টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সিটি নির্বাচনে লড়ছেন ক্রীড়া সংগঠকরাও

AZMNasir-albdচট্টগ্রাম, ২২ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস): ক্রীড়া সংগঠকরাও দাপটে চষে বেড়াচ্ছেন ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মাঠ। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সহসভাপতি তাবিথ অাউয়াল ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সহ-সভাপতি অা জ ম নাসির উদ্দীন এ তালিকার শীর্ষে আছেন। তবে ক্রীড়াঙ্গনে পরিচিত তবে রাজনৈতিকভাবে তেমন পরিচিত নন এমন বেশ কিছু ক্রীড়াসংগঠকও ঢাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছেন। এদের মধ্যে যেমন রয়েছেন সরকারি দল সমর্থিত প্রার্থী তেমনি ২০ দলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থীও রয়েছেন বেশ কয়েকজন।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে অাওয়ামী লীগের সমর্থনপুষ্ট অা জ ম নাসির উদ্দীন চট্টগ্রামের রাজনৈতিক অঙ্গনে একটি হেভিওয়েট নাম। একইসঙ্গে ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও তিনি সমানভাবে পরিচিত। চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক, ক্রীড়া সংগঠক ফোরামের সহ-সভাপতি, ঢাকার ব্রাদার্স ইউনিয়নের ক্রিকেট কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। ঢাকা এবং চট্টগ্রামে সমানতালে খেলাধুলার বিভিন্ন ইভেন্টের সঙ্গে তিনি সক্রিয়ভাবেই জড়িত। হাতি মার্কা নিয়ে নির্বাচন করছেন তিনি।

শিল্পপতি অাব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাবিথ অাউয়াল বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে ফুটবলপ্রেমী হিসেবে ব্যাপকভাবে পরিচিত। মাঝারি মানের বিভিন্ন দল যেমন ফকিরের পুল ইয়াংম্যান্স, অারামবাগ ক্রীড়া সংঘ প্রভৃতি দলে খেলে তিনি এখন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের দল সকার ক্লাব ফেনীর সভাপতি এবং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নির্বাচিত সহ-সভাপতি। এছাড়াও ন্যাশনাল টিমস কমিটি–যেটি জাতীয় ফুটবল দলের সার্বিক বিষয়গুলো তদারক করে সেটিরও একজন কো-চেয়ারম্যান। ঢাকা মহানগর উত্তরে বাস মার্কা নিয়ে ২০ দলীয় জোটের সমর্থনপুষ্ট তাবিথ অাউয়াল নির্বাচন করছেন।

হেভিওয়েট এই দুই মেয়র প্রার্থী ছাড়াও ছড়িয়ে ছিটিয়ে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছেন অারও অনেকেই। গোপীবাগ-গোলাপবাগ এলাকায় ৩ জন পরিচিত ক্রীড়া সংগঠক লড়ছেন কাউন্সিলর পদের জন্যে। ঢাকা দক্ষিণ ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডে মোজাম্মেল হক মুক্তা ট্রাক মার্কা নিয়ে লড়ছেন। সেখানেই তার প্রতিদ্বন্দ্বী অারেক পরিচিত ক্রীড়া সংগঠক ময়নুল হক মঞ্জু। তার মার্কা রেডিও। এই দুজনেই এর অাগে বেশ কয়েকবার ওয়ার্ড কাউন্সিলর ছিলেন। প্রয়াত চিত্র তারকা বুলবুল অাহমেদের ভাগ্নে ও ক্রীড়া সংগঠক সাব্বির অাহমেদ অারেফও অাছেন ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচনে। একই এলাকায় তিনজন ক্রীড়া সংগঠকের সরাসরি লড়াই বিরল ঘটনাই বটে।

মোজাম্মেল হক মুক্তা জেতার ব্যাপারে দৃঢ়প্রত্যয়ী। তিনি বলেন,’অামি দীর্ঘদিন ধরে এলাকার মানুষের সেবা করেছি এবং তারা অামাকে অাদ্যপান্ত চেনেন। অামার ব্যক্তিগত চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। খেলার মাঠ এবং মানুষের সেবাই অামার একমাত্র চিন্তা-চেতনা। অামি দৃঢ়বিশ্বাসী, জয়ী হবো।’

ময়নুল হক মঞ্জুও বেশ কয়েকবার এলাকার কাউন্সিলর ও কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তার মুখেও একই সুর-‘অামি এলাকার ছেলে এবং এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান অতীতেও করেছি। এলাকার মানুষ অামাকে ভালোভাবেই চেনে এবং অামাকে নির্বাচিত করবে এটি অামি দৃঢ়ভাবেই বিশ্বাস করি।’

৩৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী সাব্বির অাহমেদ অারেফ উড়াতে চান তারুণ্যের ধ্বজা। তিনি বলেন,’মানুষ পরিবর্তন চায় বলেই অামি কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছি। অাশাকরি, পরিবর্তনের বাতাস বইবে এবং অামি নির্বাচিত হবো।’

এছাড়াও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে রেডিও মার্কা নিয়ে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছেন বাংলাদেশ সাইক্লিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ খান বাবুল।

আর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ওয়ার্ড নম্বর ১-এ লাটিম মার্কা নিয়ে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছেন ভিক্টোরিয়া ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও ফুটবল সংগঠক নিসার উদ্দীন অাহমেদ কাজল।

একই সিটি করপোরেশনে ৯ নম্বর ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ি মার্কা নিয়ে কাউন্সিলর হওয়ার প্রত্যাশা নিয়ে নির্বাচন করছেন মোহামেডান ক্লাবের সদস্য ও যুবলীগ নেতা মুমিনুল হক সাঈদ।

ঢাকা দক্ষিণে ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ঘুড়ি মার্কা নিয়ে নির্বাচন করছেন ক্রীড়া সংগঠক মোজতবা জামান পপি। ঢাকা দক্ষিণে ওয়ার্ড নম্বর ১৫-এ নির্বাচন করছেন বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অাহমেদ অাসিফ হাসান। তিনি ব্যাডমিন্টন র‌্যাকেটকে প্রতীক হিসেবে বেছে নিয়েছেন।

ফুটবল পাওয়ার হাউস শেখ রাসেলের ম্যানেজার সালেহ জামান সেলিম। তিনি সূত্রাপুর এলাকায় ওয়ার্ড নম্বর ৪৪-এ একজন কাউন্সিলর পদপ্রার্থী। টিফিন ক্যারিয়ার মার্কা নিয়ে লড়ছেন তিনি। সালেহ জামান সেলিম খ্যাতিমান চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব এটিএম শামসুজ্জামানের ছোট ভাই।- বাংলা ট্রিবিউন

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত