টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রাম নগরীজুড়ে দিনভর তীব্র যানজট

jamচট্টগ্রাম, ১৮ জুন (সিটিজি টাইমস):: ফ্লাইওভারের নির্মাণ কাজের মধ্যে সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে অতিরিক্ত গাড়ির চাপ আর প্রবর্তক মোড়ে শিক্ষার্থীদের অবরোধের জেরে দিনভর চট্টগ্রাম নগরীজুড়ে ছিল তীব্র যানজট।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত মুরাদপুর, দুই নম্বর গেইট, জিইসি, প্রবর্তক, চকবাজার, গোল পাহাড়, চট্টেশ্বরী সড়ক, নিউমার্কেট, বিআরটিসি, লাভলেন, আগ্রাবাদ, সল্টগোলাসহ বিভিন্ন এলাকায় সড়কে ছিল যানজট।

রমজান শুরুর আগের দিন এমন যানজটে ভোগান্তিতে পড়ে নগরবাসী। যানজটে আটকা পড়ে প্রচণ্ড গরমে হাসফাঁস করার পাশাপাশি ঠিকমতো গন্তব্যে পৌঁছাতে পারেননি কেউই।

সরেজমিন দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই নগরীর সিইপিজেড, আগ্রাবাদ, দেওয়ানহাট, জিইসি, দুই নম্বর গেইট, জিইসি মোড় ও নিউ মার্কেট এলাকায় যানবাহনের চাপ ছিল বেশি।

ফ্লাইওভারের ভোগান্তি

নির্মাণাধীন মুরাদপুর-লালখান বাজার (আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু) ফ্লাইওভার ও কদমতলী ফ্লাইওভারের নির্মাণ কাজের জন্য এ দুটি উড়াল সড়কের আশেপাশের এলাকায় যানজট লেগে থাকে প্রায় প্রতিদিনই, বৃহস্পতিবার তা ছিল অন্য দিনের চেয়ে বেশি।

আখতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভারের দুই নম্বর গেইট থেকে মোহাম্মদপুর অংশে নির্মাণ কাজ চলছে গত ফেব্রুয়ারি থেকে।

এ অংশে সড়কের প্রশস্ততা ৭৬ ফুট। সড়কের মাঝ বরাবর পাইলিংয়ের কাজ শুরু হওয়ায় টিনের বেষ্টনি দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে ৩০ ফুট সড়ক। বাকি ৪৬ ফুট রাস্তার দুই পাশে ২৩ ফুট করে রাখা হয়েছে যান চলাচলের জন্য।

দুই নম্বর গেট মোড়ে অনিয়ন্ত্রিতভাবে বিভিন্ন গণপরিবহন রাখায় দিনের বেশিরভাগ সময় যানজট লেগে থাকে। চারটি সড়কের সংযোগ স্থান এই মোড়ে দিনভর ট্রাফিক সদস্যরা দৌড়-ঝাঁপ করে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে দেখা যায় সেখানে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করছে ফ্লাইওভারের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ করা কর্মীরা।

সড়কটির শিক্ষা বোর্ড সংলগ্ন অংশে দেখা যায় রাস্তার ওপর বিভিন্ন ধরনের গাড়ি দাঁড় করিয়ে রাখা।

মুরাদপুর মোড়ে তিন নম্বর বাসের যাত্রী হেলাল উদ্দিন বলেন, “ফ্লাইওভারের কাজের জন্য মুরাদপুর মোড় বন্ধ। গাড়ি ঘুরে আসি মোহাম্মদপুর থেকে। ১৫ মিনিটে যখন মুরাদপুর মোড়ে এসে পৌঁছলাম তখন দেখি এ পাশেও যানজট।”

অন্যদিকে নগরীর বিআরটিসি এলাকায় নির্মাণাধীন কদমতলী ফ্লাইওভারের কারণে নিচের মূল সড়কটি এখন বেহাল। ফলবাহী গাড়ির কারণে ওই সড়কে একপাশে যান চলাচল দিনের বেশিরভাগ সময়ই বন্ধ থাকে।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) মাসুদুল হাসান বলেন, “ফ্লাইওভারের নির্মাণ কাজের জন্য আমরাও চিন্তিত। যানজটের অন্যতম কারণ এটিই। তাদের (সিডিএ) সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করছি।”

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী ও আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার প্রকল্পের পরিচালক মো. মাহফজুর রহমান বলেন, “আমরা যেসব ভারী যন্ত্রপাতি দিয়ে পাইলিংয়ের কাজ করছি, তাতে ৫০ ফুট জায়গা প্রয়োজন।

“কিন্তু যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে আমরা ৩০ ফুটের বেশি জায়গা নিইনি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যান চলাচল নিয়ন্ত্রণে রাখতে কিছু লোক দিয়েছে। রমজানে লোক আরও বাড়ানো হবে।”

কদমতলীতে সড়কের একপাশ মেরামত করে দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, যান চলাচলে শুক্রবার থেকে আর সমস্যা হবে না।

শিক্ষার্থী নিহত, সড়ক অবরোধ

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে বহদ্দারহাট মোড়ে ট্রাকচাপায় এক শিক্ষার্থী নিহত হলে দুপুর ১২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সংলগ্ন প্রবর্তক মোড় অবরোধ করে সিটি কলেজের শিক্ষার্থীরা।

এসময় সংলগ্ন গোল পাহাড়, জিইসি, দুই নম্বর, পাঁচলাইশ এবং চকবাজার এলাকায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

যানজট ছড়িয়ে পড়ে কাপাসগোলা, চট্টেশ্বরী সড়ক, জামালখানসহ বিভিন্ন সড়কে।

বেলা সোয়া ১টার দিকে চারুকলা ইন্সটিউটিটের সামনে যানজটে আটকে পড়া প্রাইভেটকারের চালক শহীদুল আলম বলেন, “চট্টগ্রাম মেডিকেলের পেছনের রাস্তা দিয়ে চকবাজার মোড় হয়ে প্রবর্তকের দিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলাম। যেতে না পারে এ পথে এসেছি। এখানেও আটকা পড়লাম।”

বেলা ২টার পর নগরীর এ অংশের যানজট কিছুটা কমে।

ট্রাফিক পরিদর্শক (উত্তর-প্রশাসন) মীর নজরুল ইসলাম  বলেন, বিআরটিসি থেকে নিউমার্কেট পর্যন্ত সড়কের এক পাশ মেরামতের জন্য বন্ধ আছে। দুই লেনের গাড়ি এক লেন দিয়ে চলাচল করায় যানজট হচ্ছে।

“এছাড়া রমজানের আগের দিন হওয়ায় সবাই কেনাকাটা ও বাড়ি ফেরায় ব্যস্ত। তাই সড়কের গাড়ির চাপ বেশি।”

সিডিএ এভিনিউ’র যানজট নিরসনে কাজ শুরু হয়েছে জানিয়ে মীর নজরুল বলেন, জিইসি মোড় থেকে মুরাদপুর পর্যন্ত রাস্তার পাশে যত পার্কিং করা গাড়ি আছে সব সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি রাস্তায় যেসব ভ্রাম্যমাণ দোকান বসেছে সেগুলো ফুটপাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে।-বিডিনিউজ

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত