টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চসিক নির্বাচন: জয় পেতে মরিয়া আওয়ামী লীগ-বিএনপি

albd-bnpচট্টগ্রাম, ২৭ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: চসিক নির্বাচন স্থানীয় নির্বাচন হলেও জয় পেতে যেমন মরিয়া আওয়ামী লীগ তেমনি কোনো ধরনের ছাড় না দিয়ে নগর পিতার আসন ধরে রাখতে চায় বিএনপি। চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের শক্ত রাজনৈতিক অবস্থা থাকলেও বিএনপির রয়েছে বড় ধরনের ভোট ব্যাংক।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে প্রচার প্রচারণায় আ জ ম নাছির এগিয়ে থাকলেও নীরব ব্যালট বিপ্লব ঘটাতে পারে বিএনপি।

সরকার দলের লোকজনের হামলা, পুলিশের হয়রানি ও মামলার কারণে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা এতোদিন মাঠে না নামলেও ভোটের দিন পূর্ণ শক্তি নিয়ে তারা মাঠে থাকবেন বলে জামায়াত-বিএনপির একাধিক সূত্রে জানা যায়।এতো দিন তারা আওয়ামী লীগকে ছাড় দিলেও ভোটের দিন ছাড় দিতে নারাজ। যেকোনো ধরনের বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে ভোট কেন্দ্র পাহারা দেয়া এবং ভোট গ্রহণের শেষ পর্যন্ত কেন্দ্র থেকে রেজাল্ট নিয়ে তাদের ঘরে ফেরার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কেউ ভোট কেন্দ্র দখল করতে চাইলে প্রতিরোধ করারও প্রস্তুতি নিয়েছে বিএনপি।

এ বিষয়ে নগর বিএনপির সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান জানান, আগামীকাল পূর্ণশক্তি নিয়ে আমাদের কর্মীরা ভোট কেন্দ্রে থাকবে। কেউ ভোট ডাকাতি করতে আসলে জনগণকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে বিএনপি। গত সরকার বিরোধী আন্দোলনে চট্টগ্রাম বিএনপির নেতাকর্মীরা সক্রিয় ভূমিকা রাখতে না পারায় মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের মধ্যে যে হতাশার সৃষ্টি হয়েছে তাই সিটি নির্বাচনে বিজয়ের মধ্যে দিয়ে কিছুটা তা লাঘব করতে চায় বিএনপি।

এদিকে, টানা তিনবার নগর পিতার আসনে থাকা ৩ বারের মেয়র নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এম মনজুল আলমের কাছে গত ২০১০ সালের সিটি নির্বাচনে প্রায় লক্ষাধিক ভোটে পরাজিত হয়। পরাজয়ের পর নগর আওয়ামী লীগে মধ্যে জন্ম নেয় বিশ্বাস ও অবিশ্বাসের দ্বন্দ্ব। কারণ সেই নির্বাচনে মহিউদ্দিনের পরাজয়ের পেছনে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিল অভ্যন্তরীণ কোন্দল। সেই পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে এবারও প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন মহিউদ্দিন। কিন্তু অভ্যন্তরীণ কোন্দল পরিত্রাণ পেতে মনোনয়ন দেয়া হয় নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনকে। যা চট্টগ্রামবাসীর মতো আওয়ামী নেতাকর্মীকেও হতাশ করেছে।

সব কিছুকে পেছনে ফেলে আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গ-সংগঠন নাছিরকে বিজয়ী করতে মাঠে সক্রিয় হলেও এখনো অনেক নেতাকর্মী রয়েছেন নিস্ক্রিয়। এমতবস্থায় নাছিরকে বিজয়ী করতে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ড থেকে কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়। নাছিরকে বিজয়ী করতে কিছু দিন যাবত চট্টগ্রামে অবস্থান করছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক হাসান মাহমুদসহ একধিক কেন্দ্রীয় নেতা। আওয়ামী লীগ চায় চট্টগ্রামে নাছিরকে বিজয়ী করার মাধ্যমে বিএনপির জ্বালাও পোড়াও রাজনীতির সমুচিত জবাব দিতে।

মতামত