টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে সংরক্ষিত উপজেলা মহিলা সদস্য নির্বাচন জমে উঠেছে

মিরসরাইয়ে আওয়ামীলীগের একাধিক, বিএনপির একক প্রার্থী: এক আসনে বিএনপি সমর্থক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ১৫ জুন (সিটিজি টাইমস):: মিরসরাই উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের পুরোদমে চলছে শেষ মুহর্তেও প্রচারণা। মিরসরাইয়ের ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভাকে ৬ আসনে ভাগ করা হয়েছে। ৬টি আসনের জন্য ১২জন প্রার্থী মনোনয়ন জমা দেন। এদের মধ্যে করেরহাট, হিংগুলী ও বারইয়ার হাট পৌরসভা আসনের বিএনপি সমর্থক প্রার্থী হিসেব পরিচিত ফারজানা আক্তার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে। অন্য ৫টি আসনের জন্য আগামী ১৫ জুন ১১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী রয়েছে বেশি। অন্য দিকে সবকয়টি আসনে বিএনপি সমর্থক একক প্রার্থী রয়েছে। তবে প্রার্থীদের মধ্যে হাড্ডাহাডি লড়াই হবে ধারনা করছেন ভোটার ও প্রার্থীরা।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, করেরহাট, হিংগুলী ইউনিয়ন, বারইয়ারহাট পৌরসভার (আসন-১) জন্য বারইয়ারহাট পৌরসভার মহিলা কাউন্সিলর ফারজানা আক্তার, জোরারগঞ্জ, ধুম, ওসমানপুর ইউনিয়নের (আসন-২) জন্য জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের ৭,৮,৯ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার তাহমিনা আক্তার ও ধুম ইউনিয়নের ৭,৮,৯ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার মনোয়ারা বেগম, ইছাখালী, কাটাছড়া, দুর্গাপুর ইউনিয়নের (আসন-৩) জন্য ইছাখালী ইউনিয়নের ১,২,৩ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার আলেয়া বেগম ও একই ইউনিয়নের ৪,৫,৬ ওয়ার্ডের মেম্বার মোছাম্মৎ শামীমা ইয়াসমিন, মিরসরাই সদর, মিঠানালা ইউনিয়ন, মিরসরাই পৌরসভার (আসন-৪) জন্য মিঠানালা ইউনিয়নের ১,২,৩ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার দেল আফরোজা বেগম, একই ইউনিয়নের ৪,৫,৬ ওয়ার্ডের মেম্বার হাছনা আক্তার ও মিরসরাই পৌরসভার ১,২,৩ ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর রিজিয়া বেগম, মঘাদিয়া, খইয়াছড়া, মায়ানী ইউনিয়নের (আসন-৫) জন্য মায়ানী ইউনিয়নের ১,২,৩ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার জাহানারা বেগম ও মঘাদিয়া ইউনিয়নের ১,২,৩ ওয়ার্ডের মেম্বার মোসাম্মৎ আলেয়া বেগম, হাইতকান্দি, ওয়াহেদপুর, সাহেরখারী ইউনিয়নের (আসন-৬) জন্য ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের ৪,৫,৬ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার সাহানা বেগম ও সাহেরখালী ইউনিয়নের ৪,৫,৬ ওয়ার্ডের মেম্বার সাহারা বানু উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। আগামী ১৫জুন উপজেলা ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার নির্বাচিত ৫৪জন মহিলা মেম্বার ও মহিলা কাউন্সিলরা প্রত্যক্ষ ভোট দিয়ে মহিলা সদস্য নির্বাচিত করবেন।

উপজেলা আওয়ামীলীগ ও বিএনপির একাধিক নেতা সাথে কথা বলে জানান গেছে, ১ নন্বর আসনে বিএনপি সমর্থক প্রার্থী ফারজানা আক্তার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ২ নন্বর আসনে বিএনপি সমর্থক প্রার্থী তাহমিনা আক্তার (টেবিল) ও আওয়ামীলীগ সমর্থক প্রার্থী মনোয়ারা বেগম (হরিণ), ৩ নন্বর আসনে আওয়ামীলীগ সমর্থক প্রার্থী আলেয়া বেগম (হরিণ) ও বিএনপি সমর্থক প্রার্থী শামীমা ইয়াসমিন মোরগ), ৪ নন্বর আসনে বিএনপি সমর্থক প্রার্থী দেল আফরোজ বেগম (চাঁদ), আওয়ামীলীগ সমর্থক প্রার্থী রিজিয়া বেগম টেবিল) ও হাছনা আক্তার (মোরগ), ৫ নন্বর আসনে আওয়ামীলীগ সমর্থক প্রার্থী জাহানারা বেগম (হরিণ) ও বিএনপি সমর্থক প্রার্থী আলেয়া বেগম (মোরগ), ৬ নন্বর আসনে আওয়ামীলীগ সমর্থক প্রার্থী সাহানা বেগম (মোরগ) ও সাহারা বানু (হরিণ) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। গত ৩১ মে প্রার্থীদের জন্য নির্বাচনের প্রথীক বরাদ্দ দেয়া হয়। প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে প্রার্থীরা পুরোদমে প্রচারনায় নেমে পড়েন। নির্বাচনে নিজেদের বিজয় নিশ্চিত করতে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা।

৫ নন্বর আসনে আওয়ামীলীগ সমর্থক প্রার্থী জাহানারা বেগম (হরিণ) জানান, তিনি মায়ানী ইউনিয়ন পরিষদের পরপর তিনবার মহিলা মেম্বার হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচন এবার প্রথম। ভোটারও সীমিত সংখ্যক। নির্বাচনে দলীয় পরিচয় বড় কথা নয়। নির্বাচিত হয়ে জনগনের জন্য কাজ করা বড় কথা। তবে এ নির্বাচন প্রতিদ্বন্দিতামূলক হবে বলে ধারণা করছেন। নির্বাচনে জয়লাভ করবেন বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

উপজেলা পরিষদের মহিলা সদস্য নির্বাচন নিয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগ ও বিএনপির নেতাদের কেউ প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলছেন না। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির এক নেতা বলেন, নির্বাচনে তারা তাদের প্রার্থীদের বিজয় দেখতে দলের সমর্থক হিসেবে পরিচিত মেম্বার ও কাউন্সিলদের ভোট নিশ্চিত করবেন।

মিরসরাইয়ের একাধিক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে জানান গেছে, ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌর সভায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপি সমর্থক মহিলা মেম্বার ও কাউন্সিলর প্রায় উনিশ বিশ। তাই প্রার্থীদের মধ্যে হাড্ডাহাডি লড়াই হবে। প্রার্থীদের ৪-৫ ভোট ব্যবধানে জয় পরাজয় নির্ধারণ হবে। তবে কারা উপজেলা পরিষদের প্রথম সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত হচ্চেন তা দেখতে ১৫ জুন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

মতামত