টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড আর সম্ভব নয়: হাছান

চট্টগ্রাম, ০২ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস)::  নির্বাচনের ক্ষেত্রে এখন আর লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করা সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেছেন, ‘হাঁটতে না জানলে সব সময়ই উঠোন বাঁকা হয়। বিএনপির অবস্থাও সে রকম। কিন্তু এখন আচরণবিধি পরিবর্তন ছাড়া আর লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করা সম্ভব নয়।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের এক আলোচনায় হাছান মাহমুদ এ মন্তব্য করেন।

প্রয়াত ঢাকার প্রথম মেয়র মোহাম্মাদ হানিফের ৭১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এখন যে আচরণবিধি আছে তাতে বিএনপির চেয়ারপারসনও ইচ্ছা করলে প্রচারণায় অংশ নিতে পারেন। মন্ত্রীরাও প্রটোকল বাদ দিয়ে প্রচারণায় অংশ নিতে পারবেন।’

তিনি বলেন, ‘একদিকে বিএনপির বড় নেতারা তাদের প্রার্থীর প্রচারণায় অংশ নিতে পারবে। অন্যদিকে আমাদের কোনো মন্ত্রী বা বড় নেতা অংশ নিতে পারবেন না। এভাবে তো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড হয় না।’

হাছান মাহমুদ অভিযোগ করেন, মূলত বিএনপি এই নির্বাচন সামনে রেখে একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইছে। বিএনপির অনেক নেতা পেট্রোল বোমায় অর্থায়ন করেছে। তাদের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে তথ্য আছে।

তিনি বলেন, যেসব সন্ত্রাসীরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য তৈরি হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করা উচিত। কারণ তারা একটি চোরাগোপ্তা হামলার পরিকল্পনা করতে পারে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যের বড় অংশজুড়ে হাছান মাহমুদ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রতি বিষোদগার করেন।

পাকিস্তানের বিরোধীদলীয় নেতা সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের আন্দোলন পরবর্তী বিয়ের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘এখন আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে খালেদা জিয়া কার্যালয় থেকে বের হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। আমরা চেয়ে আছি তিনি ইমরান খানের মত কিছু করেন কিনা তা দেখার জন্য।’

খালেদাকে ‘মানসিক ভারসাম্যহীন’ দাবি করে সাবেক এই বনমন্ত্রী বলেন, ‘কাউকে দেখলেই খালেদা জিয়া কার্যালয় বন্ধ করে দেন। এ আচরণ তো গ্রামের ভারসাম্যহীন মানুষেরা করে। তাই তাকেও এখন পাগলা গারদে ভর্তি করা দরকার।’

অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, ‘সন্ত্রাসীদের প্রার্থী করবেন আর লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড চাইবেন, সেই স্বপ্ন কোনো দিন পূরণ হবে না। সমান সুযোগ চাইলে ভালো মানুষকে প্রার্থী দেন, সুবোধ বালকদের প্রার্থী করান। সন্ত্রাসীদের প্রার্থী দাঁড় করালে দিলে সমান সুযোগ সম্ভব নয়।’

নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপি সম্মানজনক এক্সিটের সুযোগ পেয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘তারা যে পেট্রোল বোমায় সাধারণ মানুষ মেরেছে, সন্ত্রাস করেছে তার থেকে বের হওয়ার এই একটা পথ তারা পেয়েছে।’

জেল খানার কোনো আসামিকে জামিন দেয়ার এখতিয়ার সরকারের নেই উল্লেখ করে কামরুল ইসলাম বলেন, ‘এ যেন মামা বাড়ির আবদার। জেলখানায় অবস্থানরত সন্ত্রাসীদের ছেড়ে দিতে হবে। জামিন দেয়ার ক্ষমতা হাইকোর্টের। এখানে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করবে না। আইন সকলের জন্য সমান, সমান গতিতে চলবে।’

সংগঠনের সহ-সভাপতি ড. এনামুল হকের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদকক হাবিবুর রহমান সিরাজ, বলরাম পোদ্দার, এমএ করিম, আব্দুল হাই কানু, অরুন সরকার রানা প্রমুখ।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত