টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বর্ণিল আয়োজনে চট্টগ্রামে চলছে বর্ষবরণ

CTgচট্টগ্রাম, ১৪ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: বন্দরনগরী চট্টগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে চলছে বাংলা নববর্ষকে বরণের নানা আয়োজন। বর্ষবরণ উপলক্ষে চট্টগ্রামের বিভিন্ন সংগঠন পালন করছে নানা কর্মসূচি।

সম্মিলিত পয়লা বৈশাখ উদযাপন পরিষদের আয়োজনে নগরীর ডিসি হিলে বর্ষবিদায় ও বর্ষবরণের দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠান সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে শুরু হয়েছে।

ডিসি হিলে পয়লা বৈশাখ উদযাপনের ৩৮বছর পূর্তি উপলক্ষে এবার থাকছে চট্টগ্রামের সাংস্কৃতিক সংগঠন ও স্কুলগুলোর প্রায় ৮৩টি দলের পরিবেশনা। মঙ্গলবার সকাল থেকে ডিসি হিলে শুরু হয়েছে নানা সাংস্কৃতিক আয়োজনের জমজমাট পরিবেশনা।

‘পয়লা বৈশাখ বাঙালির উৎসব সবার যোগে জয়যুক্ত হোক’ শিরোনামে ডিসি হিলের অনুষ্ঠান শুরু হয় সকাল সাড়ে ৭টায়। নববর্ষকে স্বাগত জানিয়ে উদ্বোধনী সঙ্গীতের পর চিরায়ত বাংলা গান, দলীয় সংগীত, একক সংগীত, বিশিষ্ট শিল্পীদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠানমালা, যন্ত্রসঙ্গীত, প্রদর্শনী, নৃত্যানুষ্ঠান, আবৃত্তি, নৃত্য, নাটক, লালনগীতি লোকগান, উপজাতীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠানমালা, মাইজভান্ডারী গান, বৈশাখী মেলা এবং স্থানীয় সংগঠনসমূহের পরিবেশনায় অনুষ্ঠানমালা পরিবেশিত হচ্ছে একের পর এক।

চট্টগ্রাম সিআরবি শিরীষতলা : পয়লা বৈশাখকে সামনে রেখে নববর্ষ উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে সিআরবি চত্ত্বর শিরীষতলায় দিনব্যাপী বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। পয়লা বৈশাখ সকাল সাড়ে ৭টায় ‘ভায়োলিনিস্ট চিটাগাং’ এর ‘এসো হে বৈশাখ’ যন্ত্রসঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে।

বর্ষবরণ উদযাপনে অংশগ্রহণ করছে চট্টগ্রামের ৩৬টি সাংস্কৃতিক সংগঠন। এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করছেন দৈনিক আজাদী সম্পাদক এমএ মালেক। এদিকে সকাল সাড়ে ৮টায় শিরীষতলায় নবনির্মিত মঞ্চের উদ্বোধন করে সংসদ সদস্য ও রেল মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ফজলে করিম চৌধুরী এমপি।
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন : মঙ্গলবার সকাল ৮টায় সর্বস্তরের মানুষের মানুষের অংশগ্রহণে নববর্ষের বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা সার্কিট হাউস থেকে শুরু হয়ে শিল্পকলা একাডেমীতে এসে শেষ হয়েছে। পরে শিল্পকলা একাডেমীতে শুরু হয়েছে আলোচনা ও মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

দুপুর ২টায় কারাগার, হাসপাতাল ও শিশু পরিবারে (এতিমখানায়) উন্নতমানের ঐতিহ্যবাহী দেশীয় খাবার পরিবেশন করা হবে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে।

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব : পয়লা বৈশাখ উপলক্ষে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ‘মেতে উঠি উৎসবে বৈশাখী আনন্দে’ শীর্ষক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। রীমা কনভেনশন সেন্টারে এ উৎসবের উদ্বোধন হবে সকাল ১০টায়।

উৎসবে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন চলচ্চিত্র অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। সাংস্কৃতিক পর্বে রয়েছে গান, বাঁশির সুর এবং কথামালা। এ ছাড়া শিশুদের জন্য রয়েছে মজার মজার আয়োজন।

চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমী : চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমীর উদ্যোগে বর্ষবরণের অনুষ্ঠানমালা উদ্বোধন হয়েছে সকাল ৮টায়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন।

শিল্পকলা একাডেমীর অনুষ্ঠান সমূহের মধ্যে রয়েছে শোভাযাত্রা, ঢোলবাদন, সমবেত সংগীত, দেশাত্মবোধক গান, লোক সংগীত, রবীন্দ্র সংগীত, নজরুল সংগীত, কীর্তন, আঞ্চলিক গান, আধুনিক গান, হারানো দিনের গান, বিচ্ছেদের গান, মাইজভান্ডারী গান, জারী গান, সারিগান, কবি গান, পুঁথিপাঠ, একক আবৃত্তি ও দলীয় নৃত্য ইত্যাদি। অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের প্রায় ২৫টি সাংস্কৃতিক সংগঠন অংশ গ্রহণ করছে।

তারুণ্যের বৈশাখ : তারুণ্যের বৈশাখ উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে চট্টগ্রামের কতোয়ালী কর্ণফুলী নদীর অভয়মিত্র ঘাটে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানমালা শুরু হয়েছে। সকাল ৭টায় শুরু হওয়া অনুষ্ঠানমালায় রয়েছে ‘কর্ণফুলীকে বাঁচানোর দাবিতে সাম্পান র‌্যালি, বৈশাখী সাজ প্রতিযোগিতা, ঘুড়ি উৎসব, পুঁথি উৎসব, বৈশাখের আলোকচিত্র প্রদর্শনী, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চিত্র প্রদর্শনী, আলোচনা সভা, আবৃত্তি, বিশেষ সম্মাননা। সাংস্কৃতিক আয়োজনে বংশীবাদন, গান, নৃত্য, আবৃত্তি, ব্যান্ড দল শহরতলী’র পাশাপাশি কবি গান পরিবেশিত হবে। সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত অনুষ্ঠান চলবে তারুণ্যের বৈশাখের।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় : নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে এবারও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য লোকজ মেলা ও উৎসবের আয়োজন। পয়লা বৈশাখ উদযাপনের মূল আয়োজন রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের জারুলতলায়।

সকাল সাড়ে ৮টায় গোলচত্ত্বর থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রার মাধ্যমে বর্ষবরণের অনুষ্ঠান সূচনা হয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। অন্যান্য কর্মসূিচর মধ্যে রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সঙ্গীত, নৃত্য, আদিবাসী ঐতিহ্য উপস্থাপন, ফ্যাশন শো ও মূকাভিনয়।

এ ছাড়াও থাকছে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী বলী খেলা, লাঠি খেলা, কাবাডি, বউচি খেলা, পুতুল নাচ ও দিনব্যাপী লোকজ মেলা। বিকেলে অনুষ্ঠিত হবে দেশের বিখ্যাত একটি ব্যান্ড দল ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

মতামত