টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

কাদের ও হাছানকে নিয়ে খসরুর অভিযোগ

kader-kasru-hasanচট্টগ্রাম, ২১ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):  সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙঘনের অভিযোগ তুলেছেন বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মনজুর আলমের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঘন ঘন কেন চট্টগ্রাম আসেন সেই প্রশ্নও রেখেছেন বিএনপির সাবেক এ মন্ত্রী।

এছাড়া ড. হাছান মাহমুদ কোন ক্ষমতাবলে ব্যাটারি চালিত রিকশা চালকদের নিয়ে সমাবেশ করে মনজুরের আলমের বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখেছেন সেই কৈপিয়তও চেয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার বিকেল তিনটায় নগরীর লাভলেইনস্থ চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ে রিটার্নিং অফিসারের কাছে স্মারকলিপি দেওয়ার সময় এ অভিযোগ করেন আমীর খসরু।

চট্টগ্রামের রিটার্নিং অফিসার আব্দুল বাতেনকে খসরু বলেন, ‘সরকারের একজন মন্ত্রী ঘন ঘন চট্টগ্রামে আসেন কেন? তিনি সপ্তাহে দু’তিন বার চট্টগ্রামে এসে নানা কথা বলে যাচ্ছেন। উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। সাংবাদিকদের সাথে বৈঠকে বসছেন। সিটি নির্বাচন নিয়ে কথা বলছেন। নির্বাচনে সেনা মোতায়ন হবে কিনা সেটি তিনি ঘোষণা দেয়ার কে? তাকে এই ক্ষমতা কে দিয়েছে। বিষয়গুলো নির্বাচনী আচরণ বিধির লঙঘন নয় কি?’

এর জবাবে রিটানির্ং অফিসার আব্দুল বাতেন পাশে উপস্থিত এক সহকারি রিটানির্ং অফিসারকে বলেন, ‘এই নোট নাও। স্যার, নোট নেয়া হচ্ছে, তদন্ত করে বিষয়গুলো দেখা হবে।’

এরপর আমীর খসরু আরো বলেন, ‘নির্বাচন উপলক্ষে আপনারা নাকি ১৪টি ভিজিল্যান্স টিম গঠন করেছেন। তাদের তেমন কোন কাজই তো চোখে পড়ছেনা। সরকারি দলের প্রার্থীরা আমাদের ওপর প্রশাসনকে ব্যবহার করে নানাভাবে বাধা দিলেও কোন ব্যবস্থাই তো নিচ্ছেন না।’

এসময় বাতেন বলেন, ‘অভিযোগ পেলেই তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এছাড়া আমরা নিজেরাই অনেক কিছু তদন্ত করে ইতোমধ্যে ব্যবস্থা নিয়েছি।’

ড. হাছান মাহমুদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে আমীর খসরু বলেন, ‘সেদিন রাস্তা বন্ধ করে ওয়াসার মোড়ে প্রায় দু’ঘন্টা ব্যাটারি চালিত রিকশা চালকদের নিয়ে সমাবেশ করেছেন হাছান মাহমুদ। সেখানে তিনি আদালতের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রিকশা চালু করার ঘোষণা দিয়ে সাবেক মেয়র মনজুর আলমের বিপক্ষে ভোটারদের উসকে দিয়েছেন। এগুলো কি নির্বাচনী আচরণবিধি লঙঘন নয়?’

তিনি আরো বলেন, ‘তিনি যে ভাষায় কথা বলেন, আমি এসব বিষয় নিয়ে কোন মন্তব্য করবো না। এগুলো তার শিক্ষা ও পরিবারের বিষয়। কিন্তু তিনিতো আচরণবিধি লঙঘন করে অন্য প্রার্থীকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করছেন।’

এ অভিযোগের জবাবে রিটানির্ং অফিসার বাতেন বলেন, ‘ওই সময় আমরা ঢাকায় নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে ছিলাম। এরপর খবর পেয়ে টিম পাঠাতে পাঠাতে তারা সমাবেশ ছেড়ে চলে গেছে।’

মতামত