টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ব্যস্ততা বেড়েছে রাউজানের টেইলার্সগুলোতে

এস.এম. ইউসুফ উদ্দিন
রাউজান প্রতিনিধি 

news-pictureচট্টগ্রাম, ০৭ জুলাই (সিটিজি টাইমস): প্রতি বছর ঈদ উপলক্ষে রাউজান উপজেলার টেইলার্সগুলোতে ব্যস্ততা শুরু হয় রমজানের আগেই । তবে এবছর রমজনের শুরুতে দর্জি দোকানে তেমন ভিড় লক্ষ করা যায়নি। রোজা শুরুর কয়েকদিন পর থেকে কখনো ইলশেগুঁড়ি, কখনো দিনভর ঝিরিঝিরি বৃষ্টি। বৃষ্টির কারণে টেইলার্সগুলোতে ক্রেতাদের উপস্থিতি ছিল কম। কাজে ছিল ধীর গতি। হতাশ ছিল টেইলার্স মালিকরা।

কিন্তু ১৫ রোজার পর বদলেছে সেই চিত্র। ব্যস্ত হয়ে উঠছেন কারিগররা। রাত-দিন কাজ করে সময়মত অর্ডার ডেলিভারি দেওয়ার চেষ্টা করছেন তারা ; ব্যস্ততা বেড়েছে টেইলার্সগুলোতে। ঈদ-উল-ফিতর যতই ঘনিয়ে আসছে ততই ব্যস্ততা বাড়ছে। বিরামহীন ভাবে পোশাক তৈরি করছে তারা। উপজেলায় কর্মরত দর্জি শ্রমিকদের এখন দম ফেলার ফুসরত নেই। দিন-রাত মেশিনের শব্দ, হাঁক-ডাক। ছোট ছোট কক্ষে চার পাঁচটা মেশিনে আট দশেক মানুষ। কেউ কাপড় কাটতে ব্যস্ত, কেউ সেলাই কাজে ব্যস্ত, কেউ বোতাম ও ছোট-খাট কাজে ব্যস্ত আবার কেউ কাপড় স্ত্রী কাজে ব্যস্ত।

উপজেলার বিভিন্ন স্থানের টেইলার্সগুলোতে প্রচুর অর্ডার নিয়ে ক্রেতারা ভীড় করছেন। ইতিমধ্যে অনেক টেইলার্সে অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে টেইলার্স মালিকরা। সময়মত ডেলিভারী দিতে এখন থেকেই নির্ঘুম রাত কাটাতে হচ্ছে দর্জি শ্রমিকদের। সরেজমিনে দেখা গেছে, রাউজান উপজেলার মুন্সির ঘাটা, ফকির হাট, জলিল নগর, রমজান আলী হাট, সোমবাইজ্যা হাট, ঈসান হাট, কদলপুর, নোয়াপাড়া, পাহাড়তলী,গুজরা, গহিরা, জগন্নাত হাট, আমীর হাট, কাগতিয়াসহ বিভিন্ন টেইলার্সের কারিগর, মাস্টার, ম্যানেজার সবাই ব্যস্ত সময় পার করছে। বিভিন্ন এলাকার একক পরিচালিত মহিলা দর্জিদেরও অবসর নেই।

রাউজান পৌর সদর মুন্সির ঘাটায় অবস্থিত শারমিন টেইলার্সের মালিক জানান, প্রতি বছর রমজানের শুরুতেই দর্জি পাড়ায় ভীড় থাকে। এবছরও রোজা শুরুর কয়েকদিন পর থেকে বৃষ্টি ও বন্যার কারণে শুরুর দিকে তেমন ভিড় ছিল না। প্রতি বছর ১৫ রমজান অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিলেও এবার তার ব্যতিক্রম। টেইলার্সগুলোতে এখনো অর্ডার নেওয়া হচ্ছে। চাঁদ রাত পর্যন্ত ডেলিভারী দেওয়া হবে।

টেইলার্স ব্যবসায়িরা বলেন, রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে কমির চৌধুরী রাউজানে বিদ্যুৎ সংকট নিরসনে রাউজানের গশ্চি কালু মরার টেক এলাকায় ২৬ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র নির্মাণ করায় উপজেলায় এখন বিদ্যুৎ সংকট নেই। এ কারণে রাউজান উপজেলার টেইলার্সগুলোতে দিনের মতো রাতেও কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে না।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত