টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রাঙ্গুনিয়ায় কিশোর-কিশোরীর বিয়েতে বাঁধ সাধল পুলিশ

আব্বাস হোসাইন আফতাব
রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ২১ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস): রাঙ্গুনিয়া উপজেলার দক্ষিন রাজা নগর ইউনিয়নের রাজা ভূবন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ট শ্রেনীর ছাত্রী ফুলবাগিছা গ্রামের রাজু আকতার সুমি (১৩) ও একই স্কুলের ৭ম শ্রেনীর ছাত্র মো. ফারুক মিয়া (১৪) এর বাল্য বিয়ে বন্ধ হল। রাঙ্গুনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম মজুমদারের নির্দেশে ধামাইর হাট এলাকার স্থানীয় একটি মসজিদে মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) সন্ধ্যায় বিয়ে পড়ানোর সময় পুলিশ গিয়ে এই বিয়ে বন্ধ করে দেয়। কিশোর-কিশোরী প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে না দেওয়ার অঙ্গীকার করেন দুই পরিবার।

জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিন রাজা নগর ইউনিয়নের ফুলবাগিছা গ্রামের রেজাউল করিমের পুত্র কিশোর ৭ম শ্রেনীর ছাত্র মো. ফারুক মিয়ার মতের বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে তার চাচা ও চাচীরা মিলে একই গ্রামের দিন মজুর জাহাঙ্গীর আলমের কন্যা রাজু আকতার সুমির মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) বিয়ের আয়োজন করেন। কিশোরের জন্ম সনদে জন্ম তারিখ লিপিবদ্ধ ১৬ মে ২০০১ সাল। ইউনিয়ন পরিষদ জন্ম সনদ অনুযায়ী এই ছাত্রের বর্তমান বয়স ১৩ বছর ১১ মাস ৫ দিন। কিশোরীর বর্তমান বয়স ১৩ বছর ৩ মাস ৩ দিন।
স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা প্রশাসন এই বাল্য বিয়ে বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেন।

কিশোর ফারুক মিয়া জানান, বিয়েতে তার মত ছিলনা। তার বাবার সাথে চাচার শত্র“তা থাকায় পরিকল্পিতভাবে সুকৌশলে তার বিয়ের আয়োজন করে।

এ ব্যাপারে দক্ষিন রাজা নগর ইউপি চেয়ারম্যান মো. এনামুল হক মিয়ার সাথে যোগাযোগ করলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুস সালাম সিকদারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, মেয়ে হতদরিদ্র পরিবার হওয়ায় স্থানীয়ভাবে নিস্পত্তির চেষ্ঠা করছেন।

স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য আহমদ সৈয়দ তালুকদার বাল্য বিয়ের বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ছেলে মেয়ের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক হওয়ায় সামাজিকভাবে এই বিয়ের আয়োজন করা হয়। বাল্য বিয়ে মূলত আইনত দন্ডনীয়।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার সাধারন সম্পাদক ইস্কান্দর মিয়া তালুকদার জানান, বাল্য বিয়ে বন্ধ হওয়ায় মানবাধিকার সুরক্ষিত হয়েছে।

এ ব্যাপারে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম মজুমদার জানান, কিশোর-কিশোরীর বাল্য বিয়েসহ ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি বাল্য বিয়ে বন্ধ করেছি। বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসন সবসময় সজাগ রয়েছে।

রাঙ্গুনিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আলী শাহ জানান, বাল্য বিয়ের বিরুদ্ধে আন্দোলন আমার দীর্ঘদিনের। বাল্য বিয়ের আয়োজনের বিষয়ে শুনে প্রশাসনকে অবহিত করেছি।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত