টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

কক্সবাজারের ঈদ মার্কেটে বাড়ছে ক্রেতা

Eid Bazar-pic
ইমাম খাইর, কক্সবাজার ব্যুরো:
ঈদ উপলক্ষে শহরের মার্কেটগুলোতে ব্যাপক নিরাপত্ত্বা বলয় তৈরী করা হয়েছে। চুরি ছিনতাইসহ সকল ধরণের অপরাধ রোধে পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি স্থানীয় ব্যবসায়ীরাও তাদের মার্কেটগুলোতে নিজস্ব নিরাপত্ত্বা কর্মী নিয়োজিত করেছেন। ৫টি স্পটে রয়েছে বিশেষ নিরাপত্ত্বা বাহিনী। ঈদের কেনাকাটা করতে এসে কোন ক্রেতা ভোগান্তিতে পড়েনি বলে জানান ব্যবসায়ীরা।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার অপারেশন অফিসার কাইয়ুম উদ্দীন চৌধুরী জানান, শহরের ৭ টি পয়েন্টে তাদের পুলিশ ফোর্স রয়েছে। মাকের্টগুলোর সামনে দুই জন পুরুষ ও মহিলা পুলিশ ফোর্স দায়িত্ব পালন করছে।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, বার্মিজ মার্কেট থেকে গোলদিঘীর পাড়, নিউমার্কেট থেকে আইভিপি রোড, ফজল মার্কেট থেকে লালদিঘীপাড়, পূর্ব বাজার থেকে বড়বাজার পৌর সুপার মার্কেট, সী-কুইন মাকেট থেকে বিমান বন্দর এবং কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল এলাকা থেকে লিংরোড পর্যন্ত ৩জন করে পুলিশ নিয়োজিত রয়েছে। এ ছাড়া কবির হকার মার্কেট পয়েন্ট, ফিরোজা শপিং কমপ্লেক্স, এ. ছালাম মার্কেট ও পৌর সুপার মার্কেটে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে।
ঈদগাঁও থেকে শহরে ঈদের কেনাকাটা করতে আসা সাহাব উদ্দিন বলেন, গত বছরের চেয়ে এ বছর ঈদ মার্কেটের নিরাপত্ত্বা বেড়েছে। আমাদের সামনে অতীতে অনেক ঘটনা হয়েছে। এ বছর কিন্তু এরকম কোন ঘটনার খবর পাইনি।
পৌর হকার মার্কেট দোকান মালিক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি আহমদ কবির বলেন, অতীতে ঈদ মার্কেটে অনেক বখাটে ও ছিনতাইকারী ছিল। চাঁদাবাজদের কারণে ক্রেতারা অতীষ্ট হয়ে ওঠত। এখন আমাদের শক্ত ভুমিকায় অনেকটা নির্মুল হয়েছে।
আর এক্স সুজ এর মালিক ও ফিরোজা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান জানান, আমরা নিরাপদে ব্যবসা করছি। আগের মতো কোন ছিনতাইকারী আসার সাহস করেনা। ঈদ বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রশসন অনেক কঠোর।
এ ছালাম মার্কেটের ফিমা কালেকশানের মালিক শেখ ফরিদ বলেন, আমরা শান্তিতে ব্যবসা করছি। ক্রেতাও বাড়ছে। কোন সমস্যা হয়নি। আমাদের মার্কেটসহ শহরের সবগুলো বিপনী বিতানে পর্যাপ্ত নিরাপত্ত্বাকর্মী দায়িত্ব পালন করছে। একই কথা বলেন কক্সবাজার ব্যবসায়ী দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রফিক মাহমুদ। এ জন্য তিনি প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান।
কক্সবাজার ব্যবসায়ী দোকান মালিক সমিতির সভাপতি আমিনুল ইসলাম মুকুল জানান, আমরা বিগত তিন বছর যাবত ব্যবসায়ীদের নিরাপত্ত্বায় কাজ করছি। এবারের ঈদবাজারের এ পর্যন্ত অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। সমিতিভুক্ত ৪৩ মার্কেটে পর্যাপ্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনী রয়েছে। তাদের সাথে আমাদের নিজস্ব কর্র্মীও রয়েছে। ১৭ স্পটে ব্যবস্থা করা হয়েছে বিশেষ হরণ।
ক্রেতা সাধারনের সুবিধার জন্য কন্ট্রোল রুমের ব্যবস্থা করেছে ব্যবসায়ী সমিতি। মাইক দিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতাদের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ধরনের সর্তক সংকেতের ঘোষণা দেয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত। কোন ঘটনা শুনার সাথে সাথেই সমাধান দিতে ছুটে যান ব্যবসায়ী নেতারা।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত