টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সালমানের সাজা স্থগিত, আত্মসমর্পণের নির্দেশ

binoচট্টগ্রাম, ০৮ মে এপ্রিল (সিটিজি টাইমস) : সালমনের ৫ বছরের শাস্তি কার্যকর স্থগিত রাখার নির্দেশ দিলেন মুম্বাই হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে জামিনের আবেদন করতে হলে আগে সালমানকে আত্মসমর্পণ করতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন আদালত। যেহেতু আজ শুক্রবার তার অন্তর্বর্তী জামিনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে তাই জামিনের জন্য তাকে নতুন করে আবেদন করতে হবে। ব্যক্তিগত ৩০ হাজার টাকার বন্ডে জামিন দেওয়া হবে তাকে।

শুক্রবার সালমানের পক্ষে আইনি লড়াই করেন আইনজীবী অমিত দেশাই। আদালতে তার বক্তব্য ছিল, দুর্ঘটনার সময় সালমানের গাড়িতে ছিলেন তার বন্ধু কমল খান। কিন্তু, মামলা চলাকালীন কমল খানকে জিজ্ঞাসাবাদ করেনি দায়রা আদালত। কমল খান এখন বিদেশে রয়েছেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে মুম্বাই হাইকোর্ট। তার আগে পর্যন্ত বহাল থাকবে সালমানের জামিন।

গত ৬ মে বুধবার মুম্বাইয়ের স্থানীয় দায়রা আদালত পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয় সালমান খানকে। সেদিনই দায়রা আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মুম্বাই হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেন সালমানের আইনজীবী অমিত দেশাই। শুক্রবার হাইকোর্টে সেই আবদনের শুনানি ছিল।

আইনজীবী বলেন, গাড়ির মধ্যে থাকা চতুর্থ ব্যক্তির উপস্থিতি এড়িয়ে গিয়েছে দায়রা আদালত। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি তাকে। দুর্ঘটনার সময় গাড়ির গতি ৯০-১০০ কিলোমিটাররে মধ্যে ছিল বলেও জানান অমিত দেশাই। সেই সঙ্গে সালমানই যে গাড়ি চালাচ্ছিল সেই বিষয়ে দায়রা আদালতে প্রমাণ হয়নি বলেও দাবি করেন অমিত দেশাই।

২০০২ সালের ২৮ সেপ্টেম্বরের রাতে বান্দ্রার ফুটপাথে ঘুমন্ত পাঁচজনকে চাপা দেয় সালমানের বিলাসবহুল এসইউভি। সেই দুর্ঘটনায় মারা যান নুরুল্লাহ মেহবুব শরিফ নামে এক ব্যক্তি। আহত হন আরো চারজন। দীর্ঘ তেরো বছরের আইনি লড়াইয়ের পর বুধবার বলিউড তারকা সালমানকে দোষী সাব্যস্ত করে মুম্বাই দায়রা আদালত। বিচারক ডি ডাব্লিউ দেশপাণ্ডে সালমান খানের পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং জরিমানার নির্দেশ দেন। হাইকোর্টে সালমানের হয়ে আপিল করেন ভারতের খ্যাতনামা আইনজীবী হরিশ সালভে।

হাইকোর্টের রায়ে সালমান স্বস্তি পেলেও ভারতজুড়ে শুরু হয় তোলপাড়। প্রশ্ন ওঠে, সালমান খানের মতো ব্যক্তি অভিযুক্ত বলেই কি এত সক্রিয় বিচার ব্যবস্থা? এই প্রশ্ন তুলে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করা হয়।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত