টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

“চ্যালেঞ্জ” নিয়ে ঢাকায় ভারত

Bangladesh-vs-South-Africa-spচট্টগ্রাম, ০৮ জুন (সিটিজি টাইমস) ::  ঘড়িতে সকাল নয়টা বাজতেই হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে পা রেখেছেন বিরাট কোহলিরা। গতকাল তাদের প্রধানমন্ত্রী ফিরে গেছেন বন্ধুত্বের স্মৃতি নিয়ে। আর আজ তারা আসলেন একরাশ ‘ ক্রিকেটীয় চ্যালেঞ্জ’ সঙ্গে করে।

টাইগাররা বছরের শেষ দিকে দক্ষিণ আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়ার মতো দলের মুখোমুখি হবে। তার আগে উপমহাদেশের ত্রাস ভারতকে কতটুকু সামলানো যায় তা দেখতে মুখিয়ে রয়েছে বিশ্ব। চ্যালেঞ্জটা শুধু এ কারণেই নয়। লোকে বলছে এখন বাংলাদেশ ক্রিকেটের স্বর্ণযুগ চলছে। তুলনামূলক সফল একটা বিশ্বকাপ পার করে এসে পাকিস্তানকে নাজেহাল করে ছেড়েছেন সাকিবরা। এমন সময়ে ভারতকে একটু নাড়িয়ে দিতে পারলে নিজেদের ‘বীরত্ব’ প্রতিষ্ঠিত হবে স্থায়ী হবে। তাছাড়া বিশ্বকাপ কোয়ার্টারের সেই ম্যাচের হিসাব-নিকাশ তো রয়েছেই।

বাংলাদেশ জানে ভারতকে ‘ধাক্কা দেয়া’ অতটা সহজ হবে না। টেস্টে সাতবারের দেখায় ছয়বারই বাজেভাবে হেরেছে বাংলাদেশ। একবার বৃষ্টির কল্যাণে ম্যাচ ড্র হয়। আর ওয়ানডেতে জয় বলতে তিনটি। তাছাড়া এবার ওরা হরভজনের মতো স্পিনার নিয়ে আসছে, সেই সঙ্গে দলে আছে ১৫০ কি.মি গতিতে বল করতে পারা পেসার।

এমন একটি দলের বিপক্ষে বাংলাদেশের গেমপ্লান সাজাতে হিমশিম খেতে হবে, সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। পরিস্থিতি হয়েছে ‘শাঁখের করাতে’র মতো। এদিকেও কাটার ভয়, ওদিকেও কাটার ভয়! স্লো উইকেট বানালে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা যা করতে পারবেন, তা ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ভারতের। আবার স্পোর্টিং উইকেট বানালে তারাও টাইগারদের চেয়ে ভালো করতে পারে। এটা কিন্তু কথার কথা নয়। ২০১৪ সালের কথা যাদের মনে আছে, তারা বিষয়টি মেনে নিচ্ছেন। সেবার বাংলাদেশ ভারতের জন্য বাউন্সি উইকেট বানিয়েছিল। টাইগার পেসাররা কোহলিদের গুটিয়ে দেন মাত্র ১০৫ রানে। আশায় বুক বাধল বাংলাদেশ। কিন্তু হায়, ব্যাট করতে নেমে ৫৮ রানে আলআউট মুশফিকরা!

এসব দিক বিবেচনা করে বিসিবি চাইছে ‘নাই মামার চেয়ে কানা মামা’ নীতি অবলম্বন করতে। অর্থাৎ ফ্লাট-উইকেট হোক; দুই দলই খেলুক। টেস্ট ড্র হোক।

এদিকে ওয়ানডেতে বাংলাদেশ ‘ভাল’ করতে চাইলেও সেই ভালোটা যে কী তা কেউ মুখে বলছেন না। তবে বিসিবি পাড়ায় পা রাখলে হাবভাব দেখে বোঝা যায়, আগে অন্তত একটি ম্যাচ জিততে চায় বাংলাদেশ। পরেরটা পরে দেখা যাবে। বাংলাদেশ এই মুহূর্তে একটি ম্যাচে জয় পেলে র‌্যাংকিংয়ে উঠে যাবে সাত নম্বরে। পেছনে পড়বে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

আজ ঢাকায় পৌঁছানোর পর ভারত চলে যাবে ফতুল্লা স্টেডিয়ামে, ১০ জুন যেখানে একমাত্র টেস্ট খেলবে দুই দল। সকালে বাংলাদেশেরও প্রকাটিস রয়েছে ওখানে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত