টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রোজার শুরুতেই মিরসরাইয়ে বাজারে পন্যের দাম বেড়েছে দ্বিগুন

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ১৯ জুন (সিটিজি টাইমস)::   রমজান আসা মাত্রই এক দিনের ব্যবধানে বেড়েছে সব নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। তবে বেশি বেড়েছে সবজির দাম। মাত্র একদিনের ব্যবধানে দাম বেড়ে হয়েছে দ্বিগুন। মিরসরাইয়ের বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

উপজেলার প্রাচীনতম বড়দারোগাহাট বাজারে গিয়ে দেখা যায়, বুধবারে কাঁচা তরকারির যে দাম ছিল বৃহস্পতিবার, শুক্রবার দাম বেড়ে হয়েছে দ্বিগুন। ব্যবসায়ীরা জানায়, বুধবার প্রতি কেজি শসা বিক্রি হয়েছে ৩০-৩৫ টাকা। কিন্তু শুক্রবার তা দাম বেড়ে হয়েছে ৫০ টাকা। এছাড়া দাম বেড়েছে বেগুন, আলু, পটল, কাঁচা মরিচ, গাজরসহ বিভিন্ন তরকারির দাম বেড়ে হয়েছে দ্বিগুন। তবে কেন দাম বেড়েছে তার কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেনি ব্যবসায়ীরা। বাজার করতে আসা শেখ ফজলুল করিম বলেন, শুক্রবারের বাজার দামের সাথে বুধবারের বাজার মুল্যের অনেক ফারাক। রমজানের শুরুতে এমন হলে পুরো রোজার মাস আরো দাম বাড়তে পারে।

জানা গেছে, প্রতি বছর রমজানে ভোগ্য পন্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়ে থাকে। কিন্তু সরকারের এসব পদক্ষেপ অতি মুনাফাভোগী ব্যবসায়ীদের কারণে ভেস্তে যায়।

আরো জানা গেছে, রমজানে অতি প্রয়োজনীয় পণ্য সয়াবিন তেলের দাম এখনো নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে বেড়েছে পেয়াজ, রসুন, ধনিয়ার দাম। এসব পণ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে শুকনা ধনিয়ার দাম।

ক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মাত্র একদিনের ব্যবধানে প্রায় সকল পন্যে দাম বাড়ায় তারা হতাশ হয়ে পড়েছেন। এখনো উপজেলার কোন মুদির দোকানে পন্যের মূল্য তালিকা টাঙ্গানো হয়নি। নেই কোন মনিটরিং। বাজার মনিটরিং না থাকায় ব্যবসায়ীরা ইচ্ছে মতো পন্যের দাম বাড়িয়ে চলছে।

বড়দারোগাহাট বাজার কমিটির সভাপতি মহিউদ্দিন বলেন, প্রথম রমজানে বাজার ব্যবসায়ী উন্নয়ন কমিটির পক্ষ থেকে বাজার মনিটরিং করা হবে। যদি কেউ পন্য মজুদ কিংবা বিনা কারণে পন্যের মূল্য বৃদ্ধি করে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহম্মদ আশরাফ হোসেন বলেন, রমজান শুরু হওয়ার পর বাজার মনিটরিং করা হবে। যদি কোন দোকানে মূল্য তালিকা টাঙ্গানো না থাকে তাহলে ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মতামত