টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মৌসুমী ফলের সেরা বাজার মিরসরাইয়ের করেরহাট

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 

karerhat-fruit-Market-pic-1চট্টগ্রাম, ৩১  মে (সিটিজি টাইমস) :  মৌসুমী ফলের জন্য মিরসরাইয়ে সেরা বাজার হচ্ছে করেরহাট। ভৌগলিকভাবে বিস্তীন্ন পাহাড়ী জনপদে সমৃদ্ধতার কারণে এ বাজারে পাহাড়ি এলাকায় প্রচুর মৌসুমী ফল আম, কাঁঠাল, জাম, আনারস, লেবু, পেয়ারার জন্য এই বাজারের সুখ্যাতি ব্যাপক। এবার ও সকল ফলের বাম্পার ফলন হয়। ফলে জ্যৈষ্ঠ মাসের আগেই করেরহাট বাজারে বসে যাচ্ছে বিশাল আম-কাঁঠালের হাট। মিরসরাইয়ের সর্ব উত্তরে অবস্থিত এই বাজারে সপ্তাহে দুইদিন রবি ও বুধবার বসে আম-কাঁঠালির বড় হাট। প্রতি হাটবারে এ বাজারে দশ লক্ষাধিক টাকার ফলের কেনাবেচা হয়। ফেনী, নোয়াখালীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকাররা আসে ফল নানান মৌসুমী ফল ক্রয়ের উদ্দেশ্যে। সড়কপথে যোগাযোগ ও তুলনামূলক কম দামে পাইকারি ক্রয় বিক্রয় হয় বলে করেরহাটে মৌসুমী ফলের হাট জমজমাট থাকে।

উপজেলার করেরহাট ইউনিয়নের বড় একটি অংশ উঁচু-নিচু টিলা আর পাহাড়বেষ্টিত বলে এসব ফল সহজে চাষাবাদ হয় এ এলাকায়। এর মধ্যে গ্রীষ্মকালীন নানা জাতের ফল চাষাবাদ, বাজারজাত ও বিক্রয়ের অন্যতম একটি স্থান হলো মিরসরাই উপজেলার করেরহাট বাজার। একসময় সীমিত আকারে করেরহাট ও এর আশপাশের এলাকায় আম, কাঁঠাল, লিচু, আনারস, জাম্বুরাসহ নানা জাতের মৌসুমি ফল উৎপাদন করা হতো। এখন এসব এলাকার সর্বত্রই আর্থিক উপার্জনের কথা ভেবেই বসতবাড়ির আঙিনা, খোলা পতিত জমি, এমনকি বন্দোবস্তি জমি নিয়ে খাসজমিতে গ্রীষ্মকালীন ফল চাষাবাদ করা হচ্ছে। এভাবে করেরহাট এলাকায় বেশ কয়েকটি ব্যক্তিমালিকানাধীন ফলের বাগান গড়ে উঠেছে। এসব বাগানে বানিজ্যিকভাবে প্রচুর পরিমাণে আম, কাঁঠাল, আনারস, লিচু, পেয়ারা, পেঁপে, ইত্যাদি চাষাবাদ করে বছরে প্রচুর পরিমাণে আয় করা হয়। করেরহাট ইউনিয়নের ফরেষ্ট অফিস, সাইবেনী খিল, ঘেড়ামারা, কালাপানি, বদ্ধ, কয়লাসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রচুর পরিমাণে বিভিন্ন ফলের চাষ হয়। এসব এলাকায় কয়েকশত আম, কাঁঠাল, লেবুসহ বিভিন্ন ফলের বাগান রয়েছে। এছাড়া সাম্প্রতিককালে ব্যক্তিগত উদ্যেগে গড়ে উঠছে লিচু বাগান।

মধুফলের মৌসুমে করেরহাট বাজারের চেহারাই বদলে যায়। বাজারের প্রধান সড়কের দুই পাশে চলে আম, জাম, কাঁঠাল, আনারস, জামরুল ও লিচুর খুচরা-পাইকারি বিক্রেতাদের বিকিকিনি। এলাকাটি তখন একটি মিষ্টিমধুর গন্ধে ভরে যায়। অধিকাংশ সময় বাজারের নির্দিষ্ট স্থানে সংকুলান না হওয়ায় বিক্রেতারা সড়কের ওপরেই ফলে পসরা সাজিয়ে বসে পড়ে। হাটবারের আগের রাত থেকেই বিভিন্ন এলাকা থেকে আম, কাঁঠাল, আনারস নিয়ে বিক্রেতারা বাজারে আসতে থাকে। মূলত পাইকারি বিক্রয় বেশী হলেও খুচরা বিক্রয় পরিমাণও কম নয়। পাইকাররা হাটবার ভোর থেকেই স্থানীয় চাষী ও বিক্রেতাদের কাছ থেকেই ফল সংগ্রহ শুরু করে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে পাইকাররা তাঁদের সংগ্রহ করা ফল নিজস্ব পরিবহনে করে বোঝাই করে নিয়ে যায়। এখানকার কাঁঠাল ফেনী, নোয়াখালি, কুমিল্লা, চাঁদপুর, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে পাইকাররা। এবাজারে কাঁঠালের বিকিকিনি বেশি হলেও আনারস, লেবুর বিক্রয় উল্লেখ করার মতো। আনারস প্রতি হালি ৩০-৪০ টাকা দরে, লেবু প্রতি একশ ১০০-১৫০ টাকা দরে, কাঁচা আম ২০-৩০ টাকা কেজি দরে, পাকা আম ৭০-১০০ টাকা দরে বিক্রয় হয়। এছাড়া কলা, আমলকি, জলপাইসহ নানান ফল কেনাবেচা হয় বছরের অন্যান্য সময়।
বাজারের ব্যবসায়ী শেখ সেলিম বলেন, পুরো উপজেলার মদ্যে মৌসুমী ফলের জন্য বিখ্যাত এ বাজার। স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হওয়ায় এবাজারের প্রায় সব ফলই ফরমালিন তথা বিষমুক্ত। তবে বর্তমান সময়ে বানিজ্যিকভাবে চাষাবাদ শুরু হওয়ায় ফল দ্রুত উৎপাদন ও সংরক্ষণে স্থানীয় চাষীরাও কীটনাশক, রাসায়নিক সার ও ফরমালিন ব্যবহারের দিকে ঝুঁকে পড়ছে।
করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন বলেন, স্থানীয় কৃষকরা যাতে বাজারে নির্বিগ্নে বেচা-কেনা করতে পারে এ জন্য বাজার কমিটির পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার ব্যবস্থা রয়েছে। তবে বাজারের আরো অবকাঠামোগত উন্নয়ন প্রয়োজন বলেন জানান তিনি।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত