টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ভারতকে বাংলাওয়াশের মিশন আজ

spচট্টগ্রাম, ২৪ জুন (সিটিজি টাইমস):  সিরিজ জয় নিশ্চিত হয়েছে আগেই। ম্যাচটা অনেকটা নিয়মরক্ষার। তবে মাশরাফিদের সামনে সুযোগ ক্রিকেট পরাশক্তি ভারতকে হোয়াইটওয়াশ করার, যেটি অধিক পরিচিত বাংলাওয়াশ নামে।

সে সুযোগ নিশ্চয় হাতছাড়া করবে না স্বাগতিকরা। এই প্রাপ্তিযোগ হলে ঘরের মাঠে টানা জয়কেও ১১-তে উন্নীত করতে পারবে বাংলাদেশ।

এজন্য টাইগারদের সামনে রয়েছে সাম্প্রতিকে টানা দুটি (জিম্বাবুয়ে ও পাকিস্তান) সিরিজে বিপক্ষ দলকে হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় ডুবানোর সুখস্মৃতি।

সেটি নিয়েই বুধবার ভারতের বিপক্ষে বাংলাওয়াশ মিশনে নামছেন মাশরাফিরা। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে এ ম্যাচ শুরু হবে স্থানীয় সময় বেলা তিনটায়।

উপমহাদেশের কন্ডিশনে ভারত প্রায় অজেয়। গত দেড় যুগে এ অঞ্চলের কোনো দলের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় পড়েনি তারা। উপমহাদেশের দলগুলোর বিপক্ষে তারা সর্বশেষ হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় ডুবেছে ১৯৯৭ সালে। চার ম্যাচের ওই সিরিজে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ০-৩ ব্যবধানে হারে ভারত। চার ম্যাচের ওই সিরিজে একটি ম্যাচ ভাসিয়ে নেয় বৃষ্টি।

সে হিসাবে উপমহাদেশের কোনো দলের বিপক্ষে ১৮ বছরের গৌরব ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ ধোনিদের। এ চ্যালেঞ্জে জিততে মরিয়া ভারতীয় শিবির।

মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে আসা অফ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ভাষায়, ‘আমরা জয়ের জন্যই নামব। এটা ঠিক যে, সিরিজটা হেরেছি, কিন্তু আমরা শেষ ম্যাচে সবকিছুর পরিবর্তন ঘটাতে চাই। চেষ্টা করব হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর।’

সিরিজ জয়ের পর বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বলেছিলেন, হোয়াইটওয়াশ নিয়ে ভাবছি না, আমরা উপভোগ্য ক্রিকেট খেলতে চাই।

মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে আসা অলরাউন্ডার নাসির হোসেন বলেছেন, ‘ড্রেসিংরুম থেকে বলা হয়েছে যে, যদি দুটি ম্যাচই আমরা হারতাম, তাহলে আমাদের ওপর যেমন চাপ থাকত বা যেভাবে খেলতাম, ঠিক সেভাবেই আমাদের খেলতে হবে। বিন্দু পরিমাণও ছাড় দেয়া যাবে না, এমন নির্দেশ আমাদের ওপর।’

প্রথম দুই ম্যাচে ভারতকে দাঁড়াতেই দেননি বাংলাদেশের টিনএজ বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেটের পর দ্বিতীয় ম্যাচে তুলে নিয়েছেন ৬ উইকেট।

ওয়ানডে ইতিহাসে দ্বিতীয় বোলার হিসেবে ক্যারিয়ারে প্রথম দুটো ম্যাচে ৫ উইকেট নেয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন এ বাঁহাতি। স্বাভাবিকভাবেই গোটা ক্রিকেট দুনিয়ার চোখ এখন এ বাঁহাতির ওপর।

আজ নিজেকে আরো উঁচুতে ওঠানোর সুযোগ মুস্তাফিজের সামনে। কিংবদন্তি পাকিস্তানি ফাস্ট বোলার ওয়াকার ইউনুসের রেকর্ডে ভাগ বসানোর হাতছানি সাতক্ষীরার এই কিশোরের। ওয়ানডে ইতিহাসে টানা তিন ম্যাচে ৫ উইকেট নেয়ার কৃতিত্ব আছে কেবল ওয়াকারেরই।

আজ মুস্তাফিজ কি প্রথম দুই ম্যাচের মতো একাই বিধ্বস্ত করে দেবেন ভারতীয় শিবিরকে, সামনে চলে এসেছে এমন প্রশ্নও। এ পর্যায়ে সবাইকে বাস্তববাদী হতে বলেছেন, বাংলাদেশের বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিক।

তিনি বলেছেন, ‘মুস্তাফিজ প্রতি ম্যাচেই ৫ উইকেট পাবে, এমন প্রত্যাশা করাটা ঠিক হবে না। সে অনেক ভালো করছে। তবে তার আরো নার্সিংয়ের প্রয়োজন।’

চলতি সিরিজে প্রথম ম্যাচে চার পেসার নামিয়ে চমক দিয়েছিল বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট। মুস্তাফিজকে নিয়ে চার পেসার তত্ত্বে প্রথম দুটো ম্যাচ জিতে বাজিমাত করেছে স্বাগতিক শিবির।

মঙ্গলবার আবার নতুন চমক দিয়েছে স্বাগতিক ম্যানেজমেন্ট। স্কোয়াডভুক্ত করা হয়েছে লেগ স্পিনার যুবায়ের হোসেন লিখনকে। দলের সঙ্গে অনুশীলন করেছেন এই ডানহাতি।

তাকে দলে নেয়া প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ বলেছেন, ‘বোলিং অপশনে শক্তি বাড়াতেই যুবায়েরকে দলে নেয়া হয়েছে।’

সেরা একাদশে এ লেগ স্পিনারকে খেলানো হবে কিনা, সেটা অবশ্য বলেননি প্রধান নির্বাচক। বলেছেন, ‘কাল (বুধবার) উইকেট দেখে দল নির্বাচন করা হবে।’

এখন দেখার উইনিং কম্বিনেশন থাকবে, না ভেঙে নতুন কী চমক দেখাবেন মাশরাফিরা। তবে এই ম্যাচেও রয়েছে বৃষ্টির হাতছানি। বুধবার সকাল থেকেই গোমড়া মুখ করে আছে আকাশ। বৃষ্টিতে ম্যাচটি না হলেও টাইগারদের কোনো ক্ষতি নেই। সেটিও ধরা হবে হোয়াইটওয়াশ।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত