টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

গ্রেপ্তারের ২১ ঘণ্টার মধ্যে সেই আওয়ামী লীগ নেতার জামিন

aচট্টগ্রাম, ১৪ মে এপ্রিল (সিটিজি টাইমস) :: চাঁদাবাজির মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া কর্ণফুলী থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম প্রকাশ জাহাঙ্গীর মেম্বার জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গত বুধবার দুপুুরে পটিয়া থানা পুলিশ তাকে পৌরসদরের পোস্ট অফিস আদালত গেইট এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে পটিয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তাকে হাজির করা হলে চাঁদাবাজির দুটি মামলায় জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। জামিন মঞ্জুর হওয়ার খবরে পটিয়ার শিকলবাহা ও মইজ্জ্যারটেক এলাকায় আনন্দ মিছির বের করে তার অনুসারীরা।

এদিকে জাহাঙ্গীর মেম্বারের গ্রেপ্তারের খবরে গত বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের মইজ্জ্যারটেক এলাকায় তার সমর্থকরা অবস্থান নিয়ে ব্যারিকেট সৃষ্টি করলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে মহাসড়কের শত শত যান বন্ধ হয়ে হাজার হাজার মানুষকে দুর্ভোগে পড়তে হয়। রাত ১২টার সময় অবরোধ প্রত্যাহার করে নিলে মহাসড়কের যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

স্থানীয় ও থানা সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ মে পটিয়া উপজেলার শিকলবাহা ২২৫ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে পাথর সরবরাহ নিয়ে আওয়ামীলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলমের সমর্থিতদের সাথে পটিয়ার এমপি সামশুল হক চৌধুরীর ছোট ভাই মজিবুল হক চৌধুরী নবাবের সাথে মারামারির ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় পটিয়ার এমপি শামসুল হক চৌধুরীর ছোট ভাই নবাব বাদি হয়ে জাহাঙ্গীর আলম প্রকাশ জাহাঙ্গীর মেম্বারকে আসামি করে একটি চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়।

গত বুধবার দুপুরে জাহাঙ্গীর মেম্বার পটিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে জায়গা জমির একটি মামলায় হাজিরা দিতে আসলে এমপির ভাই নবাবের করা চাঁদাবাজির মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করে পটিয়া থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার পটিয়া সিনিয়র জুডিশিয়ার ম্যাজিষ্ট্রেট হারুন-অর-রশিদের আদালতে হাজির করা হলে বাদি ও আসামি পক্ষের যুক্তি উপস্থাপনের পর তার জামিন মঞ্জুর করে আদালত।

বাদি পক্ষে এডভোকেট মো. এনাম ও এডভোকেট নুরু মিয়া এবং আসামি পক্ষে এডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান, এডভোকেট রফিক আহমদ, এডভোকেট ফোরকান উদ্দীন, এডভোকেট জসীমউদ্দীন শুনানীতে অংশ নেন।

পরে জামিনে মুক্তি পাওয়া আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলমকে ফুল দিয়ে বরণ করেন নেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- কর্ণফুলী থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমদ, সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলী রণি, থানা যুবলীগ সভাপতি দিদারুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সোলায়মান তালুকদার, যুবলীগ নেতা আবদুল মান্নান প্রমুখ।

পরে কর্ণফুলী থানা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জাহাঙ্গীর আলম মেম্বারকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ নেন এবং মোটর সাইকেল শোডাউন করে নিয়ে যায়।

আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলমের পক্ষের আইনজীবি এডভোকেট জসিম উদ্দীন বলেন, ‘জাহাঙ্গীর আলম মেম্বারকে পটিয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আনা হলে দুটি মামলায় আমরা তার জামিন প্রার্থনা করি। মহামান্য আদালত সকল কাগজপত্র দেখে জামিন মঞ্জুর করেন।’

মতামত