টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সিসিসির স্বাস্থ্য বিভাগের ‘সুনাম’ ফেরাতে চান নাছির

চট্টগ্রাম, ২০ মে (সিটিজি টাইমস) :: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগের সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে সুনাম পুনরুদ্ধার করতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নবনির্বাচিত মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

বুধবার নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউটে সিসিসির স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় একথা জানান তিনি।

নাছির বলেন, “চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (সিসিসি) স্বাস্থ্য বিভাগ এক সময দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে স্বাস্থ্য সেবায় অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত ছিল। দুঃখজনক হলেও সত্য বিদায়ী মেয়রের অবহেলায় এ খাত তার সুনাম হারিয়েছে।”

স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দলাদলি ও কোন্দল ছেড়ে দিয়ে সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান তিনি।

সিসিসির বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ধারাবাহিক বৈঠকের অংশ হিসেবে স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসক-কর্মচারীদের সঙ্গে সভায় বসেন নতুন মেয়র।

কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরেন সভায়। মেয়রও পর্যায়ক্রমে তা সমাধান করার প্রতিশ্রুতি দেন।

সিসিসির স্বাস্থ্য বিভাগের অধীনে ছয়টি মাতৃসদন হাসপাতাল, একটি জেনারেল হাসপাতাল, ২০টি দাতব্য চিকিৎসালয়, একটি খতনা কেন্দ্র, একটি হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ, নয়টি হোমিওপ্যাথিক দাতব্য চিকিৎসালয় ও দুটি মেডিকেল হেলথ ইনস্টিটিউট রয়েছে।

এছাড়া সিসিসির আরবান হেলথ কেয়ার প্রকল্পের অধীনে নগরীজুড়ে ৩৬টি স্বাস্থ্য সেবাকেন্দ্র ও দুটি মাতৃসেবা কেন্দ্র ছিল।

এডিবির অর্থায়নে পরিচালিত প্রকল্প মেয়াদ ২০১২ সালে শেষ হওয়ার পর ৩৮টি কেন্দ্রই বন্ধ হয়ে যায়। এ প্রকল্পের ৩১৮ কর্মকর্তাকে সিসিসির বিভিন্ন বিভাগে আত্মীকরণ করা হয় সাবেক মেয়র মনজুর আলমের মেয়াদে।

বুধবারের সভায় চিকিৎসকরা অভিযোগ করেন, গত মেয়রের মেয়াদে তাদের বেতন ৩০ হাজার টাকা থেকে কমিয়ে ১৫ হাজার টাকা করা হয়।

মোস্তফা হাকিম হেলথ সেন্টারের চিকিৎসক নাসিম মোহাম্মদ তিন মাস ধরে তাদের কোনো অ্যাম্বুলেন্স না খাকার কথা জানান।

এর জবাবে সিসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সেলিম আখতার চৌধুরী বলেন, “আমাদের ছয়টি মাত্র অ্যাম্বুলেন্স আছে। এর মধ্যে তিনটিই নষ্ট। মেরামতের জন্য যান্ত্রিক বিভাগের দিকে তাকিয়ে খাকতে হয়।”

এসব শুনে মেয়র নাছির বলেন, “আপনারা যে সমস্যার কথা বললেন, সেসব রাতারাতি সমাধান করা যাবে না। তবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পর্যায়ক্রমে তা সমাধান করা হবে।”

সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী শফিউল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান সায়েদ গোলাম হায়দার চৌধুরী মিন্টু, সিসিসির সচিব রশিদ আহমদ ও প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. সেলিম আখতার চৌধুরী।

মতামত