টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে বসত বাড়ি দখলের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

মিরসরাই প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ১৬ জুন (সিটিজি টাইমস):: মিরসরাইয়ে বসত বাড়ি দখলের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী একটি পরিবার। মঙ্গলবার (১৬ জুন) দুপুরে মিরসরাই রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে বেগম কামরুচ্ছাবাহ্।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, মিরসরাইয়ের ওসমানপুর ইউনিয়নের বাঁশখালী গ্রামে ৩০ বছর পূর্বে তার পিতা ডাঃ হাবিবুর রহমান বসত ঘর নির্মান করেন। ওই ঘরেই পরিবার পরিজন নিয়ে তারা বসবাস করছেন। কিন্তু গত বছরের ১৪ এপ্রিল প্রতিবেশি আবু ছালেক , নয়ন, সাইফুল, মোশারফ, রিয়াদ, মিঠুন, মিল্টন ঘর ভাংচুর করে। এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলে প্রানে মেরে ফেলার হুমকী দেয় তারা। পরবর্তীতে একই বছরের ১৫ জুন পুনরায় আমাদের ঘর ভাংচুর করে এবং আমার মায়ের উপর হামলা চালায় প্রতিপক্ষরা।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, এসব ঘটনায় গত বছরের ২৩ জুন জোরারগঞ্জ থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়। এরপর তিনটি বৈঠক হয় সমাধানের জন্য। কিন্তু কোন সমাধান না হওয়ায় এবং সন্ত্রাসী হামলা বেড়ে যাওয়ায় আমি গত বছরের ১ জুলাই পুনরায় জোরারগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ৬ জুলাই আমার ছোট ভাই জাহাঙ্গীরকে মারধর করে। এর পর ওই সন্ত্রাসী দল আমার ভাই জাহাঙ্গীর আলম ভুট্টো, মিলন ও রুমনকে মিথ্যে অভিযোগ সাজিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পুলিশ ষড়যন্ত্র করে আমার ভাইদের কোর্টে চালান দেয়। পরে পুলিশ এ ঘটনায় তাদের দোষী হিসেবে সাব্যস্ত না হওয়ায় তাদের পক্ষে আদালতে ফাইনাল রিপোর্ট প্রদান করেন।

বেগম কামরুচ্ছাবাহ লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, প্রতিপক্ষরা গত ১১ মে আমার আশির্ধো মা আলমেরা বেগম, ভাইয়ের বৌ শিরিনা আক্তারকে মারধর করে। এই ঘটনায় জোরারগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। প্রতিপক্ষরা আমাদের ৩০ বছরের বসত ঘরকে তাদের গুদাম ঘর বলে দাবী করছে। কোর্টে মিথ্যা আবেদনের মাধমে ১৪৫ ধারা জারী করে। যা সম্পুর্ন মিথ্যা এবং বানোয়াট। এ প্রসঙ্গে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ আমাদের পক্ষে প্রতিবেদন দিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, সন্ত্রাসীদের উপর্যপুরী হামলা ও হত্যার হুমকীতে তারা চরম নিরাপত্তাহীনতা দিন অতিবাহিত করছেন। এসব ঘটনায় প্রতিকার পেতে প্রশাসনের দৃষ্টি হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন নাজমুছ ছাবাহ্, জাহাঙ্গীর আলম ভুট্টু।

মতামত