ইমরান হোসেন
সীতাকুণ্ড ইকোপার্ক থেকে ফিরে

Sitakund-Ecoচট্টগ্রাম, ২৮ জুলাই (সিটিজি টাইমস):  পাহাড় এবং সমুদ্র বরাবরই আকর্ষণ করে সীতাকুণ্ড বোটানিক্যাল গার্ডেন ও ইকোপার্কে ঘুরতে আসা দেশী ও বিদেশী সকল পর্যটকদের মন। প্রকৃতির এ নিবিড় ছোঁয়া আর বুক উজার করা সৌন্দর্য যেন মুহুর্তেই ভুলিয়ে দেয় জীবনের যাবতীয় হতাশা। শীত এলেই শুরু হয় পর্যটন মৌসুম। পাহাড়ী প্রকৃতির একান্ত সান্নিধ্য পেতে আর উচ্ছল ঝর্ণার শীতল স্পর্শ পেতে হলে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড ইকোপার্কই হলো প্রকৃত স্থান। দীর্ঘদিন ধরে সুনামের সাথে সীতাকুন্ডের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করে আসছে সীতাকুন্ড ইকোপার্ক। কিন্তু তা মাটি চাপা পড়তে বসেছে কিছু অসাধু ব্যক্তির কারনে। সীতাকুন্ড ইকোপার্কে জনপ্রতি ২০ টাকা করে টিকিটমূল্য নির্ধারন করা হয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে ১০ টাকা জনপ্রতি থাকলেও তা পরে ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা করা হয়েছে। ঈদেও তার ব্যতিক্রম ছিলনা জনপ্রতি ২০ টাকা নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সাথে যদি কোন মহিলা থাকে তাহলে তাদেরকে জনপ্রতি গুনতে হবে ১২০ টাকা করে। যা টিকিটমূল্যের ৬ গুন বেশি। আর নিয়মিত এ ধরনের কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ায় ঘুরতে আসা পর্যটকদের পড়তে হয় বিপদের মুখে। কেউ কেউ আসছে স্কুল-কলেজ থেকে। যাদের পক্ষে সম্ভব না টিকিটের ৬গুন টাকা বেশি দিয়ে ইকোপার্কে প্রবেশ করা। সরেজমিনে অনেক পর্যটক টিকিটের দরে দামে না হওয়ায় ফিরে যেতে দেখা গেছে।

‘সাথে মেয়ে থাকলে জনপ্রতি ১২০ টাকা করে। প্রতিবেদকের প্রশ্ন ছিল ২০ টাকার টিকিট ১২০ টাকা কেন, তিনি জবাবে বললেন কেন সেটার উত্তর দিতে পারব না কারন এগুলো উপরের অর্ডার মেয়ে আসলে ১২০ টাকা করে দিতেই হবে। আর যারা দিতে পারবেনা তারা চলে যাবে।’ এসব কথা বললেন সীতাকুন্ড ইকোপার্ক গেইটে টিকিট কাউন্টারে দায়িত্বে থাকা লোকটি।

সরেজমিনে প্রতিবেদক ও সাথে এক ছেলে ও মেয়ে সহপাঠীকে নিয়ে মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় সীতাকুন্ড ইকোপার্ক গেইটে। গেইটে ঢুকতে হাতের বাম পাশে টিকিট কাউন্টার। প্রতিবেদক: ভাই ৩টি টিকেট দেন। উত্তরে: আপনাদের সাথে কোন মেয়ে আছে। প্রতিবেদক: হ্যাঁ ভাই একজন মেয়ে এবং দুজন ছেলে। উত্তরে: ৩৬০ টাকা দেন। প্রতিবেদক: কেন? জনপ্রতি তো ২০ টাকা করে ৬০ কিন্তু ৩৬০ টাকা কেন? উত্তরে: আপনাদের সাথে মেয়ে আছে তো ১২০ টাকা করে। প্রতিবেদক: মেয়ে থাকলে ১২০ টাকা কেন? উত্তরে: এমনিতে নরমাল টিকিট ২০ টাকা মেয়ে থাকলে ১২০ টাকা করে। প্রতিবেদক: বুঝলাম কিন্তু কেন? উত্তরে: কেন’র উত্তর আমি দিতে পারব না, এটা উপরের অর্ডার। মেয়ে থাকলে ১২০ টাকা করে দিতে হবে। প্রতিবেদক: যদি না দিই তাহলে চলে যেতে হবে, উত্তরে: সেটাতো আমি জানিনা আপনি যাবেন কি থাকবেন!

পরে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ভাই আপনারা ভিতরে যান আপনারা যেদিকে ইচ্ছে সেদিকে ঘুরতে পারবেন। এমনিতে নরমাল টিকিটের মূল্য ২০ টাকা যদি ইচ্ছে থাকে দেন না হলে ভিতরে চলে যান ঘুরে আসুন।

এসব কথা বলেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সীতাকুন্ড ইকোপার্ক ও বোটানিক্যাল গার্ডেন টিকিট কাউন্টারে দায়িত্বে থাকা লোকগুলো।

সীতাকুন্ডে ঘুরতে আসা মো. তুষার সাংবাদিক বুঝে বললেন, ভাইয়া দেখুন আমরা সবাই ভার্সিটির ছাত্র/ছাত্রী। আমরা পরিচয় দেওয়ার পরও আমাদের কাছ থেকে ১২০ টাকা করে দাবী করছে। যেখানে টিকিটের মূল্য শুধু ২০ টাকা। পরে দরদাম করে দুইটা ১৫০ টাকা করে দিতে হয়েছে।

এ বিষয়ে সীতাকুন্ড ইকোপার্ক ইজারাদার মো. সোহেল জানান, এ বিষয়টা আমি পুরোপুরি জানিনা। আর এ ধরনের কেউ করে থাকলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব। এ ধরনের কাজ করলে তো সীতাকুন্ড ইকোপার্কের ভাবমূর্তি ক্ষ্মুন্ন হবে। আর আমাদের কাছে ইজারা থাকা অবস্থায় সীতাকুন্ড ইকোপার্কে আসা কোন পর্যটকের যাতে কোন সমস্যা না হয় সেব্যপারে আমরা সব সময় সজাগ আছি।

মতামত