টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চবিতে ছাত্রলীগের সমঝোতা বৈঠক পণ্ড, একপক্ষকে ধাওয়া

cu-slচট্টগ্রাম, ৩০ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস)::  চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষের পর সমঝোতা বৈঠকও পণ্ড হয়ে গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এক পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে বসলেও অপর পক্ষ তাতে যোগ দিতে আসার সময় ধাওয়া দিয়ে তাদেরকে ক্যাম্পাস ছাড়া করা হয়।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকাল সোয়া ৫টার দিকে ছাত্রলীগের বগি ভিত্তিক সংগঠন সিক্সটি নাইনকে নিয়ে বৈঠকে বসে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ওই বৈঠকে ছাত্রলীগের বগি ভিত্তিক আরেক সংগঠন ‘বাংলার মুখ’ যোগ দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তাদেরকে ধাওয়া দিয়ে বের করে দেয় সিক্সটি নাইন গ্রুপ।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে শাটল ট্রেনের সিটে বসাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের বগিভিত্তিক সংগঠন সিক্সটি নাইন ও বাংলার মুখের কর্মীদের মধ্যে কথাকাটাকটির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনা ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষ দেশিয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আবুল খায়েরসহ বাংলার মুখের ৫ জন কর্মী আহত হয়। তাদের মধ্যে ২ জনের অবস্থা গুরুতর। এ সময় পুলিশ উভয় গ্রুপকে সরিয়ে দিলে বাংলার মুখ স্টেশনে অবস্থান নেয় এবং সিক্সটি নাইন হলে অবস্থান নেয়।

পরে বিকাল ৪টায় শহর ছেড়ে যাওয়া শাটল ক্যাম্পাসে পৌঁছালে, সাড়ে ৫টার দিকে আবার দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

বাংলার মুখের ১ কর্মীসহ সিক্সটি নাইনের ২ কর্মী আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ ২রাউন্ড টিয়ারসেল ছোড়ে। সংঘর্ষ পরবর্তীতে একটি রামদা উদ্ধার করে। তবে কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

আহতরা হলেন বাংলার মুখের কর্মী নৃবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মীর, মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রায়হান, নৃবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তাজুল, আরিফুল ইসলাম ইসলামের ইতিহাস ৩য় বর্ষ, নজরুল হোসেন নৃবিজ্ঞান ৩য় বর্ষ ও মাসুদ। এছাড়া সিক্সটি নাইন গ্রুপের সাজিদ ও জাহিদ। আহতদের মধ্যে পাঁচজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে।

চবি ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক এবং সিক্সটি নাইন নেতা এম মনসুর  জানান, বিনা উস্কানিতে বাংলার মুখের কর্মীরা আমাদের উপর হামলা চালায়। এতে আমাদের ৩ জুনিয়র ভাই আহত হয়।

এ ব্যাপারে বাংলার মুখ নেতা সৌমেন পালিত  জানান, কোন কারন ছাড়াই সিক্সটি নাইন কর্মীরা আমাদের উপর হামলা করেছে। আমাদের ৫ জনকে কুপিয়ে জখম করেছে। আমরা নাসির ভাইয়ের কাছে যাচ্ছি দেখি কি হয়।

এ ব্যাপারে হাটহাজারী থানা ইনচার্জ ইসমাইল জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে । এতে চবি পুলিশ ফাড়ির ইনচার্য আবুল খায়ের আহত হয়েছে।

 

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত