টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামে মনোনয়ন পত্র বাছাইয়ে বাদ পড়ল ৪২ প্রার্থী

চট্টগ্রাম, ০২ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ১৩টি মনোনয়নপত্রে মধ্যে একজন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩১ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০ জনসহ মোট ৪২ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

ফলে মেয়র পদে ১৩টির মধ্যে ১২টি, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৮৮টির মধ্যে ২৫৭টি ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৭১টির মধ্যে ৬১টি মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

নগরীর মুসলিম হল মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার বিকেল চট্টগ্রামের রিটানির্ং অফিসার আব্দুল বাতেন জানান, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর ১ ও ২ এপ্রিল ছিল যাচাই-বাছাইয়ের কাজ। এ দুই দিনের প্রথম দিন সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ৪ নারীসহ বাদ পড়েছিলেন ১২ জন কাউন্সিলর। আর শেষ দিন বৃহস্পতিবার বাদ পড়েছেন ২২ জন সাধারণ কাউন্সিলর ও ৬ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর।

বৃহস্পতিবার সাধারণ ওয়ার্ডে ঋণ খেলাপরি অভিযোগে যারা বাদ পড়েছেন তারা হলেন- ২২ নম্বর এনায়েত বাজার ওয়ার্ডের সেলিম উল্লাহ ও স্বরূপ বিকাশ বড়–য়া, ৪ নম্বর চান্দগাঁও ওয়ার্ডের গোলাম মোস্তাফা, ৫ নম্বর মোহরা ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর মোহাম্মদ আজম, ১১ নম্বর সরাইপাড়া ওয়ার্ডের ছিদ্দিক আহমেদ, ৩ নম্বর পাঁচলাইশ ওয়ার্ডের আইয়ূব খান, ১০ নম্বর উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের শামসুল আলম, ১৩ নম্বর পাহাড়তলী ওয়ার্ডে গিয়াস উদ্দিন, ৮ নম্বর শুলকবহর ওয়ার্ডের শওকত উজ্জামান, নুরুল আনোয়ার, ১৭ নম্বর বাকলিয়া ওয়ার্ডে আবু মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম, শেখ নাঈম উদ্দিন, ১৯ নম্বর দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ডে আব্দুল মান্নান, মহিউদ্দিন মাহমুদ রণি।

এছাড়া মামলা সংক্রান্ত জটিলতায় বাদ পড়েছেন-৭ নম্বর পূর্ব ষোলশহর ওয়ার্ডের রফিউল হায়দার চৌধুরী রাফি, ১৩ নম্বর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর মাহফুজুল আলম।

আয়কর রিটার্ন ও হলফনামায় ভুল থাকায় বাদ পড়েছেন- ২৮ নম্বর পাঠানটুলি ওয়ার্ডের ইয়াছিন রেজা, ২৬ নম্বর উত্তর হালিশহর ওয়ার্ডের জানে আলম, ৯ নম্বর উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের আলী আজগর, ১০ নম্বর উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের আব্দুল কুদ্দুস, ১৭ নম্বর বাকলিয়া ওয়ার্ডের শেখ নাঈম উদ্দিন। নির্বাচনী আইন অনুযায়ী ২৫ বছর পূর্ন না হওয়ায় বাদ পড়েছেন ২ নম্বর জালালাবাদ ওয়ার্ডের রমজান আলী।

সংরক্ষিত ওয়ার্ড থেকেও বয়স ২৫ বছর পূর্ণ না হওয়ায় বাদ পড়েছেন ২ নম্বর ওয়ার্ডের আখিঁ আক্তার। ঋণ খেলাপীর জন্য ৮ নম্বর ওয়ার্ডের আরজুন নাহার মান্না ও ১০ নম্বর ওয়ার্ডের রওশন আরা বেগম। মনোনয়নপত্রে সাথে জমাকৃত কাগজ-পত্রে ভুল থাকায় বাদ পড়েছেন- ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাবিনা-ই-জান্নাত, ১০ নম্বর ওয়ার্ডের সুরমা আক্তার, ৩ ওয়ার্ডের ও রোকেয়া আক্তার।

যাচাই-বাছাই শেষে রিটার্নিং অফিসার আব্দুল বাতেন সংক্ষিত এক ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নিতে গত ২৯ মার্চ মেয়র পদে ১৩ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৮৮ জন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৭১ জন মনোনয়নপত্র জমা দেন। গতকাল বুধবার ও আজ বৃহস্পতিবার যাচাই-বাছাই শেষে মেয়র পদে ১৩ জনের মধ্যে মোট ১২জনের মনোনয়ন পত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৮৮ জনের মধ্যে ২৫৭ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৭১ জনের মধ্যে ৬১ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষনা করা হয়েছে। ফলে বাদ পড়েছেন মেয়র পদে একজন, কাউন্সিলর পদে ৩১ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১০ জন।’

তিনি আরো বলেন, ‘যারা বাদ পড়েছেন তাদের কারো বয়স কম, তথ্য ভুল, ঋণ খেলাপি, টিআইএন সার্টিফিকেটের কপি না দেওয়াসহ কিছু ভুলের কারণে তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তবে বাদ পড়া প্রার্থীরা পরবর্তী তিন দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক মনোনীত চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপিল করতে পারবেন। সেখান থেকে আপিল নিষ্পত্তি হয়ে চূড়ান্ত তালিকা আসার পর আমরা ৭ এপ্রিল চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবো।’

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত