টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

হালদা পাড়ে উৎসবের অপেক্ষা !

এস.এম. ইউসুফ উদ্দিন

unnamed (1)চট্টগ্রাম, ০৭ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস)::  বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের পর হালদা পাড়ে সরঞ্জাম নিয়ে প্রস্তুত ডিম আহরণকারীরা । টানা বৃষ্টি ও নদীর পানির স্রোতের পরিবেশ সৃষ্টি হলে প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে যে কোনো সময় মা মাছ ডিম দেবে। দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা।

গতকাল মঙ্গলবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে বজ্রসহ বৃষ্টিপাত শুরু হয়। কখনো হালকা, মাঝারি ও ভারী বর্ষণে পাহাড় থেকে নেমে আসা খাল ও ছরায় ঢলের সৃষ্টি হয়েছে। তাছাড়া জমিতে পানি জমেছে । সে পানিও হালদা নদীর সাথে সংযুক্ত খাল ও ছরা দিয়ে ঢল আকারে প্রবাহিত হচ্ছে। হালদা নদীর সংযুক্ত খাল ও ছরা দিয়ে নদীতে পড়ে ঢলের তোড় বৃদ্ধি পাচ্ছে। আকাশের মেঘের গর্জন ও বৃষ্টির আলামত দেখে হালদা নদী থেকে ডিম আহরণকারীরা উল্লসিত হয়ে পড়েছে। ডিম আহরণকারীরা ডিম আহরণের নৌকাসহ নানা উপকরণ নিয়ে অপেক্ষা করছে। বজ্রসহ বর্ষণ অব্যাহত থাকলে প্রবল ঢলের তোড়ে কার্প জাতীয় মাছ গুলো উজানে উঠে ডিম ছাড়তে পাড়ে। ডিম আহরণকারী ছাড়াও হাটহাজারী, রাউজান দু’উপজেলার মৎস্য বিভাগ এবং জেলা মৎস্য অধিদপ্তর সার্বক্ষণিক নদীতে নজরদারি রেখেছে। মৎস্য বিভাগের পক্ষ থেকে দুই উপজেলার নদীর তীরের হ্যাচারি গুলো তৈরি করে রাখা হয়েছে। যাতে নদীতে ডিম পাওয়ার সাথে সাথে আহরিত ডিম থেকে রেণু ফোটানো যায়।

রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজিম উদ্দিন বলেন, আমরা অপেক্ষায় আছি। যে কোন সময় নদীতে মা মাছ ডিম ছাড়বে।

মতামত