টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

নায়েকের হাতে কড়া, কেমন আছেন মিয়ানমারে?

Bgb Razza

ইমাম খাইর, কক্সবাজার ব্যুরো:
মিয়ানমারে সীমান্ত রক্ষি বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)’র হাতে অপহৃত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)’র নায়েক আবদুর রাজ্জাককে এখনো ফেরত দেয়নি মিয়ানমার। তাকে মিয়ানমারের সীমান্ত বিজিপি’র ১২ নং সেক্টরে রাখা হয়েছে বলে একটি সুত্র জানিয়েছে।

অপহৃত নায়েক রাজ্জাকের দুই হাতে কড়া লাগানো হয়েছে; রাখা হয়েছে ময়লাক্ত একটি কক্ষে।

হাতকড়া পড়ানো অবস্থায় রাজ্জাকের দুটি ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। ছবিতে নায়েক রাজ্জাকের মুখে রক্তের দাগ দেখা গেছে।

এছাড়া, তার সামনে একটি বন্দুক, ২২ রাউন্ড গুলি, চারটি মোবাইল সেটসহ বেশকিছু আগ্নেয়াস্ত্র রাখা হয়েছে।

সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন একটি ছবি প্রকাশ হয়েছে। ছবিটি দেখে নিন্দার ঝড় ওঠেছে।

একজন বিজিবি সদস্যকে এভাবে হাতকড়া দিয়ে বেঁধে রাখা সম্পূর্ণ অমানবিক ও অন্যায় বলে জানিয়েছেন অনেকেই।

বিজিবির একজন সদস্য বলেন, ওনি (রাজ্জাক) তো চোর নয় যে, তার হাতে এভাবে কড়া লাগাতে হবে। ছবিটা দেখে আমরা খুবই মর্মাহত হয়েছি।

বিজিবি কক্সবাজার সেক্টরের কমান্ডার কর্নেল এস এম আনিসুর রহমান বলেন, নায়েক রাজ্জাক সুস্থ আছেন। আমরা খোঁজ নিয়েছি। তিনি বিজিপি’র হেফাজতে ভাল আছেন। তাকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে।

তিনি আরো বলেন, ১৮ জুন বৃহস্পতিবার সকালে পতাকা বৈঠকের কথা থাকলেও সঙ্গত কারণে হয়নি। শীঘ্রই বিজিপি’র সাথে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তাকে ফিরিয়ে আনা হবে।

শুক্রবার সকালে দ্বিতীয় দফায় ৩৭ বাংলাদেশিকে হস্তান্তর বিষয়ে বিজিবি’র সঙ্গে পতাকা বৈঠকে বিজিপি এ আশ্বাস দেয়। পরে সাংবাদিকদের কাছে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন কক্সবাজার বিজিবি’র সেক্টর কমান্ডার কর্নেল এস এম আনিসুর রহমান।

গত ১৭ জুন বুধবার সকালে টেকনাফ সীমান্তের দমমিয়া চেকপোস্টের বিপরীতে লালদিয়া নামক স্থানে একদল চোরকারবারিকে ধাওয়া করে বিজিবি সদস্যরা। এক পর্যায়ে চোরকারবারিরা বিজিবির আওতার বাইরে চলে যায়। এ সময় মিয়ানমারের সীমান্ত পুলিশের সদস্যরা বিজিবির টহল দলের ওপর গুলিবর্ষণ করলে বিজিবির সদস্য বিপ্লব কুমার গুলিবিদ্ধ হন।

এ ঘটনায় বিজিবির সদস্য নায়েক আবদুর রাজ্জাক নাফ নদীতে পড়ে গেলে মিয়ানমারের সীমান্ত পুলিশ তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

অপহৃত নায়েক রাজ্জাককে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে ১৮ জুন বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় টেকনাফ স্থলবন্দর রেস্ট হাউজে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। শেষ পর্যন্ত পূর্ব নির্ধারিত পতাকা বৈঠকে সাড়া দেয়নি বিজিপি। ফলে নায়েক আবদুর রাজ্জাকের ফেরা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়।

তবে বিজিপি’র একটি সুত্রে জানা গেছে, তাদের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না পাওয়ায় বৈঠক হয়নি। বৈঠক করেই তাকে ফেরত পাঠানো হবে।

নায়েক আবদুর রাজ্জাককে বৃহস্পতিবার ফেরত দেওয়ার কথা থাকলেও মিয়ানমার থেকে কোনো সাড়া না পাওয়ায় বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে এই বিষয়ে সহযোগিতা চায়। এরপর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত মাইও মাইনকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব কর হয়।

রাষ্ট্রদূত মাইও মাইনকে বলা হয়, অপহৃত বিজিবি নায়েক আবদুর রাজ্জাককে ফেরত দিতে মিয়ানমার সরকার যাতে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়। তলবের পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রদূত মাইও মাইন এই ঘটনায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘এই বিষয়ে তিনি দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ করবেন।’

মতামত