টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

খালেদার সঙ্গে ফোনালাপ, কাঁদলেন সালাহ উদ্দিন

bnpচট্টগ্রাম, ২২ মে (সিটিজি টাইমস) : শিলং থেকে মোবাইল ফোনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে দলের যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ কথা বলেছেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে দৈনিক কালের কণ্ঠ।

সালাহ উদ্দিন বর্তমানে শিলংয়ের নিগ্রেহমস (নর্থ ইস্টার্ন ইন্দিরা গান্ধী রিজিওনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ অ্যান্ড মেডিক্যাল সায়েন্সেস) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

হাসপাতালের তৃতীয় তলায় ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটের ১৬ নম্বর বেড থেকে গত বুধবার রাতে তিনি স্ত্রীর মোবাইল ফোন দিয়ে দলীয় প্রধানের সঙ্গে কয়েক মিনিট কথা বলেন।

টেলিফোনে ওপাশ থেকে তিনি (খালেদা জিয়া) ঠিক কী বলেছেন, তা জানা না গেলেও এপাশে কথা বলার একপর্যায়ে সালাহ উদ্দিন কেঁদে ওঠেন।

তিনি বলেন, ‘ম্যাডাম, আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি তো আল্লাহর রহমতে বেঁচে আছি…।’

সালাহ উদ্দিনের শয্যার পাশের শয্যায় চিকিৎসাধীন মেঘালয়ের গাঢ়হিলসের তুরাগ গ্রামের বাসনী রানী এসব তথ্য জানান বলে জানায় কালের কণ্ঠ।

বাসনী রানীর ভাষ্য মতে, ‘যেহেতু আমার বাড়ি বাংলাদেশে ছিল, তাই আমি সে দেশের অনেক লোককে চিনি। কাল রাতে পুলিশ যখন সালাহ উদ্দিন আহমেদকে নিয়ে এসেছিল, তখন সাবেক মন্ত্রী বলে সবাই তাকে সম্মান করছিল। তাই তার দিকে নজর ছিল সবার। রাতে স্ত্রী হাসিনা আহমেদের মোবাইল ফোন থেকে কথা বলার সময় তিনি কয়েকবারই জি ম্যাডাম, জি ম্যাডাম করে কথা বলেন। হাসিনা আহমেদই তার স্বামীকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে কথা বলতে বলেন।’

তবে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ফোনালাপের বিষয়ে হাসিনা আহমেদ, শিলংয়ে উপস্থিত তাদের স্বজন, এমনকি বিএনপির সহ-দপ্তরর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনিও কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

নিগ্রেহমস হাসপাতাল সূত্রকে উদ্ধৃত করে কালের কণ্ঠ জানায়, সালাহ উদ্দিনের শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে। এ কারণে যে কোনো সময় তাকে এ হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হতে পারে। যদিও গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সালাহ উদ্দিন হাসপাতালের ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটেই (সিসিইউ) ভর্তি ছিলেন।

নিগ্রেহমস হাসপাতালের হার্ট, স্কিন, সার্জন ও নিউরোলজি বিভাগের চারজন জ্যেষ্ঠ চিকিৎসককে নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় হাসপাতালের ১২ নম্বর মেডিকেল সুপারের কক্ষে গুরুত্বপূর্ণ বোর্ড মিটিং হয়। সেখানে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সালাহ উদ্দিনের যাবতীয় মেডিকেল রিপোর্ট পর্যালোচনা করে একটি রিপোর্ট প্রকাশের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আজ শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিকদের সেই রিপোর্ট দেওয়া হবে।

নিগ্রেহমসের ভারপ্রাপ্ত মেডিকেল সুপার ডা. ভাস্কর বর্গহাইন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘চারটি বিভাগের চিকিৎসকদের ডেকে আনা হয়েছিল, সবার সঙ্গে কথা হয়েছে। সালাহ উদ্দিনের বিষয়টি যেহেতু পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে যুক্ত তাই বিষয়টি আমরাও দীর্ঘ করতে চাই না। যত দ্রুত সম্ভব তাকে ছেড়ে দেওয়া যায় কি না, সেটা বোর্ডে উপস্থিত চিকিৎসকদের প্রত্যেকের কাছে মতামত চাওয়া হয়েছে। তারা শুক্রবার দুপুরের মধ্যেই তাদের পরামর্শ দেবেন। এর পরই তাকে ছেড়ে দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।’

চিকিৎসকরা সুস্থ বলে প্রতিবেদন দিলে এবং আজ সালাহ উদ্দিনকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হলে পুলিশ অনুপ্রবেশের মামলায় তাকে আদালতে তোলার উদ্যোগ নেবে। তবে শনি ও রবিবার আদালত বন্ধ থাকে। সে ক্ষেত্রে আগামী সোমবার তাকে আদালতে তোলা হতে পারে।

সালাহ উদ্দিনের মামলাটি আদালতে উঠলে সরকারপক্ষের কৌঁসুলি হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার সম্ভাবনা আছে আই সি ঝার। তিনি মেঘালয় হাইকোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি)।

তিনি জানান, বৈধ কাগজপত্র না থাকায় ভারতীয় আইনে সালাহ উদ্দিন আহমেদ অনুপ্রবেশের মামলায় অভিযুক্ত হবেন। এ মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। সঙ্গে অর্থদণ্ডও হতে পারে। সে ক্ষেত্রে অনাদায়ে আরো সর্বোচ্চ ১৫ দিন পর্যন্ত জেল খাটতে হতে পারে।

সালাহ উদ্দিন ও তার পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, তাকে অপহরণ করে ভারতে আনা হয়েছে, সে ক্ষেত্রে মামলা পরিচালনার বিষয়টি কিভাবে দেখা হবে- এ প্রশ্নের জবাবে আই সি ঝা বলেন, কাউকে অপহরণ করে আনা হলে নিশ্চয়ই দেশে এ ব্যাপারে তার পক্ষে অন্য কেউ অপহরণের মামলা করেছে। আদালতে এ ব্যাপারে কাগজপত্র দাখিল করতে হবে। তারপর মামলার বিষয়টি যাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। সেখান থেকে যাবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। পুরো বিষয়টি লম্বা প্রক্রিয়ার বিষয়। তবে বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারলে অনুপ্রবেশের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়ে সাজা খাটতেই হবে। সাজার মেয়াদ শেষে আসবে পুশব্যাকের প্রশ্ন।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত