টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামকে এগিয়ে নিতে হবে: কাদের

চট্টগ্রাম, ১৩  এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: বাংলাদেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য চট্টগ্রামকে এগিয়ে নিতে হবে মন্তব্য করে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বলেন, ‘ব্যবসায়ীদের টাকা নিয়ে রাজনীতিবিদরা নির্বাচন করার কারণেই ব্যবসায়ীরা রাজনীতিতে আসছে।ব্যবসায়ীকে ইলেকশনে নমিনেশন দিলে বলে ব্যবসায়ীকে মনোনয়ন দিয়েছে।অথচ চাঁদাবাজিটা করেন ব্যবসায়ী থেকে। তাদের টাকায় নির্বাচন করেন।ব্যবসায়ীরা ভাবেন, টাকাই যখন খরচ করব, নিজেই নির্বাচন করি রাজনীতি করে টাকা খরচ করব।’

সোমবার বিকেলে নগরীর পলোগ্রাউন্ড মাঠে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার সমাপনী অনুষ্ঠাতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেন প্রকল্প নিয়ে ভোগান্তি পোহাতে হয় সবাইকে। ব্যবসায়ীরা আমার কাছে সড়কটির অবস্থা জানতে চান। মহাসড়কের ১২৫ কিলোমিটার পরৃয়ন্ত কাজ গতকাল শেষ হয়েছে। ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পের কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন হবে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করার কাজ করবে জাইকা। এক সপ্তাহ আগে এ প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই কাজ শুরু করেছে তারা। এছাড়া মিরসরাইয়ের বারইয়ার থেকে রামগড় পর্যন্ত ৩৮ কিলোমিটার সড়কের কাজ করবে জাইকা।

তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ করতে হলে, চট্টগ্রামকে সমৃদ্ধ করতে হবে। বাংলাদেশ পিছিয়ে যাবে যদি চট্টগ্রাম পিছিয়ে যায়। বাংলাদেশকে এগিয়ে যেতে হলে চট্টগ্রামকে এগিয়ে নিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি উপলব্ধি করেছেন। ’

চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ ও বন্দর আসনের সাংসদ এম এ লতিফ।

বক্তব্য রাখেন- মেলা কমিটির চেয়ারম্যান নুরুন নেওয়াজ সেলিম, কো চেয়ারম্যান সৈয়দ জামাল আহমেদ ও ব্যবসায়ী নেতা আবদুল মতলুব আহমেদ প্রমুখ।

প্রসঙ্গত বন্দর নগরীর সঙ্গে রাজধানীর যোগাযোগ সহজ ও নির্বিঘ্ন করতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করার কাজ শুরু হয় ২০১০ সালের জানুয়ারিতে। প্রথমে দুই হাজার ৩৮২ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হলেও পরে বেড়ে যায়।  ২০১৩ ফেব্রুয়ারিতে সংশোধিত বাজেটে ব্যয় ধরা হয় তিন হাজার ১৯০ কোটি টাকা।

মোট ১২টি প্যাকেজে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এর মধ্যে সড়কে ১০টি প্যাকেজ ও ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণের জন্য দুটি প্যাকেজ। সড়কের ১০টি প্যাকেজের মধ্যে সাতটির কাজ পায় চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো। কিন্তু নানা প্রতিকূলতার কারণে কাজের অগ্রগতি ছিল নগণ্য।

মতামত