টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

কামারুজ্জামানের ‘রিভিউ’র রায় সর্বসম্মত হয়নি, এক বিচারপতির ভিন্নমত

kamaruzzaman fashiচট্টগ্রাম, ০৭ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: কামারুজ্জামানের রিভিউর ক্ষেত্রেও একজন বিচারপতি ‘ভিন্নমত’ দিয়েছেন। তবে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে ৫ সদস্যের বেঞ্চ সংখ্যাগরিষ্টের ভিত্তিতে রিভিউর আবেদন খারিজ করেছে। ফলে কামারুজ্জামানের ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ডের যে আদেশ আপিল বিভাগ দিয়েছিলো সেটি বহাল থাকছে।

উল্লেখ্য, আপিল বিভাগের রায়ের ক্ষেত্রেও একজন বিচারপতি, বিচারপতি আবদুল ওয়াহাব মিয়া ‘ভিন্নমত’ রেখেছিলেন এবং এর ফলে সকল বিচারকের স্বাক্ষর সংবলিত রায়টি পেতে ঘোষণার পরও ১০৭ দিন (৩ নভেম্বর থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারী) লেগেছিলো।

আরো উল্লেখ্য, আপিল বিভাগে ‘ভিন্নমত’ প্রকাশকারী আবদুল ওয়াহাব মিয়া প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বে ৫ সদস্যের যে বেঞ্চে কামারুজ্জামানের রিভিউ আবেদনের শুনানী হয়েছে সেখানেও অন্যতম বিচারক ছিলেন।

বিভিন্ন সুত্র থেকে জানা গেছে, গতকাল সোমবার রিভিউ আবেদনের উপর রায় ঘোষণা করতে প্রধান বিচারপতি আবেদনটি খারিজ করার আদেশ দিয়ে কেবল একটি শব্দ উচ্চারন করেন তা হলো ‘ডিসমিসড্’। তিনি এর বেশি কিছু বলেননি বলে জানা গেছে।

সুত্রে আরো জানা গেছে, গকতাল সোমবার রায় লিখে সকল বিচারকের স্বাক্ষর করা সম্ভব হয়নি, আশা করা হচ্ছে আজ মঙ্গলবার সকল বিচারকের স্বাক্ষর সংবলিত রায় পাওয়া যেতে পারে। তবে ‘ভিন্নমত’ প্রকাশকারী বিচারক যদি এই রায়ে বিস্তারিত কিছু লেখার জন্য কিছুটা সময় নেন তাহলে সকলের স্বাক্ষর যুক্ত রায় পেতে কিছুটা অতিরিক্ত সময় হয়তো লাগতে পারে। আজ এই প্রতিবেদন লেখার সময় দুপুর ২টা পর্যন্তও লিখিত রায় পাওয়া যায়নি।

সংসিøষ্ট মহলের অভিমত, এর ফলে মূল রায়ে প্রভাব পড়বে না, রায় কার্যকর কিছুটা বিলম্বিত হতে পারে মাত্র।

সরকারী মহল যখনই রায়ের লিখিত কপি হাতে পাবেন তারপর মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা ভিক্ষার যে সর্বশেষ আইনী ধাপ রয়েছে কামারুজ্জামানকে তার জন্য কিছুটা সময় দেয়া হবে। এদিকে ফাঁসির দন্ড কার্যকর করার প্রায় সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে নেয়া হয়েছে। এমনকি কামারুজ্জামানের পরিবার শেরপুরে তার নিজ গ্রাম বাজিতখিলা মুদিপাড়ার বাড়িতে দাফনের সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছেন বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

মতামত