টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জনগনই আমার ভরসা, মনজুর

MANJU-1চট্টগ্রাম, ২০ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস): ‘আমার কোন পেশী শক্তি নেই, নগরীর সহজ, সরল, শান্তিপ্রিয় জনগনই আমার ভরসা। মেয়র থাকাকালিন সময়ে চাক্তাই খাতুনগঞ্জের উন্নয়ন হয়েছে সবচেয়ে বেশী। ব্যবসায়ী আর শ্রমিক বাঁচলেই দেশ বাঁচবে। ব্যবসায়ী বান্ধব কারা তা নগরীর ব্যবসায়ীরাই ভাল জানেন।’

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ২০ দলীয় জোট সমর্থিত চট্টগ্রাম উন্নয়ন আন্দোলনের প্রার্থী মনজুর আলম সোমবার সকাল থেকে নগরীর ৩৫ নং বক্সিরহাট ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকাতে গণসংযোগকালে তিনি এসব কথা বলেন।

এর একদিন আগে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন একই এলাকায় গণসংযোগ করে চট্টগ্রামকে ব্যবসা বান্ধব নগরী হিসেবে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এমনকি মনজুরকে ব্যর্থ দাবি করে সমালোচনামূখর ছিলেন প্রচারণার পুরোটা সময়জুড়ে।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে মনজুর আলম হযরত শাহ আমানত শাহ (রহ.) মাজার জেয়ারতের মধ্য দিয়ে শুরু করেন দিনের নির্বাচনী প্রচারণা। সেখানে মাজারের খাদেম এবং আগত ভক্তদের সাথে কুশল বিনিময় করেন তিনি। এর পর জেল রোড, বক্সির হাট, টেরী বাজার, খাতুনগঞ্জ, চাক্তাই, নজু মিঞা লেইন, মধ্যম চাক্তাই, রাজাখালি, ৩৪নং পাথরঘাটা ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন তিনি। এসময় বিপুল সংখ্যক কর্মী সমর্থক দলীয় নেতা এবং এলাকার সর্বস্তরের মানুষ তাকে স্বাগত জানান।

এসময় মনজুর আলম বলেন, ‘গত সাড়ে চার বছরে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে ব্যবসায়ীদের প্রতি হয়রানীমূলক, ক্ষতিকর কোন পদক্ষেপই গ্রহন করা হয়নি। আমি নিরীহ লোক। আমার কোন পেশী শক্তি নাই। আপনাদের মত নগরীর সহজ সরল শান্তিপ্রিয় সাধারন মানুষই আমার শক্তি এবং ভরসা। চট্টগ্রাম মহানগরীকে বাণিজ্যিক রাজধানী করার জন্য তিনিই বেশী কাজ করছে।এবার নির্বাচিত হলে চট্টগ্রামকে বিশ্বমানের বাণিজ্যিক নগরীতে পরিণত করা হবে।’

তাই চট্টগ্রামকে ব্যবসা-বান্ধব এবং প্রকৃত বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে গড়ে তুলতে তিনি আগামী ২৮ এপ্রিল ভোট কেন্দ্রে গিয়ে কমলালেবু মার্কায় ভোট দেয়ার জন্য আহবান জানান।

গণসংযোগকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মনজুর আলম বলেন, ‘আমি কথায় নয়, কাজে বিশ্বাসী। গত সাড়ে চার বছর নগরীতে কি করেছি না করেছি তা নগরবাসী ভালো করেই জানে। তারাই আমার কাজের মূল্যায়ন করবে। কোন অপপ্রচারে মানুষ বিভ্রান্ত হবে না।’

তিনি বলেন, ‘নগরী থেকে ব্যাটারি চালিত রিকশা বন্ধ হয়েছে মহামান্য হাইকোর্টের আদেশের কারণে। আর কোর্টের আদেশ বাস্তবায়ন করেছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ প্রশাসন। এতে আমার বা সিটি কর্পোরেশনের হাত নেই। সরকারের কোন কোন নেতা মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে সাধারণ ব্যাটারি চালিত রিকশা চালকদের বিভ্রান্তির প্রয়াস চালাচ্ছে। এতে কোন লাভ হবে না। শ্রমিকরা ভালো করেই জানে সরকারের ইচ্ছাই ব্যাটারি রিকশা বন্ধ হয়েছে।’

গণসংযোগকালে মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি সামশুল আলম, দক্ষিন জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক গাজী শাহজাহান জুয়েল, কোতোয়ালী থানা বিএনপির সভাপতি হারুন জামান, সৌদিয়া আরবের মদিনা শাখা বিএনপির সেক্রেটারী এসএম আলতাফ হোসেন, বিএনপি নেতা বেলাল, আক্তার, ফরিদ, সুবজ, যুবদলের এমএ রাজ্জাক, ইমন, জাভেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত