টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

‘আন্দোলনের কৌশল বদলে নির্বাচনে বিএনপি’

bangla_bnp_khaledaচট্টগ্রাম, ১৫  এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: নয়াপল্টনে নববর্ষের অনুষ্ঠানে প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চান বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া।

বাংলাদেশে আর প্রায় দুই সপ্তাহ পরেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাস জামিন পাবেন কি-না হাইকোর্ট আজ বুধবার সেই সিদ্ধান্ত দিতে পারে।

গ্রেপ্তারের ভয়ে মিস্টার আব্বাস এখনো প্রচারণা চালাতে পারছেন না। তার পক্ষে প্রচার কাজে মাঠে নেমেছেন তার স্ত্রী আফরোজা আব্বাস।

বিএনপি অভিযোগ করছে, গ্রেপ্তারের ভয়ে তাদের অনেক কাউন্সিলরও প্রচারণায় অংশ নিতে পারছেন না।

তারপরও খালেদা জিয়া গতকাল নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে দলের সমর্থিত প্রার্থীদের ভোট দিতে আহ্বান জানিয়ে স্পষ্ট করে দিয়েছেন, বাধা-বিপত্তি সত্ত্বেও তিনি সরকার পতনের আন্দোলন ছেড়ে আপাতত নির্বাচনের পথ নিচ্ছেন।

সরকার ও রাজনীতির একজন অধ্যাপক এবং বিশ্লেষক ড. তারেক শামসুর রহমান মনে করেন, বিএনপির পক্ষে নির্বাচন ছাড়া এই মুহূর্তে দলের ভাবমূর্তি উদ্ধার করা সম্ভব নয়। কারণ তাদের আন্দোলন খুব একটা জন-সমর্থন পায়নি।

অধ্যাপক রহমান বলেন “তার ওপর বিএনপির আন্দোলনকে কেন্দ্র করে সরকার বহির্বিশ্বে বিএনপিকে জঙ্গিবাদী সংগঠন হিসেবে বা সন্ত্রাসের সাথে তাদের সম্পর্ক রয়েছে –এই বিষয়টি তুলে ধরতে চেয়েছিল। সরকার অনেকটাই সফলও হয়েছে। ফলে বিএনপি মনে করছে এই অপপ্রচার থেকে বেরিয়ে আসার জন্য নির্বাচন হচ্ছে একমাত্র পথ”।

সে কারণেই তারা নির্বাচনের মাঠে ফিরে এসেছে বলে মনে করেন অধ্যাপক রহমান।

তাদের মধ্যে এ উপলব্ধিও এসেছে যে, অবরোধ বা হরতালের কারণে তারা জন সমর্থন পায়নি। অন্যদিকে তাদের ভাবমূর্তিও খারাপ হয়েছে।

বিএনপির আন্দোলনে তাহলে কি লাভ হল সে প্রসঙ্গে মিস্টার রহমান বলেন, “বিএনপির কৌশল হচ্ছে, এই নির্বাচনে ভালো করতে পারলে সেই ফলাফলকে সামনে রেখে তারা জাতীয় নির্বাচনের জন্য সরকারের ওপর চাপ তৈরি করবে”।

যদিও সরকার ২০১৯ সালের আগে কোনও নির্বাচন না দেয়ার বিষয়ে অনড়। বিএনপি সেক্ষেত্রে আন্দোলন অব্যাহত রাখবে বলে তিনি মনে করেন।

তবে তাদের আন্দোলনের ধরণ হয়তো বদলে যাবে বলে মনে করেন তারেক শামসুর রহমান।

মাঠ পর্যায়ে জনমত তৈরির মাধ্যমে ২০১৯ সালের আগেই নির্বাচনের তারিখ দিতে বিএনপি সরকারকে বাধ্য করার চেষ্টা চালাবে বলেও তিনি মনে করছেন।-বিবিসি

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত