টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

অনিয়মের শেষ নেই বান্দররান স,ও,জ এর সড়ক শাখা -১ এ

শাহাব উদ্দিন
লামা (বান্দরবান) থেকে 

unnamedচট্টগ্রাম, ১৩  এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: লামা পৌরসভার ০৮ নং ওয়ার্ডে অবস্থিত বান্দরবান সড়ক ও জনপদ বিভাগের অর্ন্তগত উপসহকারী প্রকোশলীর কার্যালয় ও সড়ক শাখা ১ এর সাইট অফিসে দীর্ঘদিন যাবত দূনীর্তি অনিয়ম ও সরকারী সম্পদ লুটপাট চলছে বলে স্থানীয় মহল হতে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অযতœ অবহেলায় খোয়া যাচ্ছে স্টক ইয়ার্ডের মূল্যবান মালামাল সরকারী নিয়ম অনুসারে একজন এস,ও (স্টাপ অফিসার ) সড়ক শাখা এক এর সাইট অফিসে থাকার জন্য সকল প্রকার আবাসিক সুযোগ সুবিদা থাকলেও দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত একজন কার্যসহকারীর মাধ্যমে চলছে লামা, আলীকদম, নাইক্ষংছড়ি, সড়কের রক্ষনাবেক্ষনার কাজ।

স্টাফ অফিসার না থাকায়, প্রায় সময় সড়কের রক্ষনাবেক্ষনার কাজে কার্য় সহকারী ও কর্মচারী দের মোধ্যে সমন¦য় হীনতা সৃষ্টি হয় বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সড়ক শাখা ১ এর একজন কর্মচারী জানায়।

অনুসন্ধানে জানা যায় সড়ক শাখা ১ এর সাইট অফিসের এর মালিকানাধীন প্রায় ৪ একর জমি দীর্ঘ ১০ বৎসর যাবত নিয়ম বর্হিভূত ভাবে তামাক চাষের জন্য লাগিয়ত (লীজ) দিয়ে আসছে,প্রতি বছর জমি লাগিয়ত (লীজ) বাবত ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা থেকে ১ লক্ষ ৪০হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করে থাকে যার কোন অংশই সরকারী কোষাগারে জমা হয়না।উধ্বতন কর্মকর্তা ও কার্য সহকারী ভাগ করে নেয় বলে অনুসন্ধানে জানা যায়। গত বছরের জমি লিজ গ্রহিতা আব্দুর রহিম জানায় প্রথমে জমি নেওয়ার পর আবার উধ্বর্তন অফিসারদের কথা বলে তার কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা দাবি করা হয়।

সরেজমিনে দেখাযায় রাস্তার রক্ষনাবেক্ষনার কাজের জন্য সড়ক শাখা ১ এর সাইট অফিসের সামনে মজুদকৃত বিপুল পরিমান বালি ও কংকর সবই নিন্মমানের, কার্যাদেশ অনুযায়ী সিলেটি পাখরের কংকর ও উন্নত মানের বালি ্ক্রয় করার কথা থাকলে নিন্ম মানের বালি ও লোকাল কংকর এর স্টক এর উপরে উপরে সিলেটি পাথর এর কংকর দিয়ে ডেকে দেওয়া হয় এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সওজ এর একজন কর্মচারী বলেন এস.ও সাহেব ঠিকাদারের সাথে আতাঁত করে টাকার বিনিময়ে নিন্মমানের কংকর ও বালি দিয়ে সিলেটি কংকর এর বিল করে দিবে।

২০১৩ সালে সরকারী অর্থায়নে সড়ক শাখা ১ এর মালিকানাধীন জমি সমূহে প্রায় চার হাজার পাম গাছের চারা রোপন করা হয়, চারা গুলি রোপন করার পর থেকে আর কোন প্রকার পরিচর্যা ও রক্ষনাবেক্ষনা না করায় বর্তমানে উক্ত জমি গুলোতে পাম গাছের কোন অসিস্ত নেই, এ বিষয়ে একাধিক এলাকা বাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানায় সরকারী জমিতে পাম গাছের বাগান হলে, জমি লাগিয়তের টাকা পাবেনা বলে কর্মকর্তা কর্মচারীরা ইচ্ছা কৃত ভাবে গাছ গুলি নষ্ট করে ফেলে, সেই সাথে স,ও,জ এর কয়েকজন কর্মচারী পাম গাছের চারা গুলি উত্তোলন করে বিক্রি করে দিয়েছে বলে, নাম প্রকাশ না করা শর্তে একজন এলাকা বাসী জানায়। নিন্ম মানের কংকর ও বালির বিষয়ে সড়ক শাখা ১ এর কার্য সহকারী আবু তাহের বলেন সিলেটি কংকর ও লোকাল কংকর আলাদা ভাবে রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে সড়ক শাখা ১ এর উপসহকারী প্রকৌশলী তানবীর আহাম্মদ বলেন আমি অফিসিয়াল কাজে নাইক্ষংছড়ি থাকার কারনে সাইট অফিসে আসতে পারি নাই, বিষয় টি আমি জানতাম না এখন জানলাম যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করব।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত