টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চান্দিনায় পেট্রোল বোমা হামলা: অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানলো মিরসরাইয়ের রনজিত শর্মা

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি

Mirsarai-Ronojit-Shorma-Picচট্টগ্রাম, ১২ জুন (সিটিজি টাইমস): জীবনযুদ্ধে টানা ১০ দিন পাঞ্জা লড়ার পর অবশেষে মৃত্যুর কাছে হেরে গেলেন অবসরপ্রাপ্ত কলেজ শিক্ষক মিরসরাইয়ের রনজিত শর্মা (৫৯)। রনজিত শর্মা ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার রাত ৩টায় মারা যায়। তার মৃত্যুতে শোকে স্তব্ধ এলাকার মানুষ। তিনি উপজেলার ১৬নম্বর সাহেরখালী ইউনিয়নের পশ্চিম সাহেরখালী গ্রামের রজনীকান্ত শর্মা বাড়ির হরি মোহন শর্মার পুত্র।

রনজিত শর্মার ভাতিজা সাধন শর্মা জানান, গত ২ জুন রাতে কুমিল্লার চান্দিনায় বাসে ‘নাশকতার’ ঘটনায় দগ্ধ হওয়ার দশ দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে রনজিত শর্মার মৃত্যু হয়। রনজিত শর্মার শরীরের ৪৪ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় তার মরদেহ গ্রামের বাড়িতে আনা হবে। সেখানে তাকে দাহ করা হবে। এক সময় রাঙ্গামাটি সরকারি মহিলা কলেজের গণিত বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন রণজিৎ শর্মা। রনজিত শর্মার ১ ছেলে ও ১ মেয়ে। দুইজনই কলকাতায় থাকে। পিতার অগ্নিদগ্ধতার কথা শুনে ছুটে এসেছেন কলকাতা থেকে।

এক পুত্র ও এক কন্যার বাবা রনজিৎ ২০১৪ সালে রাঙামাটি সরকারি মহিলা কলেজ থেকে অবসরে যান। ঢাকা শিক্ষা অধিদপ্তরে পেনশন সংক্রান্ত কাজ শেষে ২ জুন শবে বরাতের রাতে ফিরছিলেন তিনি।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লায় চান্দিনায় তাদের বহনকারী ইউনিক পরিবহনের বাসে বাসে পেট্রোল বোমা ছোড়ে সন্ত্রাসীরা। নাশকতায় ঘুমন্ত রনজিত শর্মা সহ পাঁচ যাত্রী দগ্ধ হন, আহত হন আরও তিনজন।

রনজিতের চলে যাওয়ার মধ্যে দিয়ে পেট্রোল বোমা পুড়ে মরে যাওয়ার যন্ত্রণা যেন হার মেনেছে ১০দিনের জীবন যুদ্ধকে। ঘটনার দিন কোন রাজনৈতিক কর্মসূচি ছিল না। তাই তাদের উপর যেন বিনা মেঘে বজ্র পড়ার মতো হয়েছে।

 

মতামত