টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মুক্তিযোদ্ধা আয়ুব খান রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত

মুক্তিযোদ্ধাচট্টগ্রাম, ০৯ জুলাই (সিটিজি টাইমস):সচিবের গলাধাক্কার অপমান সইতে না পেয়ে আত্মহত্যায় বাধ্য হওয়া মুক্তিযোদ্ধা আয়ুব খানকে (৬০) রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হয়েছে। ঘটনার একদিন পর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব দুঃখ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন। এদিকে নিহতের স্বজনরা এই ‘হত্যাকাণ্ডের’ বিচারবিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছেন।

গত বুধবার চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় প্রয়াত আয়ুব খানের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। তার মৃত্যুর ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছেন নিহতের মামাতো ভাই আমীর হোসেন। তিনি আরও জানান, সাতকানিয়ায় আয়ুব খানকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে।

আয়ুব খান মঙ্গলবার রাজধানীর তোপখানা রোডের একটি হোটেলে বিষপান করে আত্মহত্যা করেন। আত্মহত্যা করার আগে ঢাকা জেলা প্রশাসক বরাবর একটি সুইসাইড নোট লিখে যান। যেখানে তিনি মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের সচিব এম এ হান্নানকে দায়ী করেছেন। তবে এম এ হান্নান তাকে চেনেন না বলে বিবৃতিতে জানিয়েছেন।

নিহত মুক্তিযোদ্ধা তার সুইসাইড নোটে লিখেছেন, ‘চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ইউনিট কমান্ড ঘোষণার জন্য সচিব এম এ হান্নানের বাসায় মাছ, শুঁটকি ও টাকা দিয়েছি। দক্ষিণ জেলা ইউনিট কমান্ড ঘোষণা করার জন্য বারবার আবেদন করেছি। সচিবকে দেওয়া টাকা ফেরত চাইলে তিনি আমাকে গলা ধাক্কা দিয়ে বাসা হতে অপমানিত করে বের করে দেন। তাই আমি আত্মহত্যা করিলাম এবং আমার লাশটা ঢাকায় দাফন করার জন্য আবেদন।’

মুক্তিযোদ্ধার আত্মহত্যার বিষয়টি দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার একদিন পর সচিব এম এ হান্নান একটি বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে আবাসিক হোটেলে মুক্তিযোদ্ধার আত্মহত্যা ‘অত্যন্ত দুঃখজনক’ বলে উল্লেখ করা হয়। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো প্রতিবাদ লিপিটিতে বিষয়টির জন্য দুঃখও প্রকাশ করা হয়।

সচিব এমএ হান্নান বিবৃতিতে উল্লেখ করেন, ‘একজন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী মানুষ হিসেবে আমি ব্যক্তিগতভাবে মর্মাহত এবং মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে মৃতের রুহের মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করছি।’

মতামত