টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ভোট ‘কারচুপি’ তদন্তের আহ্বান জাতিসংঘের

UNচট্টগ্রাম, ২৯ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস)::  তিন সিটি (ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম) নির্বাচনে বিএনপির তোলা ভোট কারচুপির অভিযোগ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। নিউইয়র্কের জাতিসংঘ সদর দফতরে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকালে আয়োজিত নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান সংস্থাটির মহাসচিব বান কি মুনের ডেপুটি মুখপাত্র ফারহান হক।

তিনি বলেন, ‘ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে ভোট কারচুপি ও জালিয়াতির অভিযোগে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের নির্বাচন বয়কটের বিষয়টি জাতিসংঘ মহাসচিব অবগত। তাই বিএনপির সকল অভিযোগ দ্রুত তদন্ত হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন বান কি মুন।’

নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত সিটি নির্বাচন প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে এর গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে জাতিসংঘের অবস্থান কী- এমন প্রশ্ন করেন বাংলাদেশী এক সাংবাদিক। প্রশ্নটি ছিল ‘বাংলাদেশের সিটি নির্বাচনের আগে তা অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের জন্য সরকারসহ সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশে একটি বিবৃতি দিয়েছিল জাতিসংঘ। আজ স্থানীয় (বাংলাদেশ) সময় বিকেল ৪টায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। আমরা তার প্রতিফলন দেখেছি। উল্টো গণমাধ্যমকে ভোটকেন্দ্রে যেতে বাধা প্রদান, ব্যালট পেপার ছিনতাই ও কেন্দ্র দখল করে ভোট কারচুপির ঘটনাও ঘটেছে। জাতীয় দৈনিক যুগান্তরের সাংবাদিক ওবায়দুলসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার কর্মীরা নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। পোলিং ও প্রিসাইডিং অফিসারদেও বের করে দিয়ে অথবা জিম্মি করে জালভোট প্রদান করা হয়েছে, যা গণমাধ্যমেও এসেছে। সাংবাদিকরা সরকার সমর্থক কর্মী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাত থেকেও রেহাই পাননি। সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে বিভিন্ন কেন্দ্রে সাংবাদিকরা নাজেহাল হয়েছেন। ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য নির্বাচনে ভোট কারচুপি, সহিংসতার বিষয়ে তাদের হতাশা ব্যক্ত করেছে। এ বিষয়ে জাতিসংঘের অবস্থান কী?’

জবাবে ফারহান হক বলেন, ‘বাংলাদেশের সিটি নির্বাচনে সুষ্ঠু ভোট না হওয়ায় গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। তাই বিষয়টি দ্রুত তদন্তের প্রয়োজন। আর এ জন্য গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে অনুসরণ করা জরুরী। শান্তিপূর্ণ উপায়ে সমস্যা সমাধানের পথে অগ্রসর হতে বাংলাদেশের সরকার ও রাজনৈতিক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব।’

এদিকে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি সংসদ নির্বাচনের পর বাংলাদেশের রাজনীতিতে দীর্ঘদিনের অচলাবস্থা ও সংঘাত থেকে বেরিয়ে আসতে তিন সিটি নির্বাচনকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনায় নিয়েছিল আন্তর্জাতিক মহল। এরই ধারাবাহিকতায় টানা অবরোধ ও হরতাল থেকে বেরিয়ে সিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর প্রচারে মাঠে নামায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে অভিনন্দনও জানিয়েছিলেন বিশ্ব নেতারা।

যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ ও জাতিসংঘ বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে বড় দুই দলকে আগে থেকেই তাগিদ দিয়ে আসছিল। কিন্তু তা না হওয়ায় তারা আশা করছিল সিটি নির্বাচনকে ঘিরে সরকার যে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার কথা বলছে তা প্রতিষ্ঠা করতে পারবে। বস্তুত তা ঘটেনি।

মতামত