টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামে উভয় শিবিরেই জাল ভোটের ছড়াছড়ি

ccচট্টগ্রাম, ২৮ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে জাল ভোট পড়েছে। এ নিয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার পর একটি কেন্দ্রে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন।

মঙ্গলবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হলেও ভোটাররা ভোট দিতে না পারার এসব অভিযোগ করেন। প্রশাসন বিষয়টিকে নজরে না নিয়ে ভোটগ্রহণ অব্যাহত রাখলে এসব কেন্দ্রে এক পর্যায়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর চান্দগাঁও এলাকার এমএমসি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর কাট্টলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুলগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিএসআইআইআর ল্যাবরেটরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ফিরিঙ্গিবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বাকলিয়া এলাকার চারটি ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা জালভোট দিচ্ছে। দলবেঁধে জোরপূর্বক কেন্দ্রে প্রবেশ করে ব্যালট পেপারে সীল মেরে চলে যাচ্ছে তারা।

এঘটনায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার পর নগরীর কুলগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। অন্য কোন কেন্দ্রে এখনো পর্যন্ত কোন রকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। ভোটগ্রহণ চলছে এসব কেন্দ্রে। এ নিয়ে ভোটারদের মাঝে উত্তেজনা ক্রমেই বাড়ছে।

কুলগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটার আহমদ ছাফা (৪২) অভিযোগ করেন, সকাল ৮টায় ভোট দিতে গিয়ে দেখি ভোট দেওয়া হয়ে গেছে। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে আইন শৃঙ্খলার দায়িত্বে নিয়োজিত পুলিশ জোর করে কেন্দ্র থেকে আমাকে বের করে দেয়। এভাবে আরও কয়েকজনকে বের করে দেওয়ার পর কেন্দ্রে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এ সময় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর হাতি প্রতিকের সমর্থনে থাকা লোকজন আমাদের মারধর করে। ফলে একপর্যায়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।

কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মকর্তা (এসআই) পুলক দাশ জানান, ভোটারদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষে রুপ নেওয়ার মত অবস্থার সৃষ্টি হলে নিয়োজিত ম্যাজিস্ট্রেট ১৪৪ ধারা জারি করে। ফলে এখন পর্যন্ত ভোটগ্রহণ বন্ধ রয়েছে।

একইভাবে বিএসআইআইআর ল্যাবরেটরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাল ভোট প্রদানের প্রমাণ পাওয়া গেছে। কেন্দ্রের তিনটি বুথের প্রতিটিতে পোলিং অফিসারের হাতে থাকা ব্যালট পেপারে হাতি প্রতিকে সীল মারা দেখা গেছে। যা বিভিন্ন টিভি ক্যামেরা ও গণমাধ্যম কর্মীরা ক্যামেরায় ধারণ করে রেখেছে।

নগরীর বউত্তর কাট্টলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কমলালেবু প্রতিকে জাল ভোটের ছড়াছড়ি চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। হাতি প্রতিকে জাল ভোট চলছে এমএমসি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বাকলিয়া এলাকার আরো ৪টি কেন্দ্রে জাল ভোট চললেও প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

এছাড়া আগে থেকে সীল মারা নগরীর ১ নম্বর দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের অলি আহমেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র একদল লোক বিশৃঙ্খলার চেষ্টা চালিয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ এ সময় কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে পুলিশ।

জাল ভোটের ছড়াছড়ি রোধে ভোটগ্রহণে নিয়োজিত প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা একরকম অসহায়ত্বের কথা জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে প্রশাসনের যথাযথ সহযোগীতা পাচ্ছে না বলেও জানান তারা।

বিএসআইআইআর ল্যাবরেটরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, কেন্দ্রে ভেতরের চেয়েও বাইরে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছে প্রশাসন। ফলে প্রার্থীর পক্ষের লোকজন কেন্দ্রে প্রবেশ করে জোর করে ব্যালট পেপারে সীল মেরে বীরদর্পে চলে গেছে।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে চট্টগ্রাম হাটহাজারী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আ ফ ম নিজাম উদ্দিন বলেন, মেয়র প্রার্থীর পক্ষের লোকজন কেন্দ্রে এসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে। কিন্তু পুলিশ শক্ত হাতে তা নিয়ন্ত্রণ করছে। যে কেন্দ্র থেকে অভিযোগ আসছে সে কেন্দ্রে পুলিশ ব্যবস্থা নিচ্ছে বলে জানান তিনি।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত