টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মানিকছড়িতে গুচ্ছগ্রামবাসীদের পরিত্যক্ত ভূমি দখল নিয়ে পাহাড়ী-বাঙ্গালী মুখোমুখি

প্রশাসনের বাধায় মানববন্ধন পন্ড! প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ মিছিলের ডাক

আবদুল মান্নান
মানিকছড়ি প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ০৪ জুলাই (সিটিজি টাইমস): মানিকছড়ির বক্রিপাড়া, মনাধন পাড়া, গবামারা, ওয়াকছড়ি, হাফছড়িতে পরিত্যক্ত ভূমি নিজেদের দাবী পাহাড়ী-বাঙ্গালীরা এখন মুখোমুখি। গুচ্ছগ্রামে বসবাসরত বাঙ্গালীদের এসব জায়গা উপজাতিরা দখল করছে মর্মে সম্প্রতি প্রশাসনকে বাঙ্গালীকে অভিযোগ করে আসছিল। গতকাল শনিবার হঠাৎ বাঙ্গালী কর্তৃক ভূমি জবর দখলের অভিযোগ এনে উপজাতিরা মানববন্ধন করার চেষ্ঠা করলে পূর্বানুমতি না থাকায় তা পন্ড করে দেয় প্রশাসন। এদিকে বাঙ্গালী কর্তৃক ভূমি দখলের সত্যতা পাওয়া যায়নি। মানববন্ধন করতে না দেয়ার প্রতিবাদে রবিবার উপজেলায় অর্ধদিবস সড়ক অবরোধের ডাক দিয়েছে সদ্য সৃষ্ঠি উপজাতি ভূমি রক্ষা কমিটি। অন্যদিকে বাঙ্গালী ‘পার্বত্য ভূমি রক্ষা কমিটির উদ্যোগে সোমবার উপজেলায় বিক্ষোভ মিছিল ও মান্ববন্ধন আহব্বান করেছে। এ নিয়ে উপজেলায় উত্তেজনা পরিলক্ষিত হচ্ছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মানিকছড়ির দূর্গম এলাকা বক্রিপাড়া, মনাধন পাড়া, গবামারা, ওয়াকছড়ি, হাফছড়ি এলাকা ১৯৮৩-৮৪ সালে বসবাসরত প্রায় ২শ বাঙ্গালী পরিবারের বসত ভূমি রয়েছে। পরবর্তীতে পার্বত্যাঞ্চলের বিরাজমান পরিস্থির কারণে তারা সকলে গচ্ছাবিল, হাতিমুড়া ও মানিকছড়ি গুচ্ছগ্রামে বসবাস করছে অদ্যবদি। ফলে বাঙ্গালীদের এসব ভূমি এখনো পরিত্যক্ত। সম্প্রতি কতিপয় উপজাতীরা ওই ভূমি তাদের দাবী করে তাতে বাগান সৃজন, ঘর তৈরি ও ক্যায়াং ঘর নির্মাণ শুরু করলে পাহাড়ী-বাঙ্গালীদের মধ্যে মতানৈক্য দেখা দেয়। যার কারণে একাধিকবার পুলিশ ও সেনাবাহিনী সরজমিনে গিয়ে এসব জায়গা কেউ বাগান, ঘর তৈরি না করতে নির্দেশ দেন। কিন্তু ওই এলাকায় কোন বাঙ্গালী বসবাস না করার সুযোগে প্রতিনিয়ত উপজাতিরা নতুন নতুন ঘর তৈরি ও বাগান সৃজন অব্যাহত রাখে। ফলে এ নিয়ে বাঙ্গালীদের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। গতকাল শনিবার ওই সব জায়গা বাঙ্গালীরা দখল করছে মর্মে ওয়াকছড়ি ও মনাধন পাড়া ভূমি রক্ষা কমিটির উদ্যোগে কতিপয় উপজাতীরা সকাল ১০টায় মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী ডিগ্রী কলেজ এলাকায় অতর্কিত মানব বন্ধন করার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে প্রশাসন মানববন্ধনের পূর্বানুমতি না থাকায় তাতে বাধা দেয়। ফলে তা পন্ড হয়ে যায়। এ প্রসঙ্গে ওয়াকছড়ির উপজাতি নেতা জুগেস কার্বারী জানান, এসব ভূমি উপজাতিদের পৈত্রিক সম্পত্তি। এখানে বাঙ্গালীদের আসতে দেয়া হবে না। এ প্রসঙ্গে মানিকছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও গচ্ছাবিল গুচ্ছগ্রামের অধিবাসী মো. আবুল কালাম জানান, বাঙ্গালীরা গুচ্ছগ্রামে বসবাস করায় তাদের নিজস্ব ভূমি পরিত্যক্ত রয়েছে। এ সুযোগে সম্প্রতি উপজাতীরা জায়গাগুলো দখল করার চেষ্টা করে এবং কিছু অংশে বাগান সৃজন করে। এ নিয়ে বাঙ্গালীদের মাঝে আতংক সৃষ্টি হয়। তিনি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও সুষ্ঠ তদন্ত দাবী করেন। এদিকে শনিবার বিকালে সদ্য সৃষ্ঠ মানিকছড়ি ভূমি রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব রুইসিং প্রু মারমা (রানা) স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে রবিবার উপজেলায় অর্ধদিবস সড়ক অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়া হয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে বাঙ্গালীদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তাৎক্ষণিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই এলাকার একাধিক বাঙ্গালী বলেন, গুচ্ছগ্রামবাসী বাঙ্গালীদের পরিত্যক্ত বসত ভূমি একদিকে উপজাতি বেদখল করে নিচ্ছে এবং অন্যদিকে বাঙ্গালী কর্তৃক উপজাতীদের ভূমি দখলের মিথ্যা তথ্য প্রচার করে তারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকারে নেমেছে। অহেতুক অবরোধের নামে শান্ত পরিবেশ অশান্ত করতে চাইলে এ অঞ্চলের জনগণ তা প্রতিরোধ করবে। পার্বত্য ভূমি রক্ষা কমিটির উপজেলা সভাপতি মো. ইউছুপ লিডার জানান, উপজাতীদের মিথ্যা কর্মসূচী এবং জবরদখলের প্রতিবাদে সোমবার উপজেলায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচী নেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন।

মানিকছড়ি থানার ও.সি মো. শফিকুল ইসলাম জানান, মানববন্ধনের পূর্বানুমতি না থাকায় তা করতে দেয়া হয়নি। এছাড়া ভূমির বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষ বিষয়। এ নিয়ে কাউকে শান্ত পরিবেশ ঘোলাটে করার সুযোগ দেয়া হবে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার যুথিকা সরকার এ প্রতিনিধিকে বলেন, কাউকে অহেতুক কোন কর্মসূচী করতে দেয়া হবে না।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত