টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

লোহাগাড়ায় দুই দিনমজুরের মাথা গোজার ঠাঁই গুড়িয়ে দিল বনবিভাগ

আরফাত হোছাইন বিপ্লব
লোহাগাড়া প্রতিনিধি

 unnamedচট্টগ্রাম, ১৯ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস): লোহাগাড়ার চুনতি নলবনিয়া এলাকায় অর্ধশতাধিক লাটিয়াল নিয়ে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে দুই দিনমজুরের টিনের ঘর। লাটিয়াল বাহিনীর লাটির আঘাতে গুরুতর আহত হয়েছে গৃহবধু খুরশীদা বেগম।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গতকাল রোববার দুপুর ২ টায় বনকর্মকর্তারা অর্ধশতাধিক লাটিয়াল বাহিনী নিয়ে অতর্কিত উপস্থিত হয়ে ওই এলাকার ফরিদুল আলম ও শাহাব উদ্দীনের বাড়ীতে হামলা করেন। লাটিয়াল বাহিনী বাড়ীর ছাউনি ও বেড়া কাটতে গেলে ঘরের ছেলেমেয়েরা বাধা দিতে যান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বনকর্মকর্তা ও লাটিয়াল বাহিনী গৃহবধু খুররশীদা বেগমকে লাটি দিয়ে আঘাত করতে থাকে। এতে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। বনবিভাগের লোকেরা বাড়ী দুটি ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়ে চলে যায়।

স্থানীয় আমির হোসেন (৭০) জানান, আমরা এখানে কয়েকশত পরিবার ১৯৭৯ সাল থেকে বসবাস করে আসছি। এতদিন জানতাম চুনতি মৌজার ২ নং সিটের আর এস ২৩৪৯ ও বি এস ৫৪১০ দাগের এই জমিগুলো সরকারি খাস জমি। অথচ আজ হঠাৎ করে বনবিভাগের লোকেরা এসে জায়গাটি তাদের বলে দাবী করে দুইটি ঘর ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে। ঘটনার সময় গৃহকর্তা দুইজন বাইরে দিনমজুরী করতে যাওয়ার কারনে তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম (দক্ষিণ) সহকারী বন সংরক্ষক শোয়েব খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জায়গাটি বনবিভাগের। এখানে আরো শত শত বাড়ী ঘর থাকলেও সেগুলো ভাঙ্গা হয়নি কেন জানতে চাওযা হলে তিনি বলেন, সেখানে বনবিভাগের একটি অফিস করা হবে তাই ঘর দুটি উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, চুনতির বিভিন্ন এলাকায় সরকারি খাস জমি ছাড়াও বনবিভাগের জায়গায় যুগ যুগ ধরে বসবাস করে আসছে হাজার গরীব কৃষক দিনমজুর পরিবার। দিনমজুরী ও কৃষিকাজ করেই তারা দিনযাপন করে থাকেন। মেয়েরা ওইসব পাহাড়ী এলাকায় তিতকরলা, শসা, পটলসহ বিভিন্ন সবজি চাষ করে থাকে। তবে কৃষকদের প্রায়ই বনকর্মকর্তাদের উপঢৌকন বা অন্যকিছু দিয়ে বশে রাখতে হয়। অন্যথায় তাদের ঘর বাড়ী উচ্ছেদ করে দেওয়াসহ বিভিন্ন হয়রানির শিকার হতে হয়।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত